খেলা

ক্রিকেট ছাড়ার ইঙ্গিত মাশরাফির

ক্রীড়া প্রতিবেদক | ২০:৪৫:০০ মিনিট, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৮

আইসিসির ভবিষ্যৎ সফরসূচিতে (এফটিপি) আগামী ছয় মাসে বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের দুটি দ্বিপক্ষীয় সিরিজ রয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফর ও মে মাসে আয়ারল্যান্ডে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এর পরই ইংল্যান্ডে বসবে ২০১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট। ধারণা করা হচ্ছে, এটিই বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে শেষ বিশ্বকাপ। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এমন ইঙ্গিতই দিলেন সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে যুক্ত হওয়া বাংলাদেশ ক্রিকেটে সবচেয়ে সফল এ অধিনায়ক।

গতকাল মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে গণমাধ্যমকর্মীদের মাশরাফি বলেন, ‘আমি যতদিন ক্রিকেট খেলেছি, মন দিয়ে খেলেছি। টি২০ ছেড়েছি এক বছরের বেশি সময়। টেস্ট খেলছি না প্রায় নয় বছর। এখন শুধু ওয়ানডে ফরম্যাটটাই খেলছি। এ ফরম্যাটেও শেষের কাছাকাছি  চলে এসেছি। আমি রাজনীতিতে যুক্ত হয়েছি। হয়তো খুব বেশিদিন খেলা হবে না। যদি আগামী বিশ্বকাপ পর্যন্ত নিজের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করি, তবে হয়তো বিশ্বকাপের পর আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলব না। এটিই আপাতত আমার লক্ষ্য।’

ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শেষ হয়েছে। ৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ। বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাটিতে আর কোনো ওয়ানডে সিরিজ নেই। তবে কি ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে ওয়ানডে সিরিজই ঘরের মাঠে জাতীয় দলের হয়ে মাশরাফির শেষবারের মতো মাঠে নামা? এর উত্তরে মাশরাফি বলেন, ‘আসলে এখন পর্যন্ত আমার মূল লক্ষ্য বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ শুরু হতে সাত মাস বাকি। এরপর আবার খেলব কিনা সময়ই বলে দেবে।’ যোগ করেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি পর্যন্ত মনে হচ্ছিল আমি পারব কিনা জানি না। আমার ফিটনেস ভালো ছিল বলে মোটামুটি এগিয়েছি। যদি বিশ্বকাপ পর্যন্ত পারফরম্যান্স ঠিক থাকে, তবে ক্রিকেটে আরো কিছু সময় থাকব কিনা তখন ভাবব। তবে আমি যদি ভালো অবস্থায় না থাকি, তাহলে অবশ্যই আমার ক্রিকেট ছাড়তে হবে।’

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণেই কি ক্রিকেট ছেড়ে দেয়ার প্রক্রিয়ায় আছেন? এ প্রশ্ন সবার মুখেই। এ প্রসঙ্গে মাশরাফির ভাষ্য, ‘আমার জীবনে শুরু কিংবা শেষ বলে কিছু নেই। আমার কাছে এ মুহূর্তে নির্বাচনের চেয়ে দেশের হয়ে খেলাটা বড়। আমি সেটাকেই প্রাধান্য দিচ্ছি। নিজের লক্ষ্যটা সিরিজ জয়ের জন্য রাখছি। অবশ্যই আমরা সিরিজটা জিততে চাই। আগের আট-দশটা সিরিজ যেভাবে খেলেছি, এটাও ঠিক একই মনোভাব নিয়ে খেলতে নামব।’

এদিকে আজ থেকে ওয়ানডে দলের পুরোদমে অনুশীলন শুরু হচ্ছে। একদিন পর আগামীকাল বিকেএসপিতে প্রস্তুতি ম্যাচ। তবে এ সময়ে দলের সবাই ক্রিকেট খেলার মধ্যে থাকলেও ছিলেন না কেবল মাশরাফি। ওয়ানডে সিরিজ সামনে রেখে হালকা জিম ও রানিং সেশন করে নিজের প্রস্তুতি শুরু করেছেন। মাশরাফি বলেন, ‘আমার প্রস্তুতি আমার আত্মবিশ্বাস। আমি যখন যে কাজটা করি, মন দিয়ে করতে চেষ্টা করি। তাই এ মুহূর্তে নির্বাচনের ব্যাপারগুলো দূরে রেখেছি। আমি এখনো পুরোপুরি খেলায় আছি। যখন যে কাজটা করি, সেটা মন দিয়ে করতে পারি— এটাই আমার শক্তি। আমি এখন খেলা নিয়ে ভাবছি।’

টেস্টে সফরকারী ক্যারিবীয়রা ভালো করতে না পারলেও ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ নিতে চাইবে বলে মনে করেন মাশরাফি। তাই ওয়ানডেতে ভালো ফলের জন্য সব সতীর্থর কাছেই সেরাটা চান মাশরাফি। সফরকারীদের নিয়ে তার মত, ‘ক্রিকেটে এখন ফরম্যাট যত ছোট হয়, ক্যারিবীয়রা ততই ভালো দল হয়ে ওঠে। আমার বিশ্বাস সিরিজে ভালো লড়াই হবে। তবে আমার দলের ক্রিকেটাররা গত কয়েক মাসে ভালো ক্রিকেট খেলছে। দলের সবাই আত্মবিশ্বাসী। আশা করছি সিরিজ জয় করতে খুব বেশি কষ্ট করতে হবে না।’