শনিবার | জুলাই ০২, ২০২২ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯  

প্রথম পাতা

শুল্কহার কমানোয় ভারতে জ্বালানি তেলের মূল্যহ্রাস

বণিক বার্তা ডেস্ক

জ্বালানি তেলের ওপর থেকে শুল্ক কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। শনিবার পেট্রল-ডিজেলের ওপর থেকে শুল্কহার কমানোর সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন দেশটির অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। পাশাপাশি গ্যাসেও ভর্তুকি দেয়ার কথা ঘোষণা করা হয়।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, পেট্রলে রুপি ডিজেলে রুপি শুল্ক কমানো হয়েছে। ফলে পেট্রলে লিটারপ্রতি দাম কমবে সাড়ে রুপি। আর ডিজেলে দাম কমবে লিটারপ্রতি রুপি করে। অর্থাৎ রোববার থেকে দিল্লিতে প্রতি লিটার পেট্রলের দাম ১০৫ দশমিক ৪১ রুপির পরিবর্তে হয়েছে ৯৬ দশমিক ৭২ রুপি। ডিজেলের দাম ৯৬ দশমিক ৬৭ রুপির পরিবর্তে ৮৯ দশমিক ৬৭ রুপিতে দাঁড়িয়েছে।

যদিও শুল্কহার কমানো সত্ত্বেও মুম্বাইতে পেট্রল বর্তমানে লিটারপ্রতি ১১১.৩৫ রুপি এবং ডিজেল প্রতি লিটার ৯৭.২৮ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। দেশের চারটি মেট্রো শহরের তুলনায় মুম্বাইয়েই এখন দাম সবচেয়ে বেশি রয়েছে। দেশটির ভিন্ন রাজ্যে ট্যাক্সের ভিন্নতার কারণে জ্বালানির দামে ভিন্নতা দেখা যায়।

এদিকে গ্যাস রাসায়নিক সারেও প্রচুর ভর্তুকি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। তিনি বলেন, সরকার দরিদ্র মধ্যবিত্তদের সহায়তা দেয়ার জন্য অনেক পদক্ষেপ নিয়েছে। মূল্যস্ফীতির সময়েও দরিদ্র সাধারণ মানুষের জন্য ত্রাণসহায়তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র সরকার। উজ্জ্বলা যোজনার আওতায় থাকা কোটি ভোক্তা রান্নার গ্যাসে এবার থেকে সিলিন্ডারপ্রতি ভর্তুকি পাবে ২০০ রুপি করে। এর পাশাপাশি রাসায়নিক সারেও বিপুল ভর্তুকি ঘোষণা করা হয়েছে। ছাড় দেয়া হয়েছে একাধিক পণ্যের আমদানি শুল্কেও।

সরকারের সিদ্ধান্তের ফলে মানুষের জীবনযাত্রা সহজ হবে এবং মাসিক বাজেটের ওপর চাপ কমবে বলে টুইটারে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উজ্জ্বলা যোজনার আওতায় রান্নার গ্যাসের ভর্তুকি বিষয়ে তিনি বলেন, উজ্জ্বলা যোজনা কোটি কোটি ভারতবাসীকে সাহায্য করছে। বিশেষ করে নারীদের। আজকের সিদ্ধান্ত নাগরিকদের মাসিক খরচ অনেকটা কমাবে। জনগণই সবার আগে।

যদিও দেশটির পেট্রোলিয়াম মন্ত্রণালয়ের পেট্রোলিয়াম প্ল্যানিং অ্যান্ড অ্যানালাইসিস সেলের (পিপিএসি) ২০ মে প্রকাশিত সর্বশেষ রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগের দিন অর্থাৎ ১৯ মে অপরিশোধিত তেলের (ইন্ডিয়ান বাস্কেট) দাম বাড়তির দিকেই ছিল, ব্যারেলপ্রতি ১০৫ দশমিক ১৫ ডলার, সেই সময় ডলারের মান ছিল ৭৭.৭০ রুপি। 

ভারতের রাষ্ট্রচালিত রিফাইনারি যেমন ইন্ডিয়ান অয়েল, ভারত পেট্রোলিয়াম এবং হিন্দুস্তান পেট্রোলিয়াম প্রতিনিয়ত জ্বালানির দাম পরিমার্জন করে। বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম এবং রুপি-ডলারের বিনিময় হারের ভিত্তিতে তারা কাজটা করে। পেট্রল বা ডিজেলের দামে কোনো পরিবর্তন হলে সেটা প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে কার্যকর হয়। দেশের জ্বালানি তেলের চাহিদা পূরণে ৮৫ শতাংশ আমদানির ওপর নির্ভরশীল ভারত। তাই দেশটিতে পেট্রল ডিজেলের দাম আন্তর্জাতিক দামের সঙ্গে গভীরভাবে সম্পর্কযুক্ত।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন