শনিবার | আগস্ট ১৩, ২০২২ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯  

শেষ পাতা

রামপাল ও রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র

কয়লা ও মেশিনারিজ নিয়ে মোংলা বন্দরে দুই জাহাজ

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, বাগেরহাট

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর দ্বিতীয়বারের মতো রাশিয়া থেকে মালপত্র নিয়ে লাইবেরিয়ান পতাকাবাহী জাহাজ এমভি ড্রাগনবল মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে। রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য হাজার ৬০১ টন মেশিনারিজ নিয়ে জাহাজটি গতকাল বিকালে বন্দরের হাড়বাড়িয়ার নম্বর বয়ায় নোঙর করে। এর আগে গত সোমবার বিকাল ৪টায় প্রথমবারের মতো পণ্য নিয়ে একটি রাশিয়ান জাহাজ মোংলা সমুদ্রবন্দরে আসে। সেই জাহাজটিতেও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের হাজার ৩২৮ দশমিক ২৩৭ টন মেশিনারিজ ছিল।

অন্যদিকে গতকাল বিকালে প্রথমবারের মতো রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ইন্দোনেশিয়া থেকে ৩৬ হাজার টন কয়লা নিয়ে মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে বাংলাদেশী পতাকাবাহী জাহাজ এমভি আকিজ হেরিটেজ বিদ্যুৎকেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের (বিএফপিসিআইএল) জন্য মোট তিন লাখ টন কয়লা কেনার চুক্তি হয় চলতি বছরের মার্চে বসুন্ধরা মাল্টি ট্রেডিং লিমিটেডের সঙ্গে। ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা হচ্ছে সেই কয়লা। এর মধ্যে দেশটির তানজুম ক্যাম্ফা বন্দর থেকে ৫৪ হাজার ৬৫০ টন কয়লা নিয়ে চালানের প্রথম জাহাজটি ২০ জুলাই ছেড়ে আসে। ৩১ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দরে নোঙর করে। সেখানে ১৮ হাজার ৬৫০ টন কয়লা খালাস করে তিনটি লাইটার জাহাজে পাঠানো হয় রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রে।

এমভি আকিজ হেরিটেজের স্থানীয় শিপিং এজেন্ট টগি শিপিংয়ের ব্যবস্থাপক খন্দকার রিয়াজুল হক জানান, মূলত জাহাজটিকে কিছুটা হালকা করার জন্য এক-তৃতীয়াংশ কয়লা চট্টগ্রাম বন্দরে খালাস করা হয়, যেন এটি কোনো বাধা ছাড়াই মোংলা বন্দরে ভিড়তে পারে। লাইটার জাহাজ তিনটি বৃহস্পতিবার বিকালে রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের নিজস্ব জেটিতে নোঙর করেছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎকেন্দ্রটির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) আনোয়ারুল আজীম। তিনি বলেন, শুক্রবার সকাল থেকে কয়লা খালাসের কাজ শুরু হয়। এখন থেকে ধারাবাহিকভাবে বিদ্যুৎকেন্দ্রে জ্বালানি কয়লা আসবে।

বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার সাপমারি এলাকায় অবস্থিত। ভারত বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে ১৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এটি নির্মাণ হচ্ছে। আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি ব্যবহার করা বিদ্যুৎকেন্দ্রটির এরই মধ্যে ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এখান থেকে দুই ইউনিটে ৬৬০ মেগাওয়াট করে ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের কথা রয়েছে। প্রসঙ্গে ডিজিএম আনোয়ারুল আজীম বলেন, জ্বালানি হাতে পাওয়ায় চলতি মাসেই আমাদের প্রথম ইউনিটের পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু হবে। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে কেন্দ্রটির প্রথম ইউনিট পুরোপুরি উৎপাদনে যাবে। দ্বিতীয় ইউনিটটিও উৎপাদনে যাবে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

মোংলা বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, প্রথমবারের মতো রামপাল পাওয়ার প্লান্টের জ্বালানি কয়লা আমদানি করা হয়েছে। এদিনে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বেশকিছু মেশিনারিজ নিয়ে মোংলা বন্দরে এসেছে লাইবেরিয়ান পতাকাবাহী জাহাজ এমভি ড্রাগনবল। এগুলো রাশিয়া থেকে আমদানি করা হয়েছে। এর আগে ২০২১ সালের ১৭ অক্টোবর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের হাজার ৭০০ টন মেশিনারিজ পণ্য নিয়ে রাশিয়ান জাহাজ এমভি পেসকোয়ালিস মোংলা বন্দরে ভিড়েছিল। যমুনা নদীর ওপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতুর জন্য স্টিলের পাইপের প্রথম চালান নিয়ে মোংলা সমুদ্রবন্দরে এসেছে পানামার পতাকাবাহী এমভি এসএন কুইন। জাহাজটিতে হাজার ৮১৮ টন ওজনের মোট ১৯৫টি প্যাকেজ পণ্য রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন