শনিবার | আগস্ট ১৩, ২০২২ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯  

প্রথম পাতা

বাংলাদেশের রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলার ছুঁয়েছে

বদরুল আলম

চলতি অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসেই (জুলাই-মে) দেশ থেকে পণ্য রফতানি হয়েছে ৪৭ বিলিয়ন ( হাজার ৭০০ কোটি) ডলারেরও বেশি মূল্যের। অর্থবছর শেষ হতে বাকি আর মাত্র দুদিন। চলতি মাসের প্রথম ২৫ দিনে শুধু পোশাক রফতানিই হয়েছে ৩২০ কোটি ডলারের। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরেই ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ৫০ বিলিয়ন ( হাজার কোটি) ডলারের মাইলফলক ছাড়িয়েছে বাংলাদেশের রফতানি।

বিভিন্ন পরিসংখ্যানের তথ্য অনুযায়ী, জ্বালানি তেল রফতানিকারকদের হিসাবে না নিলে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের শীর্ষ ৫০ রফতানিকারক দেশের একটি। এশিয়ায় অবস্থান দাঁড়ায় শীর্ষ ২০-এর মধ্যে। এদিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ায় এখন ভারতের পরই বাংলাদেশের অবস্থান।

চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে মে পর্যন্ত বিশ্ববাজারে বাংলাদেশ থেকে রফতানি হয়েছে হাজার ৭১৭ কোটি ৪৬ লাখ ৩০ হাজার ডলারের পণ্য, যার মধ্যে তৈরি পোশাক পণ্য রফতানির অর্থমূল্য ছিল হাজার ৮৫২ কোটি ১১ লাখ ৬০ হাজার ডলার। হিসেবে রফতানি হওয়া পণ্যের প্রায় ৮২ শতাংশই তৈরি পোশাক। খাতসংশ্লিষ্ট পণ্য প্রস্তুত রফতানিকারক সংগঠন বিজিএমইএর হিসাব অনুযায়ী, চলতি মাসের প্রথম ২৫ দিনে পোশাক রফতানি হয়েছে ৩২০ কোটি ডলারের। পরিসংখ্যান বিবেচনায় নিলে এরই মধ্যে চলতি অর্থবছরের মোট রফতানি হাজার কোটি ডলার অতিক্রম করেছে। সার্বিক পরিসংখ্যান বিবেচনায় নিলে অংক আরো বাড়বে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন খাতসংশ্লিষ্টরা।

রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অর্জনকে বাংলাদেশের জন্য বড় প্রাপ্তি হিসেবেই দেখছেন নীতিনির্ধারক, ব্যবসায়ী অর্থনীতিবিদরা। একই সঙ্গে অগ্রযাত্রা টেকসই করতে সরকার ব্যক্তি খাতকে আরো নিবিড়ভাবে কাজ করে যেতে হবে বলে মত দিয়েছেন তারা। খাতসংশ্লিষ্টদের ভাষ্য, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের বছরেই দেশের রফতানি প্রথমবারের মতো ৫০ বিলিয়ন ডলার ছাড়ানোর বিষয়টি একটি প্রতীকী ঘটনা, যা উদীয়মান রফতানি কেন্দ্র হিসেবে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান নিয়ে বিশেষ বার্তা বহন করছে।

রফতানি বাড়াতে সরকার সব ধরনের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপি বলেন, পণ্য রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে, অর্থবছর শেষে মোট রফতানি আরো বেশি হবে। আগামী দুই বছরে বাংলাদেশের রফতানি ৮০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা রয়েছে। অর্জনে সব রফতানিকারক শ্রমিক ধন্যবাদ প্রাপ্য। বাংলাদেশ এখন একটি শক্ত অর্থনীতির ওপর দাঁড়িয়ে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য ব্যবসায়ীদের ভূমিকা অনেক বেশি। বাংলাদেশ আজ পাকিস্তান থেকে সব সূচকে এগিয়ে আছে, এমনকি ভারতের সঙ্গে প্রায় সাতটি সূচকে এগিয়ে। আমাদের সামনে উজ্জ্বল সম্ভাবনা। সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।

