শনিবার | জুলাই ০২, ২০২২ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯  

খেলা

৪২ বছর পর ফ্রাঙ্কফুর্টের ইউরোপিয়ান মুকুট

জার্মান ফুটবল ক্লাব আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টের বয়স ১২৩ বছর। বুন্দেসলিগার ইতিহাসে ক্লাবটি কখনো শিরোপা জেতা তো পরের বিষয়, রানার্সআপও হতে পারেনি। একবিংশ শতাব্দীতে সেরা চারে থেকে কখনো লিগও শেষ করতে পারেনি ক্লাবটি। এমন অখ্যাত দলটি এবার চমকে দিয়েছে ইউরোপের বড় দলগুলোকে। ৪২ বছর পর ইউরোপিয়ান কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতে হইচই ফেলে দিয়েছে জার্মান ক্লাবটি। গত ১৯ মে স্পেনের সেভিয়ায় অনুষ্ঠিত ফাইনালে স্কটল্যান্ডের রেঞ্জার্সকে হারিয়ে উয়েফা ইউরোপা লিগ ২০২১-২২ মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন দি ঈগল

গত মৌসুমে ক্লাবের দায়িত্ব নেন অস্ট্রিয়ান কোচ অলিভার গ্ল্যাসনার। তার হাত ধরেই ফ্রাঙ্কফুর্টের উত্থান। টুর্নামেন্টে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে গ্ল্যাসনারের শিষ্যরা। এবারের ইউরোপা লিগে ১৩ ম্যাচের একটিও হারেনি তারা! সাফল্যের পথে তারা হারিয়েছে সেমিফাইনালে ইংলিশ ক্লাব ওয়েস্ট হ্যামকে, কোয়ার্টারে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনাকে শেষ ষোলোয় রিয়াল বেতিসকে।

বুধবার ফাইনালে নির্ধারিত অতিরিক্ত সময় শেষ হয় - গোলে। টাইব্রেকারে - গোলের জয় তুলে নেয় ফ্রাঙ্কফুর্ট। টাইব্রেকারে ফ্রাঙ্কফুর্ট ৫টি শট থেকেই গোল আদায় করে। অন্যদিকে তাদের গোলরক্ষক কেভিন ট্রাপ রুখে দেন রেঞ্জার্সের অ্যারন রামসির শট।

ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের পরবর্তী আসরে খেলার টিকিট পেয়ে গেল ফ্রাঙ্কফুর্ট। অথচ টেবিলের ১১তম স্থানে থেকে এবার বুন্দেসলিগা শেষ করেছে দলটি। কোয়ার্টার ফাইনালে যখন বার্সেলোনার মুখোমুখি হয় তারা, তখন লিগে অবস্থান ১২তম। তাই হয়তো তাদের সেভাবে মূল্যায়ন করেনি কাতালানরা। কিন্তু এই দলটিই ইউরোপের অন্যতম সেরা দলটিকে হারিয়ে জায়গা করে নেয় শেষ চারে। এখন তারা চ্যাম্পিয়নও।

প্রতিযোগিতাটির ১৯৭৯-৮০ মৌসুমে বুন্দেসলিগার আরেক ক্লাব মনশেনগ্লাডবাখকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল ফ্রাঙ্কফুর্ট। যা ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় নিজেদের প্রথম শেষ শিরোপা ছিল। তখন টুর্নামেন্টের নাম ছিল উয়েফা কাপ। দুবার ফাইনাল খেলে দুবারই তারা শিরোপা ঘরে তুলেছে।

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে একবারই খেলেছিল ফ্রাঙ্কফুর্ট। ১৯৫৯-৬০ মৌসুমের সেই আসরে ফাইনালও খেলে দ্য ঈগল। কিন্তু ইউরোপের সেরা মঞ্চে দলটি রিয়াল মাদ্রিদের কাছে - গোলে বিধ্বস্ত হয়েছিল। এরপর আর কখনো চ্যাম্পিয়নস লিগেও খেলা হয়নি দলটির।  চ্যাম্পিয়নস লিগে একবার খেলে ফেলা কোনো দলকে আরেকবার খেলতে এতটা দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় থাকতে হয়নি। উয়েফা

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন