শুক্রবার | আগস্ট ১২, ২০২২ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯  

শেষ পাতা

শনাক্ত দুই হাজারের নিচে নামলেও মৃত্যু বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে এক মাসের বেশি সময় ধরে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত বাড়ছে। টানা চারদিন দৈনিক রোগী শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের ওপরে থাকলেও গতকাল তা কমেছে। তবে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। সর্বশেষ আরো পাঁচজন করোনা পজিটিভ রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল বিকালে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

সরকারের করোনাবিষয়ক তথ্যে জানা যায়, গতকাল পাঁচজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা গত ১৬ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। সর্বশেষ আরো হাজার ৮৯৭ জনের শরীরে ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। যদিও এর আগে টানা চারদিন দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই হাজারের ওপরে ছিল। গত সোমবার দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই হাজার ছাড়ায়। সেদিন হাজার ১০১ জন শনাক্তের কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। মঙ্গলবার হাজার ৮৭ জন, বুধবার হাজার ২৪১ জন বৃহস্পতিবার হাজার ১৮৩ জন রোগী শনাক্ত হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯ লাখ ৭৫ হাজার ৬৮২ জন। তাদের মধ্যে ২৯ হাজার ১৫৪ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। সর্বশেষ নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। সর্বশেষ আরো ২৪৮ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে ওঠায় মোট সুস্থ ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ হাজার ৭৫৭ জনে। পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ। আর প্রতি ১০০ জন করোনা রোগীর বিপরীতে মারা গেছেন দশমিক ৪৮ জন।

জানা যায়, গতকালের আগে চলতি বছরের মার্চ বেশি করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। সেদিন সাতজনের মৃত্যু হয়। গতকাল মারা যাওয়া পাঁচজনের সবাই ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। তাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ দুজন নারী। তাদের চারজন সরকারি একজন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় সব জায়গায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। মাস্ক না পরলে শাস্তি দেয়া হবে বলে সতর্ক করা হয়েছে। সরকারের করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা জনসমাগম বর্জন করার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়া ধর্মীয় প্রার্থনার স্থানে (যেমন মসজিদ, মন্দির, গির্জা ইত্যাদি) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী প্রথম শনাক্ত হয় ২০২০ সালের মার্চ। এরপর মাত্র ১০ দিনের ব্যবধানে প্রথম মৃত্যুর কথা জানায় সরকার। ২০২১ সালের ২৮ জুলাই দেশে একদিনে সর্বোচ্চ ১৬ হাজার ২৩০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। ২০২১ সালের ১০ আগস্ট দৈনিক সর্বোচ্চ ২৬৪ জন করে করোনা রোগী মারা যান।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন