শনিবার | আগস্ট ১৩, ২০২২ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯  

দেশের খবর

ঝিনাইদহের সবজি চাষীরাও পাচ্ছেন পদ্মা সেতুর সুফল

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহ থেকে রাজধানীতে সবজি পাঠানোর প্রস্তুতি ব্যবসায়ীদের ছবি: নিজস্ব আলোকচিত্রী

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সীমান্তবর্তী কৃষিনির্ভর জেলা ঝিনাইদহ। জেলায় উৎপাদিত হয় ফুল, ফলসহ সব ধরনের সবজি, যা জেলার চাহিদা মিটিয়ে পাঠানো হয় ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। আগে এসব কৃষিপণ্য ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় পাঠানো ছিল অনেক সময় ব্যয়সাপেক্ষ। গত ২৫ জুন পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় জেলার কৃষক ব্যবসায়ীদের সুদিন ফিরেছে। খুব সহজেই ঢাকাসহ কয়েক জেলায় পৌঁছে যাচ্ছে এখানকার কৃষিপণ্য।

পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় যশোর, নড়াইল, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, খুলনাসহ ওই অঞ্চলের পরিবহন পদ্মা সেতু দিয়ে পারাপার হচ্ছে। ফলে যানজটমুক্ত হয়েছে দৌলতদিয়া ঘাট। এতে প্রায় সাড়ে ঘণ্টায় সব ধরনের পরিবহন পৌঁছতে পারছে ঢাকায়। কারণে যাত্রী পণ্য পরিবহনে ভোগান্তি নেই জেলার মানুষের।

কৃষক তুষার হোসেন জানান, পদ্মা সেতু চালুর আগে জেলার উৎপাদিত সবজি, ফুলসহ কৃষিপণ্য ঢাকায় পাঠাতে সময় লাগত -১০ ঘণ্টা। ফেরি পারাপারে দেরি হওয়ার কারণে অনেক সময় নষ্ট হতো। এতে ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি লোকসান গুনতে হতো কৃষকদেরও। পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে যাচ্ছে পণ্য। এতে লাভের পাশাপাশি ভালো দাম পাচ্ছেন তারা। শুধু কৃষক বা ব্যবসায়ীরাই সুবিধা পাচ্ছেন না, ভোক্তাও পাচ্ছেন টাটকা সবজি।

শৈলকুপা উপজেলার কুলচারা গ্রামের কলাচাষী আল আমিন মিয়া বলেন, আমি প্রতি বছর চার বিঘা জমিতে কলার আবাদ করি। কলা হাটে এনেও বিক্রি করি। আবার ব্যাপারিরাও খেত থেকে কিনে আনেন, নিয়ে যান। জমি থেকে বিক্রি করলে দাম কম পাই। হাটে এসে বিক্রি করলে তুলনামূলক দাম বেশি পাই। পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় আমরা কলার আরো দাম পাব বলে আশা করছি। কারণ পরিবহন ব্যবস্থা ভালো হলে আমরা নিজেরাই গিয়ে বিক্রি করতে পারব।

ভাটই বাজারের সবজি ব্যবসায়ী আজিজ উদ্দিন জানান, বাজার থেকে তারা সবজি ক্রয় করে ঢাকার কাওরান বাজার পাঠান। আগে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে যানজটের কারণে ১২-১৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হতো। ফলে প্রায়ই সবজিসহ কাঁচামাল নষ্ট হয়ে যেত। এতে লোকসান গুনতে হতো ব্যবসায়ীদের। বর্তমানে পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে যানজট হচ্ছে না। কৃষক যেমন ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন, তেমনি লাভবান হচ্ছেন ব্যবসায়ীরাও। আর রাজধানীবাসীও খেতে পারছে টাটকা সবজি।

ব্যাপারে জেলা মার্কেটিং অফিসার গোলাম মারুফ খাঁন বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় কৃষকের ভাগ্যোন্নয়নের নতুন দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। ঝিনাইদহ অঞ্চলের কৃষক ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় খুব সহজে সবজি পাঠাতে পারছেন। আমরা কৃষককে সবজি বিক্রির জন্য কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন