বুধবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২২ | ১২ মাঘ ১৪২৮

দেশের খবর

নৌকায় ভোট দেয়ার জের

শার্শায় শতাধিক বাড়িতে হামলা ভাংচুরের অভিযোগ

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, যশোর

যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় শতাধিক বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রাতে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয় মিছিল থেকে হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী ইলিয়াস কবির বকুলকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের আব্দুল খালেক। ক্ষতিগ্রস্তদের দাবি, নৌকায় ভোট দেয়ায় তাদের ওপর হামলা চালিয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের আব্দুল খালেকের কর্মী-সমর্থকরা।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, ভোট গণনা শেষে রোববার রাতে ইউনিয়নের নম্বর ওয়ার্ডের ২নং কলোনিতে আনারস প্রতীকের বিজয় মিছিল বের হয়। মিছিল শেষে ফেরার পথে নৌকার সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হামলা ভাংচুর করা হয়। এই পাড়াতেই অন্তত ১০টি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। ভাংচুর করা হয়েছে দোকানপাট, মিনিবাস, ইজিবাইক মোটরসাইকেল। আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। এলাকার পুরুষরা ভয়ে পালিয়ে গেছেন। ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায় ওই বাড়িগুলোতে নারী শিশুরা অবস্থান করছেন।

শুধু ২নং কলোনিতেই নয়; হামলার ঘটনা ঘটেছে ২নং ওয়ার্ডে, পিঁপড়াগাছি গ্রামে, মহিষাকুড়া এলাকায়। সবমিলিয়ে অন্তত শতাধিক ঘরবাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বাগআঁচড়া ইউনিয়নে পরাজিত নৌকার প্রার্থী ইলিয়াস কবির বকুল অভিযোগ করেন, প্রশাসনের সহযোগিতায় নির্বাচনে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। এরপর বিএনপি-জামায়াতের লোকজন এনে আনারসকে বিজয়ী করা হয়েছে। ফলাফল ঘোষণার পর তার কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি-ঘরে হামলা ভাংচুর চালানো হয়েছে। ভয়ে কর্মী-সমর্থকরা বাড়ি থাকতে পারছেন না।

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল খালেক। তার দাবি, প্রত্যেক ওয়ার্ডে সাত-আটজন মেম্বার প্রার্থী ছিলেন। তাদের সমর্থকরাই সংঘর্ষ-ভাংচুরে জড়িয়ে পড়েছেন। তিনি নিজেই হামলার শিকার হয়েছেন বলে দাবি করেন। তার কর্মী-সমর্থকরাও আহত হয়েছেন।

যশোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নাভারণ সার্কেল) জুয়েল ইমরান সাংবাদিকদের বলেন, যেসব এলাকা থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে, সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ গ্রহণসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবেও তিনি উল্লেখ করেন।

জনপ্রতিনিধিদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশ : যশোরে পাঁচটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের আর্থিক সম্পদ বিবরণী প্রকাশ করা হয়েছে। এতে পাঁচ বছরের তুলনামূলক চিত্রে উঠে এসেছে বার্ষিক আয় সম্পদের পার্থক্য। গতকাল শহরের একটি হোটেলে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা রাইটস যশোর আয়োজিত স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের আর্থিক সম্পদ বিবরণী প্রকাশ জোরদারকরণ প্রকল্পের আওতায় চেয়ারম্যানদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশ করা হয়।

এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় যশোর জেলার ১০ ইউনিয়নে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের আর্থিক সম্পদ বিবরণী প্রকাশ জোরদারকরণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে রাইটস যশোর।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার ইয়াকুব আলী মোল্লার সভাপতিত্বে সম্পদ বিবরণী প্রকাশ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান। বিশেষ অতিথি ছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) যশোর সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. নাজমুচ্ছায়াদাত, দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের পরিচালক (ফাইন্যান্স অ্যান্ড এডমিন) কামরুল হাসান ভুঁইয়া, প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. জাকারিয়া, নাগরিক অধিকার আন্দোলনের আহ্বায়ক মাস্টার নূর জালাল, জাতীয় পার্টির সাবেক কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম বাচ্চু, জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন অর রশিদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন