খেলা

স্তম্ভিত ক্রিকেট বিশ্ব

ক্রীড়া প্রতিবেদক | ১৯:২৯:০০ মিনিট, মার্চ ১৬, ২০১৯

সর্বশেষ রেটিংয়ে বিশ্বের নিরাপদ দেশের তালিকায় নিউজিল্যান্ডের অবস্থান দ্বিতীয়। অথচ এমন দেশেই সন্ত্রাসী হামলায় ক্রিকেট বিশ্বে অতি পরিচিত নাম ক্রাইস্টচার্চে নিহত হয়েছেন ৪৯ জন। ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে নিউজিল্যান্ড-বাংলাদেশের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট হওয়ার কথা ছিল আজ থেকে। রক্তের বন্যায় ভেসে গেল ক্রিকেট। শান্তির দেশ নিউজিল্যান্ডে এ ঘটনায় স্তম্ভিত ক্রিকেট দুনিয়া।

ইনজুরির কারণে এবারের নিউজিল্যান্ড সফরে যেতে পারেননি দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। অল্পের জন্য সতীর্থরা প্রাণে বেঁচে যাওয়ায় সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সাকিব। এক টুইটার বার্তায় তিনি লিখেন, ‘ক্রাইস্টচার্চে হামলা নিয়ে আমার কিছুই বলার নেই। মহান আল্লাহতায়ালার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আমার ভাই ও সতীর্থদের তিনি বাঁচিয়ে দিয়েছেন। আলহামদুলিল্লাহ।’ গতকাল ঘটনার অল্প সময় পরেই এক টুইটার বার্তায় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি জানান, এটা স্তম্ভিত হওয়ার মতো শোকাবহ ঘটনা। এমন কাপুরুষোচিত হামলায় হতাহতদের জন্য আমার ভালোবাসা। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য আমার শুভকামনা। নিরাপদে থাকুন সবাই।’ সাবেক পাকিস্তান অলরাউন্ডার শহিদ আফ্রিদি টুইটারে লিখেছেন, ‘নিউজিল্যান্ডকে আমি সবসময় শান্তির দেশ হিসেবেই দেখি। আমি তামিমের সঙ্গে কথা বলেছি। বাংলাদেশের ক্রিকেটার ও স্টাফরা সবাই নিরাপদে আছেন এটা স্বস্তির খবর। সারা বিশ্বের এখন একজোট হওয়ার সময় এসেছে। ঘৃণা ছড়ানো বন্ধ হওয়া উচিত।’ 

ভারতীয় অলরাউন্ডার রবিচন্দ্র অশ্বিন তার মন্তব্যে লিখেছেন, ‘মানবতার জন্য এখন আর বিশ্বের কোনো জায়গায়ই নিরাপদ নয়। মনে হচ্ছে, মানুষই এই গ্রহের এখন সবচেয়ে বড় শত্রু।’ পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ টুইটারে লিখেছেন, ‘শহিদ ও তাদের পরিবারের প্রতি দোয়া। মানবতা আজ হুমকির মুখে। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া যে বাংলাদেশ দল নিরাপদে আছে।’ সাবেক পাকিস্তানি স্পিড স্টার শোয়েব আখতার লিখেছেন, ‘ক্রাইস্টচার্চের ঘটনায় আমি হতভম্ব। প্রার্থনাস্থানগুলোও আর নিরাপদ নয়।’