মঙ্গলবার | জুন ২৮, ২০২২ | ১৪ আষাঢ় ১৪২৯  

শেয়ারবাজার

আয় বাড়লেও মুনাফা কমেছে ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টসের

নিজস্ব প্রতিবেদক

চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) আয় বেড়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ জ্বালানি খাতের কোম্পানি ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টস লিমিটেডের। আগের হিসাব বছরের একই সময়ের তুলনায় সময়ে কোম্পানিটির আয় বেড়েছে ১২ শতাংশের বেশি। বিপরীতে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী নিট মুনাফা কমেছে ৪৯ শতাংশ। কোম্পানিটির সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে তথ্য উঠে এসেছে।

আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি ২০২১-২২ হিসাব বছরের প্রথমার্ধে ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টসের আয় হয়েছে প্রায় কোটি টাকা। যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে আয় ছিল কোটি ৩৪ লাখ টাকা। এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির আয় বেড়েছে ৫৩ লাখ টাকার বেশি বা ১২ দশমিক ২২ শতাংশ। সময়ে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছে ২৯ লাখ টাকার বেশি। যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে মুনাফা ছিল ৫৭ লাখ টাকার বেশি। এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির নিট মুনাফা কমেছে ২৮ লাখ টাকার বেশি বা ৪৯ শতাংশ। সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে টাকা ৯৬ পয়সা। আগের হিসাব বছরের একই সময় যা ছিল টাকা ৮০ পয়সা।

অন্যদিকে চলতি হিসাব বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) কোম্পানিটির আয় হয়েছে ৫৯ লাখ ৫৮ হাজার টাকা। যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে আয় ছিল প্রায় কোটি টাকা। আলোচ্য প্রান্তিকে কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছে ১২ লাখ টাকা। যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে মুনাফা ছিল ২৯ লাখ টাকা। আলোচ্য প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে টাকা ২২ পয়সা। আগের হিসাব বছরের একই সময় যা ছিল টাকা ৯৪ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩০ টাকা ৫৮ পয়সায়।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০২০-২১ হিসাব বছরের জন্য ১৬০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টসের পরিচালনা পর্ষদ। এর মধ্যে ১৪০ শতাংশ নগদ ২০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ রয়েছে। সমাপ্ত হিসাব বছরের ঘোষিত লভ্যাংশ অন্যান্য এজেন্ডায় শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনের জন্য আগামী ১২ মার্চ ভার্চুয়াল মাধ্যমে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আহ্বান করা হয়েছে। -সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট ১৮ জানুয়ারি।

আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৫২ টাকা ১৮ পয়সা। আগের হিসাব বছরে যা ছিল টাকা ৪৩ পয়সা। ৩০ জুন ২০২১ শেষে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ২২৭ টাকা ৬৩ পয়সায়। আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৭৮ টাকা ৪৫ পয়সা।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে কোম্পানিটি। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির ইপিএস ছিল টাকা ৪৩ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ২৩ টাকা ৪৫ পয়সা। ৩০ জুন প্রতিষ্ঠানটির এনএভিপিএস দাঁড়ায় ১৭৮ টাকা ৪৫ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৮২ টাকা ৭৬ পয়সা।

সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টস। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির ইপিএস ছিল ২৩ টাকা ৪৫ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৩৬ টাকা ২৩ পয়সা। ৩০ জুন এনএভিপিএস দাঁড়ায় ১৮২ টাকা ৭৬ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৬৯ টাকা ৩১ পয়সা।

২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের ১০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টস। ২০১৭ হিসাব বছরেও একই হারে নগদ লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা। সে হিসাব বছরে ইপিএস ছিল ৪০ টাকা ৬৩ পয়সা।

ডিএসইতে বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বশেষ সমাপনী দর ছিল হাজার ৫২১ টাকা ৩০ পয়সা। গত এক বছরে শেয়ারটির সর্বনিম্ন সর্বোচ্চ দর ছিল যথাক্রমে ৯৬৫ টাকা হাজার ৭৮০ টাকা।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন


×