এদিকে আগামী অর্থবছরের রফতানি লক্ষ্য নির্ধারণে গতকাল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রাথমিকভাবে লক্ষ্য নির্ধারণ হয়েছে, আগামী অর্থবছরে শুধু পোশাক খাতের রফতানি হবে ৫০ বিলিয়ন ডলারের। সভার আলোচনায় উঠে আসে, চলতি অর্থবছরে পণ্য সেবা মিলিয়ে মোট হাজার ১০০ কোটি ডলারের পণ্য রফতানির লক্ষ্য ধরা হয়েছিল, যা এরই মধ্যে হাজার ৮০০ কোটি ডলার হয়েছে। ন্যূনতম ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে আগামী অর্থবছর রফতানি হাজার ৫০০ কোটি ডলারে দাঁড়াতে পারে। সে হিসেবে আগামী অর্থবছরের জন্য এর কাছাকাছি পরিমাণে লক্ষ্য নির্ধারণ হবে। বাণিজ্যমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে শিগগিরই আগামী অর্থবছরের লক্ষ্য ঘোষণা দেয়া হবে।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) ভাইস চেয়ারম্যান এএইচএম আহসান বণিক বার্তাকে বলেন, জাতীয় উন্নয়নে রফতানি খাতের গুরুত্ব অপরিসীম। বিশেষ করে গত এক দশকে রফতানির প্রবৃদ্ধি অনেক আশাব্যঞ্জক। মাঝে কভিডের কারণে দুই বছরের সংকট না হলে এতদিনে রফতানি ৮০ বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি চলে যেত। সে হিসেবে বাংলাদেশের রফতানি খাত পর্যন্ত যথেষ্ট ভালো করেছে। এখন আমাদের মূল চ্যালেঞ্জ হলো বৈচিত্র্য আনার বিষয়টি। এখনো মূলত একটি পণ্যের ওপর রফতানি ৮০ শতাংশ নির্ভর করে। চিত্র রূপান্তরে যথেষ্ট পরিকল্পনা উদ্যোগ চলমান আছে। কিন্তু সেগুলো আরো বেগবান করা দরকার। চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করা যাবে। আমাদের হিসাব অনুযায়ী চলতি অর্থবছর শেষে রফতানি দাঁড়াতে পারে ৫৮ বিলিয়ন ( হাজার ৮০০ কোটি) ডলারে। এর মধ্যে পণ্য খাতে হবে ৫০ বিলিয়ন ( হাজার কোটি) আর সেবা খাতে বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রণীত নীতি ২০২১-২৪-এর আলোকে রফতানি ২০২৪ সালের মধ্যে হাজার কোটি ডলারে নিয়ে যাওয়া হবে। এক্ষেত্রে পণ্য বাজারে বৈচিত্র্য আনাসহ উৎপাদনশীলতা বাড়ানো দরকার। বাজার সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে এখন অগ্রাধিকারের জায়গাগুলো হলো লাতিন আমেরিকা, আফ্রিকা পূর্ব ইউরোপ। বাজারগুলো ধরতে হলে রফতানি খাতের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়াতে হবে। অর্থাৎ দাম গুণগত মান আরো উন্নত করতে হবে। এর জন্য উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি অন্যান্য কমপ্লায়েন্স ইস্যুর দিকেও নজর দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে। শ্রম, অগ্নিনিরাপত্তার মতো বিষয়গুলোয় পশ্চিমা ক্রেতারা এখন আরো বেশি নজর দেবে। দিকগুলোয় আরো নিবিড় নজরদারির প্রয়োজন আছে। এরই মধ্যে সার্বিক রফতানি বাড়লেও দুই বছর ধরে বিদেশমুখী প্রধান পণ্যগুলোর নিট রফতানি (পণ্যের মোট রফতানিকাঁচামাল অন্যান্য আমদানি ব্যয়) কমতে দেখা যাচ্ছে। সে হিসেবে বিষয়টিতে আরো নজর দেয়া প্রয়োজন।

দেশের রফতানিতে ৮০ শতাংশের বেশি অবদান রাখা তৈরি পোশাক খাতের সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, পোশাক খাতের মাধ্যমেই রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়া অনেক বড় অর্জন। পণ্যে বৈচিত্র্য আনার পাশাপাশি রফতানি বাজার সম্প্রসারণ এবং শিল্পকে একটি টেকসই অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য আমরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে জাতি হিসেবে আমাদের অর্জন এবং গত ৪০ বছরে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের অবদান এখন আন্তর্জাতিক মহলেও আলোচিত।

২০৪১ সাল নাগাদ একটি উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার রূপকল্প বাস্তবায়নের জন্য আরো শিল্পায়ন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। সেই সঙ্গে মোট কর্মক্ষম জনসংখ্যার ২০ শতাংশ ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে সম্পৃক্ত হতে হবে। এটি অসম্ভব নয়, যদি আমরা অর্থনীতির চালিকাশক্তি পোশাক শিল্পের অগ্রযাত্রার পথ সুগম করতে পারি। অর্থনীতির স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান বৈদেশিক মুদ্রা আহরণের অন্যতম প্রধান খাত পোশাক বস্ত্র শিল্প। সামষ্টিক দৃষ্টিকোণ থেকে শিল্পের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া বাঞ্ছনীয়।

