রবিবার | আগস্ট ১৪, ২০২২ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯  

শেয়ারবাজার

সাপ্তাহিক লেনদেন

বাজার মূলধন বেড়েছে ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের লাগাম টানতে সরকারের জারি করা কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেই উত্থানের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় সপ্তাহ পার করেছে দেশের উভয় পুঁজিবাজার। সপ্তাহ শেষে সূচক লেনদেনের সঙ্গে উভয় এক্সচেঞ্জের বাজার মূলধন ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি বেড়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে সপ্তাহজুড়ে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশির ভাগ শেয়ারদর।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত সপ্তাহে লেনদেন শুরুর আগে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন ছিল লাখ ৬২ হাজার ৭৫৪ কোটি ৩৯ লাখ ১২ হাজার ৩৯১ টাকা, যা সপ্তাহজুড়ে লেনদেন শেষে বেড়ে দাঁড়িয়েছে লাখ ৬৮ হাজার ৩১৬ কোটি ৮১ লাখ ৭২ হাজার ১৩০ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহ শেষে পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে হাজার ৫৬২ কোটি ৪২ লাখ ৫৯ হাজার ৭৩৯ টাকা বা দশমিক ২০ শতাংশ।

বাজার মূলধনের পাশাপাশি গত সপ্তাহে টাকার অংকে ডিএসইর গড় লেনদেন বেড়েছে। গত সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইর গড় লেনদেন হয়েছে ৮৫১ কোটি ৯৭ লাখ ৪৯ হাজার ১৫৮ টাকা, যা তার আগের সপ্তাহে চার কার্যদিবসে ছিল ৫০৪ কোটি ৮০ লাখ ৫০ হাজার ২৩০ টাকা। সে হিসাবে গত সপ্তাহে ডিএসইর গড় লেনদেন বেড়েছে ৩৪৭ কোটি ১৬ লাখ ৯৮ হাজার ৯২৮ টাকা বা ৬৮ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

এদিকে গত সপ্তাহে ডিএসইতে টাকার অংকে মোট লেনদেনও বেড়েছে। গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইর মোট লেনদেন হয়েছে হাজার ২৫৯ কোটি ৮৭ লাখ ৪৫ হাজার ৭৮৯ টাকা। যেখানে তার আগের সপ্তাহে চার কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল হাজার ১৯ কোটি ২২ লাখ ৯২২ টাকা। সে হিসাবে টাকার অংকে ডিএসইর মোট লেনদেন বেড়েছে হাজার ২৪০ কোটি ৬৫ লাখ ৪৪ হাজার ৮৬৭ টাকা বা ১১০ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১২৪ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৫ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে হাজার ৪৩৫ পয়েন্টে, যা আগের সপ্তাহ শেষে ছিল হাজার ৩১০ দশমিক ১৯ পয়েন্ট। নির্বাচিত কোম্পানির সূচক ডিএস-৩০ বেড়েছে ৬০ দশমিক ৭৩ পয়েন্ট বা শতাংশ। গত সপ্তাহে সূচকটি দাঁড়িয়েছে হাজার ৮৭ দশমিক ৫৫ পয়েন্টে, যা আগের সপ্তাহ শেষে ছিল হাজার ২৬ পয়েন্ট। ডিএসইর শরিয়াহ সূচক ডিএসইএস ২৮ দশমিক ৩১ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৪ শতংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে হাজার ২৩৭ দশমিক ৩৯ পয়েন্টে, যা আগের সপ্তাহে ছিল হাজার ২০৯ পয়েন্ট।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৭৫টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড করপোরেট বন্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ২০৬টির, কমেছে ১০০টির, অপরিবর্তিত রয়েছে ৬৩টির আর লেনদেন হয়নি ছয়টির।

খাতভিত্তিক লেনদেনচিত্রে দেখা যায়, গত সপ্তাহে ডিএসইর মোট লেনদেনের ২৭ দশমিক শতাংশ দখলে নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে সাধারণ বীমা খাত। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৮ দশমিক শতাংশ দখলে নিয়েছে বিবিধ খাত। ১১ দশমিক শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আর্থিক খাত। দশমিক শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে চতুর্থ অবস্থানে ছিল ফার্মাসিউটিক্যাল খাত। আর দশমিক শতাংশ লেনদেনের ভিত্তিতে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে খাদ্য আনুষঙ্গিক খাত।

দেশের আরেক পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গত সপ্তাহে লেনদেন শুরুর আগে বাজার মূলধন ছিল লাখ ৮৯ হাজার ৫১০ কোটি ৮২ লাখ ২০ হাজার টাকা। যা সপ্তাহজুড়ে লেনদেন শেষে বেড়ে দাঁড়িয়েছে লাখ ৯৪ হাজার ৭৪৭ কোটি ৩১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহ শেষে পাঁচ কার্যদিবসে সিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে হাজার ২৩৬ কোটি ৪৯ লাখ ১০ হাজার টাকা।

সিএসইতে গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে মোট লেনদেন হয়েছে ১৯৮ কোটি ৪৬ লাখ ৮২ হাজার ৪৯৪ টাকার। আগের সপ্তাহের চার কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৭৩ কোটি ৪৪ লাখ ৫০ হাজার ৯৪৪ টাকার। সেই হিসাবে সপ্তাহের ব্যবধানে সিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ১২৫ কোটি লাখ ৩১ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা বা ১৭০ দশমিক ২২ শাতংশ।

গত সপ্তাহে সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৪৪ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৭২৩ দশমিক ৬০ পয়েন্টে, যা আগের সপ্তাহে ছিল ১৫ হাজার ৩৭৯ দশমিক ২১ পয়েন্টে। আলোচ্য সময়ে সিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩০৫টি কোম্পানি মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৭১টির, কমেছে ৮৮টির, অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৬টির।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন