কলের গাড়ি

সময়ের বন্ধু স্কুটি

ফিচার ডেস্ক | ০৩:৩২:০০ মিনিট, এপ্রিল ১৪, ২০১৯

এখন অনেক নারীই ঘরের বাইরে কাজ করেন। আর কর্মজীবী নারীর সংখ্যা আসলেই চোখে পড়ার মতো। তাই সকালে অফিস যাওয়ার তাড়াহুড়ো থাকে তাদেরও। কিন্তু এখন রাস্তাঘাটের যে অবস্থা, তাতে যেন ঘর থেকে বের হলেই রিকশা ভাড়া ৫০-১০০ টাকার নিচে হয় না! অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় যাত্রাপথে কয়েকবার বাস, রিকশা, সিএনজি চালিত অটোরিকশা বদল করেও অফিসে পৌঁছাতে হয়। সেক্ষেত্রে পুরুষরা যেমন রাস্তার ধকল সামলাতে বাইকের ওপর নির্ভর করছেন, তেমনি নারীরাও কিনে নিচ্ছেন স্কুটি।

 কেনার আগে

যারা প্রথমবার স্কুটি কিনছেন, তাদের মনে নানা প্রশ্নের সঞ্চার হয়। যেমন স্কুটির ওজন, গতি বা দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে কিনা। সেক্ষেত্রে জেনে রাখা ভালো, নারীদের জন্য স্কুটি তৈরিতে ব্যবহার হয় হালকা মেটাল। আবার কিছুটা কম গতির হয়। ফলে দুর্ঘটনার আশঙ্কাও কম থাকে। আবার মোটরবাইকের তুলনায় স্কুটি চালানো বেশ সহজ। আছে ৯০ মিলিমিটার চওড়া অ্যান্টি স্টিড টায়ার। চালকের নিরাপত্তার কথা ভেবেই স্কুটিগুলোয় ১২০ সিসির ইঞ্জিন থাকে। তাই সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এছাড়া টিউবলেস টায়ার থাকায় চাকা ফুটো হলেও আরো প্রায় ১০ কিলোমিটার চলা যায়। তাছাড়া রয়েছে বিভিন্ন সুবিধা, যেমন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র রাখার জন্য এতে আলাদা চেম্বার যুক্ত আছে। ফলে হ্যান্ডব্যাগ অতিরিক্ত ভারী না করেও দরকারি জিনিস চেম্বারে রাখা যায়।

 বিভিন্ন রকম স্কুটি

বিভিন্ন ব্র্যান্ডের স্কুটির মধ্যে হোন্ডা অ্যাক্টিভা আই অন্যতম। ১০৯ সিসি ইঞ্জিনবিশিষ্ট স্কুটিটির দাম ৫০ হাজার ৫৪৮ রুপি। দুই বছরের ওয়ারেন্টিযুক্ত জ্বালানিসাশ্রয়ী এ স্কুটি প্রতি লিটারে চলে ৫৬ কিলোমিটার। বাজারে চাহিদা রয়েছে এমন স্কুটির মধ্যে অন্যতম টিভিএস স্কুটি জেস্ট। এর দাম ৫০ হাজার ৪৮৬ রুপি। যদিও ১০০/১১০ সিসির এ স্কুটির কাঠামোগত দিক দিয়ে ছোট, কিন্তু বেশ মজবুত। এটি ওজনেও অনেক হালকা। পথে খুব সহজেই যে স্কুটারটি চোখে পড়ে, তা হলো হিরো প্লেজার। এটি চালানো বেশ আরামদায়ক। এ স্কুটির দাম ৪৫ হাজার ১০০ রুপি। ১০২ পাওয়ার প্লান্টবিশিষ্ট স্কুটিটির মূল বিশেষত্ব হলো এর ব্রেকিং সিস্টেম। এছাড়া বাজারে নিত্যনতুন স্কুটি আসছে। বাংলামোটর, বংশাল, তেজগাঁও, গুলশান, মিরপুরে রয়েছে বাইকের বিভিন্ন শোরুম। সেখানে গিয়ে সরাসরি দেখে বেছে নিতে পারেন পছন্দের স্কুটিটি।

 সাবধানতা

যদিও স্কুটিকে তুলনামূলক নিরাপদ বলা হচ্ছে, তারপরও কিছু সাবধানতা তো মেনে চলতেই হবে। প্রথমত ট্রাফিক আইন মেনে চলতে হবে। পাশাপাশি স্কুটি যিনি চালাবেন এবং পেছনে যদি কোনো আরোহী থাকে, তার মাথায় অবশ্যই হেলমেট থাকতে হবে। রাস্তায় বের হওয়ার আগে দেখে নিন ড্রাইভিং লাইসেন্স সঙ্গে নিয়েছেন কিনা। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে পোশাক। এমন পোশাক পরে স্কুটি চালান, যাতে বারবার সামলে নেয়ার ঝামেলা না থাকে। ওড়না ভালোভাবে গুছিয়ে নিতে হবে, যাতে চাকার সঙ্গে আটকে গিয়ে দুর্ঘটনা না ঘটে। জেনে রাখা ভালো, স্কুটির গতি ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে থাকলে স্কুটি নিয়ন্ত্রণেই থাকবে। চালানোর সময় কখনই ফোনে কথা বলা যাবে না। চেষ্টা করুন মিরর সবসময় পরিচ্ছন্ন রাখতে।

 যত্নআত্তি

গাড়ি ভালো রাখার গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, তা নিয়মিত সার্ভিসিং করাতে হবে। স্কুটিতে পর্যাপ্ত তেল বা চার্জ আছে কিনা, সেদিকেও নজর দেয়া প্রয়োজন। নিয়মিত ইঞ্জিন কিংবা অন্য অংশ পরিচ্ছন্ন রাখার বিষয়েও নজরদারি করা প্রয়োজন। এসব বিষয় খেয়াল না করলে স্কুটি দ্রুত অকেজো হয়ে যেতে পারে। কোনো সমস্যা দেখা গেলে বিলম্ব না করে যতদ্রুত সম্ভব সারিয়ে নিতে হবে।

 

সূত্র: জিগ হুইলস ও স্কুট অ্যারাউন্ড