অর্থমূল্য বিবেচনায় বাংলাদেশ থেকে রফতানি হওয়া শীর্ষ তিন পণ্যপোশাক, পাট পাটজাত এবং চামড়া চামড়াজাত পণ্য। ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশের মোট রফতানির ৮৬ দশমিক শতাংশজুড়েই ছিল পণ্য তিনটি। আধিপত্য বজায় রয়েছে চলতি অর্থবছরেও। তবে মোট রফতানিতে বড় অবদান রাখা পণ্যের তালিকায় যুক্ত হয়েছে হোম টেক্সটাইল। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাস শেষে পোশাক রফতানি বেড়েছে ৩৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ, হোম টেক্সটাইল ৪১ দশমিক এবং চামড়া চামড়াজাত পণ্য রফতানিও বেড়েছে ৩১ দশমিক ৮৪ শতাংশ। পাট পাটজাত পণ্য রফতানি কমেছে দশমিক ১৯ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে পোশাক রফতানির অর্থমূল্য ছিল হাজার ৮৫২ কোটি ১১ লাখ ৬০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল হাজার ৮৫৬ কোটি ১৮ লাখ ৫০ হাজার ডলারের। হিসাবে রফতানি বেড়েছে ৩৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ। মোট রফতানির ৮১ দশমিক ৬৫ শতাংশই ছিল তৈরি পোশাক। হোম টেক্সটাইল পণ্য রফতানি চলতি অর্থবছরের ১১ মাসে হয়েছে ১৪৬ কোটি ৭১ লাখ ৯০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল ১০৩ কোটি ৮৩ লাখ ৬০ হাজার ডলারের। হিসাবে হোম টেক্সটাইল পণ্য রফতানি বেড়েছে ৪১ দশমিক শতাংশ।

ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স বাংলাদেশের (আইসিসিবি) ভাইস প্রেসিডেন্ট এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি কে আজাদ মনে করেন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের গতিপ্রকৃতি ঠিক থাকলে খুব কম সময়ের মধ্যেই বাংলাদেশ ১০০ বিলিয়ন ডলারের রফতানির মাইলফলকও ছুঁতে পারবে। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের পর দ্রুততম সময়ের মধ্যে আমরা রফতানিতে ৫০ বিলিয়ন ডলার ছুঁয়েছি। সংকটের মধ্যেও আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, এটা আশার কথা। তবে এখন আমাদের অনেক সতর্কও থাকতে হবে। উন্নত বিশ্বে এখন মূল্যস্ফীতি চলছে। অর্থনীতির গতি শ্লথ হয়ে গিয়েছে, যা আমাদের জন্য সংকটের বার্তা দিচ্ছে। তুলাসহ অন্যান্য কাঁচামালের দাম বেড়ে গেছে। অবস্থায় সরকারকে বিদ্যুতের দাম না বাড়ানোর জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। এরই মধ্যে কারখানায় উৎপাদন খরচ অনেক বেড়ে গেছে। জ্বালানি সুরক্ষা নিশ্চিতেও বিনীত অনুরোধ করছি।

চামড়া চামড়াজাত পণ্য রফতানি চলতি অর্থবছরের ১১ মাসে হয়েছে ১১১ কোটি ৫৫ লাখ ৮০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল ৮৪ কোটি ৬০ লাখ ৮০ হাজার ডলারের পণ্য। হিসাবে চামড়া চামড়াজাত পণ্য রফতানি বেড়েছে ৩১ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এদিকে পোশাক, হোম টেক্সটাইল, চামড়া চামড়াজাত পণ্য রফতানি বাড়লেও কমেছে বাংলাদেশের সোনালি আঁশখ্যাত পাট পাটজাত পণ্যের। পণ্যের রফতানি চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে মে পর্যন্ত ছিল ১০৫ কোটি ৫০ লাখ ৫০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল ১০৮ কোটি ৯৮ লাখ ১০ হাজার ডলারের। হিসাবে পণ্যটি রফতানিতে ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধি হয়েছে বা কমেছে দশমিক ১৯ শতাংশ।

স্বাধীনতার ৫০ বছরের মাথায় এসে ৫০ বিলিয়ন রফতানিকে অনেক বড় অর্জন হিসেবে দেখছেন সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, আমাদের এখনকার রফতানিতে শতকরা ৯০ ভাগই হলো শিল্পজাত পণ্য। উন্নয়নশীল দেশের নিরিখে এটি কাঠামোগত বড় পরিবর্তন। আমাদের এখন অন্তত পাঁচটা পণ্যের রফতানি বিলিয়ন ডলারের বেশি। এগুলো আমাদের অর্জন। এটা ঠিক আমরা একটা পণ্যের ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু এটাকে আমি বলব, এমন একটা পণ্যে আমাদের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা প্রমাণ করতে পেরেছি, যার আন্তর্জাতিক বাজার প্রায় ৬০০ বিলিয়ন ডলারের। বাজারে তৈরি পোশাকের আরো অনেক সম্ভাবনা রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন