শনিবার | জুলাই ০২, ২০২২ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯  

প্রথম পাতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শিগগিরই —সিইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে শিগগিরই সংলাপের ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। গতকাল ঢাকার সাভার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সিইসি এমন ইঙ্গিত দেন। সব দলের অংশগ্রহণে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার প্রত্যাশা জানিয়েছেন তিনি।

সংলাপের প্রসঙ্গ টেনে সিইসি বলেন, বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দলকে অচিরেই সংলাপে বা আলোচনায় বসার জন্য আহ্বান জানানো হবে। তবে কবে আহ্বান জানানো হবে তা ঠিক করে বলতে পারছি না। হয়তো দু-এক মাসের মধ্যেই আমরা আলোচনায় বসতে পারি। আমরা নতুন একটি কমিশন। আমাদের আন্তরিক প্রত্যাশা যে একটি অংশগ্রহণমূলক প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক। গণতন্ত্র বিকশিত হোক। ভোটের মাধ্যমে একটা দায়িত্বশীল পার্লামেন্ট গঠিত হোক। পার্লামেন্টে তর্কবির্তকের মাধ্যমে জনগণের অধিকার সংরক্ষিত হোক।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) সক্ষমতা বৃদ্ধিতে নিজেদের উদ্যোগ তুলে ধরেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। তিনি বলেন, ইভিএমের সক্ষমতা কতটুকু দরকার, আরো কী কী করা যায়, আমরা আরো কিছু সভা করব। এরপর আমরা ইভিএমের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করব। আমি একা কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারব না।

দায়িত্ববোধকে উজ্জীবিত করার তাগিদ দিয়ে সিইসি বলেন, রাজনীতিবিদরা প্রায় বলে থাকেন যে আমরা যদি ক্ষমতায় যেতে পারি! আমি অনেক রাজনীতিবিদকে বলেছেলািম, এই কথা এভাবে না বলে আপনি তো বলতে পারেন, আমরা যদি সরকারের দায়িত্বে যেতে পারি। ক্ষমতা কথাটার মধ্যে একটা অহংবোধ আছে। ক্ষমতা নয়, এটা দায়িত্ব। ক্ষমতা বলে কোনো কিছু নেই। আমরা যদি ক্ষমতাকে দায়িত্বের অর্থে বুঝতে পালন করতে পারি তাহলে আমাদের দায়িত্ববোধ সাংস্কৃতিক মনস্তত্ত্ব আরো উজ্জীবিত হবে।

ভোটার তালিকা প্রণয়নের জন্য তিন ধরনের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানান নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার। তিনি বলেন, ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু হয়েছে, যা বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সাংবিধানিক ম্যান্ডেট। ভোটার তালিকা প্রণয়নের জন্য আমরা তিন ধরনের তথ্য গ্রহণ করছি। ভোটার তালিকা দিয়েই কিন্তু আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তাই ভোটার তালিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ভোটার তালিকা প্রণয়নে তথ্য সংগ্রহের দায়িত্বরতদের উদ্দেশে মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, আপনারা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে ভোটার তালিকা প্রণয়নের কাজ করবেন। সংবিধানে বলা আছে, ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে বাড়ি বাড়ি যেতে হবে। আমরা মনে করি, কাজটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে এবং আমরা জাতিকে একটি সুন্দর পরিচ্ছন্ন ভোটার তালিকা উপহার দিতে পারব।

নির্বাচন কমিশনের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন অফিসার মুনির হোসাইন খান, ঢাকা জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম, জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার প্রমুখ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন