সিনেমায় মনোযোগ বাড়াতে বলা হয়েছিল আলী ফজলকে

ফিচার ডেস্ক

ছবি: দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

‘মির্জ়াপুর’ সিরিজের নতুন সিজন স্ট্রিম হচ্ছে অ্যামাজনে। এটি সিরিজের তৃতীয় সিজন। দ্বিতীয় সিজন থেকে ভিন্ন দিকে মোড় নিয়েছিল সিরিজের ধারা। এবার অনেকটাই এর মূল সুর পাওয়া যায়নি। সব মিলিয়ে সিরিজ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দর্শকের। কিন্তু মির্জাপুরের নতুন বাহুবলী গুড্ডু পণ্ডিত বা আলী ফজলের অভিনয়ে কম-বেশি সবাই সন্তুষ্ট। এবার তিনি কিছুটা নিষ্প্রভ হলেও এ সিরিজ দিয়ে ভিন্ন রকম পরিচিতি তার। তবে সম্প্রতি এ অভিনেতা জানালেন, সিরিজে অভিনয়ের সময় তাকে ওটিটিতে আসতে নিষেধ করা হয়েছিল।

আলী ফজল যখন প্রথম এ সিরিজ়ে অভিনয় শুরু করছিলেন, তখন বহু শুভাকাঙ্ক্ষী তাকে ওটিটিতে কাজ না করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তার চেয়ে সিনেমার দিকে ঝুঁকতে বলা হয়েছিল অভিনেতাকে। একটি সাক্ষাৎকারে এমনই জানিয়েছিলেন আলী ফজল। তিনি বলেন, ‘লোকে বলেছিল, ওটিটি পরে আসবে। এখন তো প্রেক্ষাগৃহে সিনেমার সময়। কিন্তু আমি আগেই আভাস পেয়েছিলাম যে আগামী দিনে ওটিটিই প্রথম স্থান দখল করবে।’

আলী আরো জানান, শুধু মনে উঁকি দিয়েছিল বলেই নয়, তিনি যথেষ্ট বুদ্ধিমত্তার সঙ্গেই ট্রেন্ডের প্রতি সচেতন ছিলেন। পশ্চিমে সে সময় জনপ্রিয় হতে শুরু করেছে ওটিটি। এ নিয়ে আলী ফজল বলেন, ‘এটা যেন সুনামির মতোই! যখন আবহাওয়ার খবরে দেখা যাচ্ছে সুনামি ওদিকে আছড়ে পড়েছে, তার মানে তা আমাদের এদিকেও আসবে।’

এ বিশ্বাস আসলে তার সঠিকই ছিল। তিনি সময়কে বুঝতে পেরেছিলেন। তবে ওটিটির ক্ষেত্রে হলিউডের তুলনায় ভারতীয় ইন্ডাস্ট্রি অনেকটাই পিছিয়ে বলেও মত অভিনেতার। যদিও এটাই স্বাভাবিক বলে মনে করছেন তিনি। দুই দেশের অর্থনৈতিক অবস্থানের ফারাককে নেপথ্য কারণ হিসেবে মনে করেন আলী। তবে তিনি আশাবাদী, সময়ের সঙ্গে এ ছবির বদল ঘটবে।

এ কথা তিনি বলতেই পারেন। কেননা হলিউডে বেশকিছু সিনেমায় অভিনয় করেছেন ফজল। কাজ করেছেন বিশ্বখ্যাত অভিনেতা, অভিনেত্রী ও নির্মাতাদের সঙ্গে। ফলে তিনি জানেন, কোন ইন্ডাস্ট্রি কেমন কাজ করে। সে নিরিখেই এতসব কথা বলেছেন আলী।

মির্জাপুর সিরিজের তৃতীয় সিজন অনেকটাই ছিল গুড্ডুর গল্প। সেখানে আগের মতোই অভিনয় করেছেন আলী। কিন্তু গল্পের কারণে গুড্ডুর চরিত্র কিছুটা নিষ্প্রভ ছিল। আশা করা যায়, পরের সিজনে তিনি জ্বলে উঠবেন।

সূত্র ও ছবি: দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন