শেয়ারবাজার

বাণিজ্যিক উৎপাদনে বারাকা শিকলবাহা পাওয়ারের বিদ্যুৎকেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০০:০০:০০ মিনিট, জুলাই ২০, ২০১৯

চট্টগ্রামের শিকলবাহায় বারাকা শিকলবাহা পাওয়ার লিমিটেডের ১০৫ মেগাওয়াট এইচএফওভিত্তিক আইপিপি বিদ্যুৎকেন্দ্রে বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) কর্তৃক বৃহস্পতিবার ইস্যুকৃত একটি চিঠিতে এ ঘোষণা দেয়া হয়েছে। ওই চিঠিতে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির বাণিজ্যিক উৎপাদনের তারিখ (সিওডি) ২৪ মে থেকে কার্যকর হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

শিকলবাহায় নির্মিত ১০৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ারের ৫১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার আবার বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি, যেখানে মূল কোম্পানির ৫১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। এ হিসাবে শিকলবাহা বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে বারাকা পাওয়ারের ক্রস হোল্ডিং শেয়ার রয়েছে ২৬ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শেয়ার। এছাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে ২০ শতাংশ সরাসরি মূলধনি বিনিয়োগ রয়েছে তাদের। অর্থাৎ শিকলবাহা বিদ্যুৎকেন্দ্রটির মোট ৪৬ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শেয়ারধারী বারাকা পাওয়ার।

সংশ্লিষ্ট সূত্র অনুযায়ী, বারাকা শিকলবাহা পাওয়ারের বিদ্যুৎকেন্দ্রটির বিষয়ে ২০১৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি বিপিডিবির পক্ষ থেকে লেটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) ইস্যু করা হয়। এলওআই ইস্যুর ৯ মাসের মধ্যে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসার কথা ছিল। উল্লেখ্য, ১৫ বছরের জন্য কেন্দ্রটি থেকে বিদ্যুৎ কেনার চুক্তি রয়েছে সরকারের।

২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার লিমিটেড। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির সম্মিলিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৭৫ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ২ টাকা ২৯ পয়সা। ৩০ জুন সম্মিলিতভাবে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১৮ টাকা ৮০ পয়সা, এক বছর আগে যা ছিল ২০ টাকা ১২ পয়সা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জুলাই-মার্চ) বারাকা পাওয়ারের সম্মিলিত ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ২৭ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল ১ টাকা ৩৭ পয়সা। তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) সম্মিলিত ইপিএস হয়েছে ৩০ পয়সা। ৩১ মার্চ সম্মিলিত এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১৭ টাকা ৭৩ পয়সা।

সর্বশেষ এনটিটি সার্ভিল্যান্স রেটিং অনুসারে, বারাকা পাওয়ারের ঋণমান ‘ডাবল এ ওয়ান’। ২০১৮ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত কোম্পানির নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ব্যাংক লায়াবিলিটি পজিশন ও প্রাসঙ্গিক অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রত্যয়ন করেছে ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (সিআরএবি)।

২০১৭ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ৫ শতাংশ নগদ ও ১৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দেয় বারাকা পাওয়ার। এছাড়া ২০১৬ হিসাব বছরের জন্য ১৫ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানির শেয়ারহোল্ডাররা।