শুক্রবার | আগস্ট ১২, ২০২২ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯  

পণ্যবাজার

ভারতের ইস্পাত রফতানিতে ধসের আশঙ্কা

বণিক বার্তা ডেস্ক

চলতি বছর ভারতের ইস্পাত রফতানি ৩৫-৪০ শতাংশ কমার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। রফতানির পরিমাণ দাঁড়াতে পারে কোটি থেকে কোটি ২০ লাখ টনে। সম্প্রতি ক্রিসিল রিসার্চের প্রতিবেদনে তথ্য উঠে এসেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত মাসে বেশ কয়েকটি পরিশোধিত ইস্পাত পণ্যের ওপর ১৫ শতাংশ রফতানি শুল্ক আরোপ করে নয়াদিল্লি। মূলত কারণেই রফতানিতে নিম্নমুখী প্রবণতা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তথ্য বলছে, গত অর্থবছর ভারত রেকর্ড সর্বোচ্চ ইস্পাত রফতানি করেছিল। ওই সময় ধাতুটি রফতানির পরিমাণ ছিল কোটি ৮৩ লাখ টন। তবে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে ইস্পাত রফতানি খাতে। অন্যদিকে রফতানি কমে গেলে স্থানীয় বাজারে ধাতুটির সরবরাহ আরো বাড়বে। ফলে দাম লক্ষণীয় মাত্রায় কমতে পারে।

এদিকে ভারতের অর্থনীতিতে গতি ফিরতে শুরু করায় অবকাঠামো নির্মাণ, প্রকৌশল অন্যান্য খাতে ইস্পাতের চাহিদা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। ফলে চলতি বছর দেশটিতে ইস্পাতের ব্যবহার গত বছরের তুলনায় বাড়বে। ব্রোকারেজ ক্রেডিট রেটিং এজেন্সিগুলো তথ্য জানিয়েছে।

কেয়ার রেটিংস সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২০২২ সালে ভারতে ইস্পাতের ব্যবহার বেড়ে ১১ কোটি ১০ লাখ টনে পৌঁছতে পারে। ২০২০ সালে করোনা মহামারীর প্রাদুর্ভাবের প্রভাবে দেশটিতে ইস্পাতের ব্যবহার কমে কোটি ৯৩ লাখ টনে নেমে গিয়েছিল।

প্রাক্কলিত হিসাব অনুযায়ী, ২০২১ সালে দেশটিতে ১০ কোটি ৪০ লাখ টন ইস্পাত ব্যবহার হয়েছে। এর মানে দাঁড়ায়, গত বছর দেশটিতে ইস্পাতের ব্যবহার বেড়েছে ১৭ শতাংশ।

সম্প্রতি ভারতের ইস্পাতমন্ত্রী রামচন্দ্র প্রসাদ সিংহ জানান, ২০২৪-২৫ অর্থবছরে দেশীয় ইস্পাতের চাহিদা ১৬ কোটি টনে দাঁড়াতে পারে। ইস্পাতের চাহিদা, উৎপাদন ব্যবহার বাড়াতে ভারত সরকার নিরন্তর চেষ্টা করে যাচ্ছে।

ইস্পাত মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২০২৪-২৫ অর্থবছরে শিল্প উপকরণটির ব্যবহার প্রায় দ্বিগুণ হতে পারে। ২০৩০-৩১ অর্থবছর নাগাদ ইস্পাত ব্যবহার পৌঁছতে পারে ২৫ কোটি টনে।

গত বছর ভারত সরকার গতিশক্তি মাস্টারপ্ল্যান ঘোষণা করেছে। মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী, আগামী পাঁচ বছর অবকাঠামোগত উন্নয়নে ১০০ লাখ কোটি রুপির বিনিয়োগ পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। অবকাঠামো উন্নয়নের পরিকল্পনার ফলে ইস্পাতের ব্যবহার আরো বাড়বে বলে জানিয়েছেন ইস্পাতমন্ত্রী রামচন্দ্র প্রসাদ সিংহ। তিনি আরো বলেন, দেশের শিল্পোন্নয়নের ক্ষেত্রে ইস্পাত বরাবরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। অবকাঠামো, নির্মাণ, ইঞ্জিনিয়ারিং প্যাকেজিং, অটোমোবাইল এবং প্রতিরক্ষার মতো প্রধান খাতগুলোয় ইস্পাতের কার্যকর ব্যবহার রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন