বুধবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২২ | ১২ মাঘ ১৪২৮

দেশের খবর

বরিশালে দ্রুত গতিতে চলছে কদমতলী সেতুর নির্মাণকাজ

এম. মিরাজ হোসাইন, বরিশাল

বরিশালের নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর নির্মাণাধীন কদমতলী সেতু ছবি: নিজস্ব আলোকচিত্রী

বরিশালের নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর কদমতলী সেতুর নির্মাণকাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ৩৭ কোটি টাকা ব্যয়ে সেতুর নির্মাণকাজ করছে। এরই মধ্যে সেতুর ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী বছরের এপ্রিল সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা।

বরিশাল জেলা শহর থেকে হিজলা-মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলা কাজীরহাট থানার হাজার হাজার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র সড়কে দুটি নদীর ওপর সেতু নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। এলাকাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সরকার ২০১৮ সালের ১৬ আগস্ট নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর কদমতলী সেতুর নির্মাণকাজ শুরু করে। হিজলা-মেহেন্দীগঞ্জ-কাজীরহাট সড়কে বরিশাল জেলা শহর থেকে যাতায়াতে শায়েস্তাবাদে আড়িয়ালখাঁ ভাষানচরে নয়াভাঙ্গনী নদী দুটি মূল অন্তরায়। যুগ যুগ ধরে তিন থানার হাজার হাজার মানুষ খেয়া নৌকা দিয়ে যাতায়াত করে এলেও এখন তারা সেতুর দাবিতে সোচ্চার। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য মন্ত্রণালয়ে ফাইল চালাচালি করে সড়কের নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর কদমতলী সেতুর প্রকল্প অনুমোদন করাতে সক্ষম হন। এর পরিপ্রেক্ষিতে এলজিইডি সেতু নির্মাণকাজ শুরু করে। তবে শায়েস্তাবাদে আড়িয়ালখাঁ নদীটি আয়তনে বড় হওয়ায় সেখানে সেতু নির্মাণে জটিলতা দেখা দেয়।

এলজিইডি বরিশাল অফিস সূত্র জানায়, নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর কদমতলী সেতুর নির্মাণকাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। নবনির্মিত সেতুর ৪৪টি গার্ডারের মধ্যে এরই মধ্যে ৩৩টি গার্ডারের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ১১ স্লাবের মধ্যে সাতটি স্লাবের কাজ শেষ হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মো. মাহফুজ খান প্রজেক্ট বিল্ডার্স লিমিটেড সেতুর নির্মাণকাজ করছে।

মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম মাহফুজুল আলম লিটন বলেন, নয়াভাঙ্গানী নদীর ওপর কদমতলী সেতুর কাজ এখন দৃশ্যমান। এটি হলেই দুর্ভোগ শেষ নয়, আমাদের শায়েস্তাবাদ এলাকার আড়িয়ালখাঁ নদীতেও সেতু দরকার। আড়িয়ালখাঁর শায়েস্তাবাদ অংশে সেতু হলে আমরা আর দ্বীপ উপজেলার বাসিন্দা থাকব না। দিনে দু-তিনবার জেলা শহরে আসা-যাওয়া করতে পারব। এখন সেতু না থাকায় ৪৫ কিলোমিটার ঘুরে গাড়ি করে বাবুগঞ্জ উপজেলা হয়ে বরিশাল যেতে হচ্ছে। সময়-অর্থ দুটি বাঁচাতে বাবুগঞ্জের মীরগঞ্জ না গিয়ে সহজ পথ শায়েস্তাবাদের খেয়া পার হয়ে বরিশালে যাতায়াত করে আসছে মানুষ। শায়েস্তাবাদ আড়িয়ালখাঁ নদীতে আর একটি সেতু হলে সময় বাঁচবে দেড় ঘণ্টা।

স্থানীয় সংসদ সদস্য পংকজ নাথ বলেন, নয়াভাঙ্গুলী নদীর কদমতলী সেতুর পর আমরা আড়িয়ালখাঁ নদীর শায়েস্তাবাদে না বাবুগঞ্জের ময়দানের হাট এলাকায় সেতু নির্মাণ করব তা নিয়ে সমীক্ষা করছে সড়ক জনপথ বিভাগ। দুটির যেকোনো একটি স্থানে সেতু হলে আমরা অবহেলিত জনপদের মানুষ উপকৃত হব। আপাতত শায়েস্তাবাদে সড়ক জনপথ বিভাগ একটি ফেরি সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নিয়েছে, যা শিগগিরই উদ্বোধন করা হবে।

বিষয়ে এলজিইডি বরিশালের নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ মো. জামাল উদ্দীন বলেন, কদমতলী সেতুর কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এর নির্মাণকাজ সমাপ্ত হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন