শনিবার | আগস্ট ১৩, ২০২২ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯  

খবর

আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অনুপ্রেরণা যোগাবে জেসিআইয়ের অ্যাওয়ার্ড: স্পিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক

নারীদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে জেসিআই বাংলাদেশের উইমেন অব ইন্সপাইরেশন অ্যাওয়ার্ড অনুপ্রেরণা যোগাবে বলে মনে করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। আজ শুক্রবার রাজধানীর রেডিসন ব্লু’তে 'উইমেন অব ইন্সপাইরেশন অ্যাওয়ার্ড ২০২২' অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিরীন শারমিন বলেন, জেসিআই বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে, যা যে কোনো দেশ বা সমাজের উন্নয়নে অপরিহার্য। নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নতি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ও দেশের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনের পূর্বশর্ত। নারীরা অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের নিয়ামক। সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তনে প্রতিটি স্তরে নারীদের অংশ নেয়া প্রয়োজন। এক্ষেত্রে জেসিআই বাংলাদেশের অ্যাওয়ার্ড নারীদের অনুপ্রেরণা যোগাবে।

এসময় স্পিকার পুরস্কারপ্রাপ্তদের মাঝে অ্যাওয়ার্ড বিতরণ করেন। অ্যাওয়ার্ডকারীরা হলেন শমী কায়সার, মারিয়াম জাভেদ, খোদেজা ফরহাদ রুহি, সামিরা হিমিকা, নিগার সুলতানা, সুলতানা কাদের সিনহা প্রমুখ।

স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে নারীর আর্থ-সামাজিক উন্নতি ও ক্ষমতায়ন দৃশ্যমান। অনগ্রসর নারীদের মূল স্রোতে সম্পৃক্ত করতে বর্তমান সরকার নারীবান্ধব নীতি ও আইন তৈরি করেছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অন্যান্য আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডে নারীদের সম্পৃক্ততা উল্লেখযোগ্য। প্রত্যন্ত অঞ্চলে নারীদের আইটি ও অন্যান্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে সরকার। নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে সরকার। নারীরা অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়ে পরিবার ও সমাজে ভূমিকা রাখছে। শেখ হাসিনার নেয়া উদ্যোগের কারণেই আজ নারীর এ অগ্রগতি। 

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বৈষম্যহীন ও অন্তর্ভুক্তিমূলক বিশ্ব গড়ে তুলতে নারীদের বৃত্তের বাইরে বেরিয়ে এসে সকল প্রকার কার্যক্রমে মেধাকে কাজে লাগিয়ে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। জাতিসংঘের প্লানেট ৫০-৫০ অর্জন এখনো সম্ভব হয়নি। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সমতাভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। এ প্রচেষ্টাকে স্বার্থক করতে নারী-পুরুষ হাতে হাত রেখে কাজ করতে হবে।

জেসিআই বাংলাদেশে এ বছরের সভাপতি নিয়াজ মোর্শেদ এলিটের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মুস্তাফা ওসমান তুরান ও এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব উইমেনের উপাচার্য ড. রুবানা হক। অনুষ্ঠানে এ বছরের অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের চিফ কো-অর্ডিনেটর তাসমিনা আহমেদ, ইভেন্ট ডিরেক্টর ইসরাত জাহান লিসা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন