বুধবার | মে ২৭, ২০২০ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

রঙঢঙ

শীতের রুক্ষতায় ত্বক ও চুলের আর্দ্রতা ফেরাবে ঘি

এস. সামরিন

ঘি। খাবারে লোভনীয় স্বাদ আনতে এর জুড়ি মেলা ভার। রূপচর্চায়ও রয়েছে এর বহুবিধ ব্যবহার। একসময় ভুল ধারণা ছিল, ঘি লাগলে নাকি চুল, ভ্রূ ও চোখের পাপড়ি সাদা হয়ে যায়! কিন্তু না, রূপসীর ত্বকের যত্নের সবটা করে চুলের দ্রুত বৃদ্ধি, মসৃণতা ও কন্ডিশনিংয়ের কাজটাও দারুণ করে সুগন্ধময় এ প্রাকৃতিক উপাদান। শীতের শুষ্ক আবহাওয়ায় ত্বক ও চুলের আর্দ্রতা রক্ষায় ঘিকে সঙ্গী করে নিন

 

ত্বকের জন্য ময়েশ্চারাইজার

শরীরের তুলনায় মুখের ত্বক অনেক বেশি পাতলা ও সূক্ষ্ম। মুখের ত্বকে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে সমপরিমাণ ঘি ও পানি একসঙ্গে মিশিয়ে কটনবল দিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে আলতো হাতে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। শীতে ত্বক নরম ও কোমল রাখতে সপ্তাহে একবার এ মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন।

 

হাইড্রেশন

ঘির মধ্যকার ফ্যাটি অ্যাসিড ত্বককে রাখে হাইড্রেটেড। যাদের ত্বক খুব বেশি শুষ্ক, তারা গোসলের আগে সারা দেহে ঘি ম্যাসাজ করতে পারেন। প্রয়োজনমতো ঘি একটু গরম করে শরীরে ৩-৫ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এর পর হালকা গরম পানি ও তোয়ালে দিয়ে ত্বক রগড়ে রগড়ে গোসল সেরে ফেলুন। এতে ত্বকে জমা মৃত কোষ ঝরে গিয়ে ত্বকে লাবণ্য ফিরে আসবে। শীতের শুষ্কতা এড়াতে স্বাভাবিক ত্বকের অধিকারীরাও সপ্তাহে একবার এটি করতে পারেন।

 

জেল্লা

ত্বকের জেল্লা বাড়াতে রোজ একটু করে ঘি খেতে পারেন। মাস্ক হিসেবেও লাগানো যায়। মাস্ক তৈরির জন্য বেসন ও সমপরিমাণ দুধ ঘির সঙ্গে মিশিয়ে মুখে, গলায় ও ঘাড়ে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রাখুন। এর পর ধুয়ে ফেলুন। তাত্ক্ষণিকভাবেই ত্বকের উজ্জ্বলতা দেখতে পাবেন।

বয়স ধরে রাখতে

যারা ত্বকে নিয়মিত ঘি ব্যবহার করেন, তাদের ত্বক বহুদিন পর্যন্ত টান টান, মসৃণ ও তারুণ্যদীপ্ত থাকে। ঘি ত্বকের শুষ্কতা দূর করে ও ভেতর থেকে ত্বককে রাখে সজীব।

 

ঠোঁটের যত্নে

রাতে ঘুমানোর আগে ঠোঁটে এক ফোঁটা ঘি লাগিয়ে ঘুমান। এটি ঠোঁটের আর্দ্রতা ধরে রাখে ও ঠোঁটকে নরম করে। কালচে ঠোঁটে টানা কয়েক সপ্তাহ ঘি লাগান। কালচে ভাব কেটে গিয়ে গোলাপি আভা ফুটে উঠবে।

 

চোখের যত্নে

চোখের ক্লান্তি দূর করতে রোজ চোখের নিচে এক ফোঁটা ঘি লাগান। বেশ কয়েক দিনেই উজ্জ্বলতা ও সতেজ ভাব ফিরে আসবে। তাছাড়া ডার্ক সার্কেল দূর করতেও ঘি বেশ কার্যকর।

 

চুলের জন্য

শুষ্ক ও আগা ফাটা চুলে ঘি গরম করে লাগান। ১ ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন। উষ্কখুষ্ক ও রুক্ষ চুলকে বশে আনতে সমপরিমাণ অলিভ অয়েল ও ঘি হালকা গরম করে চুলে ১৫-২০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এর পর কোমল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। এছাড়া ঘি চুলের দ্রুত বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে। সমপরিমাণ নারকেল তেল ও ঘি গরম করে স্কাল্পে ম্যাসাজ করুন। ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।