শুক্রবার | আগস্ট ১৯, ২০২২ | ৪ ভাদ্র ১৪২৯  

খবর

সংসদে নসরুল হামিদ

আবাসিকে নতুন গ্যাস সংযোগ দেয়ার পরিকল্পনা নেই সরকারের

বণিক বার্তা অনলাইন

আবাসিক বাসাবাড়িতে নতুন গ্যাস সংযোগ দেয়ার আপাতত কোনো পরিকল্পনা নেই সরকারের।  আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদের অধিবেশনে সরকারি দলের সংসদ সদস্য হাবিব হাসানের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য নিশ্চিত করেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। 

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়। সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে নসরুল হামিদ জানান, দেশে বর্তমানে প্রাকৃতিক গ্যাসের চাহিদা দৈনিক প্রায় ৩ হাজার ৭০০ মিলিয়ন ঘনফুট। ২০২১–২২ অর্থবছরে দেশীয় গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে দৈনিক উৎপাদন ২ হাজার ৪৩২ মিলিয়ন ঘনফুট এবং এলএনজি আমদানির সক্ষমতা দৈনিক এক হাজার মিলিয়ন ঘনফুটের সমতুল্য। এরমধ্যে ২০২১–২০২২ অর্থ বছরে দৈনিক ৮২৫ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি আমদানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এই প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, ২০০৬-০৭ অর্থ বছরে দেশে খনিজ তেলের চাহিদা ছিলো প্রায় ৩৫ দশমিক ৭৩ লাখ মেট্রিক টন। বর্তমানে চাহিদা প্রায় ৬৩ মেট্রিন টন। এ চাহিদার বিপরীতে সরকারি প্রতিষ্ঠান ইস্টার্ন রিফাইনারি লি. এর বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতা প্রায় ১৪ লাখ মেট্রিক টন। এছাড়া অন্যান্য উৎস হতে ৪-৪ দশমিক ৫ লাখ মেট্রিক টন জ্বালানি পাওয়া যায়।

জাতীয় পার্টির মসিউর রহমান রাঙ্গার প্রশ্নের জবাবে বিদ্যুত প্রতিমন্ত্রী জানান, সরকারিভাবে একটি ও বেসরিকারিভাবে স্থাপিত ৬১টি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ৭৮টি এলপিজি বটলিং প্লান্ট রয়েছে। সরকারি দলের সংসদ সদস্য আলী আজমের প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন জানান, অতিরিক্ত বরাদ্দসহ বর্তমানে দেশে সারের চাহিদা ২৬ লাখ ৭৯ হাজার ১০০ টন। চলতি অর্থবছরে দেশের সার কারখানায় বার্ষিক সাড়ে নয় লাখ টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে গত ১৮ জুন পর্যন্ত ৯ লাখ ৮৫ হাজার ৮৮৯ টন সার উৎপাদন হয়েছে। বিদেশ থেকে ইউরিয়া সার আমদানি করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন