রবিবার | আগস্ট ১৪, ২০২২ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯  

টকিজ

দর্শক প্রতিদিনই নতুন কিছু চায়

ফিচার ডেস্ক

কমল হাসান

দর্শকদের জন্যই কাজ করেন অভিনেতারা। প্রতিটি কাজে নতুন কিছু ভাবতে হয় তাদের। কমল হাসানের মতো সুপারস্টারের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হয় না। কমল হাসান তার ছয় দশকের ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক সফলতা পেয়েছেন বছর। লোকেশ কনগরাজের বিক্রম তাকে দিয়েছে নতুন মাপের সাফল্য। গত জুন মুক্তি পেয়ে সিনেমাটি এখনো তালিনাড়ুর থিয়েটারে দাপটের সঙ্গে চলছে। সিনেমাটির সাফল্য সম্পর্কে বলতে গিয়েই কমল হাসান বলেছেন, দর্শককে প্রতিনিয়ত নতুন কিছু দিতে হয়।

একটি সাক্ষাত্কারে বর্তমান সিনেমা বিক্রম প্রসঙ্গে কথা বলেছেন কমল হাসান। তিনি সময় দর্শকের রুচি নিয়ে কথা বলেন। কমলের ভাষায়, একদিন তারা কেবল ভাত খেল তো পরদিন মনে হবে ঝোল দিয়ে চাপাতি খাই। পরদিন শুধু একটা ডাব খাওয়ার ইচ্ছা হবে। ওইদিন তাদের প্রচুর চাপাতি আর সুস্বাদু ঝোল দিলেও তারা খাবে না। কারণে দর্শকদের চার্লি চ্যাপলিন বলেছিলেন একাধিক মাথাওয়ালা দানব। কারণ তিনি বুঝতে পারেননি ঠিক কী দিয়ে তাদের সন্তুষ্ট করা যাবে।

দানব বলে দর্শকদের অপমান করেছেন হাসান, এমন ভাবলে ভুল হবে। তিনি কেবল তাদের রুচির কথা বলতে গিয়ে উদাহরণ দিয়েছেন। সিনেমার প্রতি দর্শকের রুচি তৈরি করতে হয় এবং এক্ষেত্রে কমল হাসান ইতিবাচক প্রচারের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করেছেন। সিনেমা প্রচার তা দর্শকের কাছে পৌঁছনোর ক্ষেত্রে দায়টা সিনেমা-সংশ্লিষ্টদের। তিনি বলেন, আজ দর্শক আমার সিনেমা পছন্দ করেছে, কাল নাও করতে পারে। দায় আমার। তবে তিনি কথাও বলেছেন যে সিনেমা সম্পর্কে দর্শকের খবর রাখা উচিত। এমন নয় যে আগে কমল হাসানের কোনো সিনেমা এত বড় হিট হয়নি। কমল জানিয়েছেন তার সাকালাকালা ভাল্লাভা ১৯৮২ সালে বিক্রমের মতোই হিট করেছিল। ওই বছরই মুনডরাম পিরাই সিলভার জুবিলি করেছিল।

কমল হাসানের ক্যারিয়ারে দুই শতাধিক সিনেমা রয়েছে। অভিনয়ের পাশাপাশি পরিচালনাও করেছেন। তার পরিচালনায় হে রাম সমালোচকদের চোখেও অন্যতম সেরা ভারতীয় সিনেমা। বৈচিত্র্যময় সিনেমা উপহার দেয়া কমল হাসান দর্শকদের চাহিদা সম্পর্কে জানেন। এবার বিক্রম হয়ে ফিরে এসে তিনি প্রমাণ করেছেন নিজের প্রাসঙ্গিকতা। কনগরাজ ইউনিভার্সে বিক্রম চরিত্রে তিনি দ্রুতই ফিরবেন।

 

সূত্র: দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন