শনিবার | জুলাই ০২, ২০২২ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৯  

শেষ পাতা

দৌলতদিয়া ফেরিঘাট

পন্টুন পানির নিচে, যানবাহনের দীর্ঘ সারি

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, রাজবাড়ী

পদ্মায় হঠাৎ করে পানি বেড়ে ডুবে যায় দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের পন্টুন ছবি: নিজস্ব আলোকচিত্রী

হঠাৎ করেই অস্বাভাবিক পানি বেড়েছে পদ্মায়। যার প্রভাব পড়েছে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে। পানি বৃদ্ধির ফলে তলিয়ে গেছে দৌলতদিয়ার নম্বর ফেরিঘাটের পন্টুন। এতে ঘাট এলাকায় দেখা দিয়েছে দীর্ঘ যানজট।

যদিও গতকাল সন্ধ্যার পর পানি নেমে গেলে একটি ঘাট চালু হয়। সরেজমিনে গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার সময় দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের নম্বর ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে দুই পাশ দিয়ে পানি প্রবেশ করে পন্টুুনের অন্তত ১০ হাত এলাকা তলিয়ে গেছে। যে কারণে ঘাটটি বন্ধ।

আবার নম্বর ফেরিঘাটে গিয়ে দেখা যায়, পানির নিচে রয়েছে পন্টুন। দৌলতদিয়ার সবচেয়ে বড় সচল ঘাটের তিনটি পকেট গেটই বন্ধ।

এদিকে পানি বৃদ্ধির ফলে দৌলতদিয়ার নম্বর ফেরিঘাটের পন্টুন তলিয়ে যাওয়ায় ফেরি পারাপার মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এতে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া জিরো পয়েন্ট থেকে গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস পর্যন্ত কিলোমিটার এলাকায় পারের অপেক্ষায় আটকা পড়েছে অন্তত ৬০০ ছোট-বড় যানবাহন। ভোগান্তির শিকার হয়েছেন যানবাহনের চালক, যাত্রীসহ পরিবহনসংশ্লিষ্টরা। যারা বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর ঘাটে এসেছেন তারা দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ফেরির দেখা পাননি।

সময় ফরিদপুর থেকে ছেড়ে আসা গোল্ডেন লাইন পরিবহনের সুপারভাইজার নাসিরউদ্দিন বলেন, সারা রাত যাত্রী নিয়ে ঘাটে বসে আছি। কয়েকদিন আগে গেল ঈদের চাপের কারণে ভোগান্তি। এখন আবার পানি বাড়ার ভোগান্তি। কর্তৃপক্ষ কেন জানি ঘাটটি নিয়ে নীরব থাকে। আবার কখন ঘাট সচল হবে সেই বিষয়টি জানতে চেয়েও পাওয়া যায় না কোনো উত্তর।

যশোর থেকে ছেড়ে আসা জেআর পরিবহনের যাত্রী মেহেরুন নেছা বলেন, আমরা যারা নারীরা আছি তারা পড়েছি বেশি ভোগান্তিতে। কারণ ঘাটে আমরা কোনো টয়লেট খুঁজে পাই না। পুরুষরা যেখানে-সেখানে চলে যাচ্ছে, কিন্তু আমরা কী করব। কষ্টের চেয়ে মরণও ভালো। ১০-১২ ঘণ্টা ঘাটেই আটকে থাকতে হলো। কখন ঢাকায় যাব তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। এদিকে বাসা থেকেও সবাই চিন্তা করছে, বারবার ফোন করছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড গোয়ালন্দ উপজেলার পানি পরিমাপক ইদ্রিস আলী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় পদ্মার পানি ৮০ সেন্টিমিটার বেড়েছে। বর্তমানে পানি বিপত্সীমার নিচে থাকলেও এভাবে পানি বাড়তে থাকলে দু-একদিনের মধ্যে পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করবে। সেক্ষেত্রে রাজবাড়ীর সব নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান জানান, পানি বাড়ার ফলে দৌলতদিয়ার নম্বর ঘাট দুটি বর্তমানে বন্ধ। বাকি নম্বর ঘাট দিয়ে পারাপার করা হচ্ছে। নৌরুটে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে। তার পরও ঘাট সমস্যার কারণে ঘাট এলাকায় যানজট তৈরি হয়েছে। দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ঘাট মেরামতে কাজ শুরু করেনি বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন