শুক্রবার | আগস্ট ১৯, ২০২২ | ৪ ভাদ্র ১৪২৯  

প্রথম পাতা

দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়েতে টোল আদায় শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক

আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের দুই বছরেরও বেশি সময় পর টোল আদায় শুরু হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়কে (ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে) শুক্রবার দিনের প্রথম প্রহর (রাত ১২টা মিনিট) থেকেই টোল আদায় কার্যক্রম শুরু করে সড়ক জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান কোরিয়া এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশন। প্রথম ঘণ্টা যানবাহনের চাপ কম থাকায় এক্সপ্রেসওয়েটিতে কোনো সমস্যা হয়নি। কিন্তু সকাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির চাপ বেড়ে এক্সপ্রেসওয়ের ঢাকার কেরানীগঞ্জ ফরিদপুরের ভাঙ্গার টোল প্লাজায় যানজট দেখা দেয়। টোল আদায় কার্যক্রমে ধীরগতির কারণে এক্সপ্রেসওয়ের দুই অংশে দিনভর যানজট দেখা গেছে।

পদ্মা সেতুকে ঢাকা ফরিদপুরের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাসড়ক। ঢাকা থেকে এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহার করে ভাঙ্গা পর্যন্ত যেতে তিনটি স্থানে টোল আদায় করা হচ্ছে। শুরুতে ঢাকার কেরানীগঞ্জে এক্সপ্রেসওয়ের টোল। মাঝে মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর টোল। আর শেষে ভাঙ্গায় এক্সপ্রেসওয়ের টোল। বিপরীতমুখী যানবাহনগুলো থেকেও একই স্থানে টোল আদায় করা হচ্ছে। এতদিন মহাসড়কটি ব্যবহার করার সময় পোস্তগোলা, ধলেশ্বরী আড়িয়ল খাঁ সেতুতে টোল দিতে হতো। সম্প্রতি মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় পোস্তগোলা সেতুর টোল আদায় বন্ধ করে দিয়েছে সওজ অধিদপ্তর। আর ধলেশ্বরী আড়িয়ল খাঁ সেতুর টোল সংযুক্ত করা হয়েছে এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায়।

প্রথম দিনে টোল আদায়কে কেন্দ্র করে কেরানীগঞ্জের ধলেশ্বরী এলাকায় অবস্থিত এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায় দেখা দেয় দীর্ঘ যানজট। গতকাল সকাল থেকে গাড়ি চলেছে ধীরগতিতে। ধীরগতিতে চলা গাড়ির সংখ্যা কয়েক কিলোমিটার এলাকা ছাড়িয়ে যায়। বিভিন্ন শ্রেণীর যানবাহনকে টোল দেয়ার জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

যানজট পরিস্থিতি বেশি খারাপ ছিল ভাঙ্গার বগাইল টোল প্লাজা এলাকায়। টোল আদায়ে ধীরগতির কারণে সৃষ্ট যানজটে দিনভর দুর্ভোগ পোহান যাত্রী চালকরা। বগাইল টোল প্লাজার ইনচার্জ ফারুক হোসেন জানান, টোল আদায়ের ১০টি কাউন্টার রয়েছে টোল প্লাজায়। তবে প্রথম দিন পদ্মা সেতু হয়ে ভাঙ্গা ফ্লাইওভারমুখী পয়েন্টে তিনটি কাউন্টার এবং বিপরীত দিকে পদ্মা সেতু অভিমুখী সড়কের একটি কাউন্টার দিয়ে টোল আদায় শুরু হয়। সকাল নাগাদ যাত্রীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন এবং টোল আদায়কারীদের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয়। পরে টোল বুথের সংখ্যা বাড়ানো হলে যানজট পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন