শনিবার | আগস্ট ১৩, ২০২২ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯  

খবর

গণতান্ত্রিক বাজেট আন্দোলনের জরিপ

স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে বাজেট চায় ৭৯% মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক

কেন্দ্রীয় সরকারের পরিবর্তে স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে বাজেট তৈরি হলে তা জনগণের স্বার্থে বেশি কাজে আসবে বলে মনে করছেন ৭৮ দশমিক শতাংশ মানুষ। আর ৭২ দশমিক শতাংশ মনে করেন, রাজধানীতে বসে বা কেন্দ্রীয়ভাবে তৈরি বর্তমান বাজেট প্রক্রিয়ায় স্থানীয় সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়।

প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট ২০২২-২৩ নিয়ে গণতান্ত্রিক বাজেট আন্দোলনের (ডিবিএম) এক মতামত জরিপে এসব তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাজেটোত্তর মতবিনিময় সভায় জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

জরিপে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, উন্নয়নকর্মী, সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মোট ১১৪ জন অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে পুরুষ ৮৩ জন নারী ৩১ জন। এছাড়া বিভিন্ন জেলা থেকে মোট অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে শহরে বসবাস করেন ৯৬ জন গ্রামে ১৮ জন। প্রতিবন্ধী ব্যক্তি রয়েছেন ছয়জন আদিবাসী সাতজন।

জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৮৬ শতাংশ মনে করেন, বাজেটে তাদের মতামত দেয়ার প্রয়োজন আছে। আর ৬৫ দশমিক শতাংশ মানুষ বাজেটে প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রতিফলন পান না বলে মতামত দিয়েছেন।

জরিপের তথ্য অনুযায়ী, বাজেটে যেসব প্রস্তাব করা হয়েছে তাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম কমবে না বলে মনে করেন ৮৫ দশমিক শতাংশ। সারে ভর্তুকি বাড়লেও কৃষকের জন্য সরাসরি ভর্তুকি না থাকায় ক্ষুদ্র কৃষকরা উপকৃত হবেন না বলে মনে করেন ৭৬ দশমিক শতাংশ। এছাড়া কভিড বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র মানুষের জীবন জীবিকার ঝুঁকি মোকাবেলায় বাজেটে সামাজিক সুরক্ষায় বরাদ্দ যথেষ্ট নয় বলে মনে করেন ৭৭ দশমিক শতাংশ। এদিকে প্রস্তাবিত বাজেট শিক্ষার সুযোগ মান বৃদ্ধি করতে অবদান রাখবে না বলে মনে করেন ৩৮ দশমিক শতাংশ।

মূল্যস্ফীতির চাপ কমাতে নিম্নবিত্ত মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য আয়করের চাপ কমানো উচিত বলে মনে করেন ৭৫ দশমিক শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেট কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করতে অবদান রাখবে না বলে মনে করেন ৪৯ দশমিক শতাংশ। বছর বাজেটে ব্যবসায়ী বড় কোম্পানিগুলোকে সরকার আয়করে যে ছাড় দিয়েছে তা সমর্থন করেন না বলে জানান ৭৫ দশমিক শতাংশ মানুষ।

সভায় গণতান্ত্রিক বাজেট আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার মোস্তফা সহসভাপতি আমানুর রহমান, সেফটি অ্যান্ড রাইটসের নির্বাহী পরিচালক সেকান্দার আলী মিনা, জিটিভির বার্তা সম্পাদক রাজু আহমেদ এবং এসএ টিভির বিজনেস এডিটর সালাউদ্দিন বাবলু উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন