বুধবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২২ | ১২ মাঘ ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

শক্তিশালী প্রবৃদ্ধিতে ফিরেছে চীনের শিল্প খাতের মুনাফা

বণিক বার্তা ডেস্ক

অক্টোবরে চীনে শিল্প খাতের মুনাফা ২৪ দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে। কিংদাওয়ে একটি মাস্ক তৈরির কারখানা ছবি: এপি

কভিডজনিত বিধ্বস্ত অবস্থা থেকে আগেভাগে পুনরুদ্ধার হওয়া অন্যতম দেশ চীন। গত বছরের মাঝামাঝি থেকেই দেশটির অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছিল। যদিও সেই গতি অব্যাহত থাকেনি। চলতি বছরের মাঝামাঝিতে কাঁচামালের উচ্চ ব্যয় বৈশ্বিক সরবরাহ চেইনে প্রতিবন্ধকতার মতো নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয় দেশটি। এতে টানা কয়েক মাস শ্লথগতির পর সেপ্টেম্বরে শিল্প মুনাফায় প্রবৃদ্ধিতে কিছুটা গতি ফেরে। এরপর অক্টোবরে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির শিল্প মুনাফায় শক্তিশালী প্রবৃদ্ধির দেখা দিয়েছে। গত মাসে প্রবৃদ্ধির গতি অর্থনীতিবিদদের প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে গেছে। খবর রয়টার্স।

গতকাল চীনের পরিসংখ্যান ব্যুরো জানিয়েছে, গত মাসে চীনের শিল্প সংস্থাগুলোর মুনাফা দ্রুতগতিতে বেড়েছে। কাঁচামালের দাম বৃদ্ধির ফলে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি আবারো শক্তিশালী পুনরুদ্ধারের ইঙ্গিত দিচ্ছে। অক্টোবরে শিল্প খাতের মুনাফা ৮১ হাজার ৮৭০ কোটি ইউয়ানে (১২ হাজার ৮১০ কোটি ডলার) পৌঁছেছে। মুনাফার পরিমাণ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৪ দশমিক শতাংশ বেশি। সেপ্টেম্বরে ১৬ দশমিক শতাংশ প্রবৃদ্ধির চেয়েও এটি অনেক বেশি।

জানুয়ারি-অক্টোবর সময়ে শিল্প সংস্থাগুলোর মুনাফা বার্ষিক ৪২ দশমিক শতাংশ বেড়ে লাখ ২০০ কোটি ইউয়ানে পৌঁছেছে। এটি চলতি বছরের প্রথম নয় মাসে বার্ষিক ৪৪ দশমিক শতাংশ প্রবৃদ্ধির চেয়ে কিছুটা ধীর।

শিল্প মুনাফার তথ্যে কেবল বৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলো অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। প্রধান কার্যক্রম থেকে বার্ষিক আয় কোটি ইউয়ানের চেয়ে বেশি থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর মুনাফা হিসাব করা হয়ে থাকে।

ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকসের একজন সিনিয়র পরিসংখ্যানবিদ জু হং বলেন, কাঁচামালের সরবরাহ নিশ্চিত এবং দাম স্থিতিশীল করতে সরকারি প্রচেষ্টা শিল্প খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিবন্ধকতা কমিয়ে আনতে সহায়তা করেছে। পদক্ষেপগুলোই শিল্পোৎপাদন খাতের স্থিতিশীলতা আনয়ন এবং মুনাফার উন্নতিতে অবদান রেখেছে।

তিনি বলেন, আপস্ট্রিম (কাঁচামাল উৎপাদন) ডাউনস্ট্রিম (চূড়ান্ত পণ্য উৎপাদন) শিল্পের মধ্যে মুনাফার পার্থক্যের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য কোনো উন্নতি হয়নি। ডাউনস্ট্রিম শিল্পগুলো এখনো মুনাফা পেতে চাপের সম্মুখীন হচ্ছে।

চলতি বছরের মাঝামাঝিতে চীনজুড়ে বিদ্যুৎ সংকট দেখা দিলে পণ্যের মূল্যে ঊর্ধ্বগতি দেখা দেয়। লাফিয়ে লাফিয়ে রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছে যায় বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য দেশটির প্রধান জ্বালানি কয়লার দাম। অবস্থায় কয়লার বাজার স্থিতিশীল করতে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করে বেইজিং।

গত সপ্তাহে রাষ্ট্রীয় পরিকল্পনাকারী পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা জানান, কয়লাসহ জ্বালানি পণ্যের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেছে। ইস্পাত, অ্যালুমিনিয়াম, পিভিসি রাসায়নিক পণ্যের দামও নিম্নমুখী হয়েছে। কভিডের বিপর্যয় কাটিয়ে গত বছরের মাঝামাঝি থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি পুনরুদ্ধার হতে শুরু করেছিল। তবে নানা সংকটে পড়ে গতি হারিয়েছে চীন। শিল্পোৎপাদন খাতে শ্লথগতি, পর্বতসম ঋণের বোঝায় টালমাটাল আবাসন খাত এবং পুনরায় কভিডের প্রাদুর্ভাব দেশটির প্রবৃদ্ধি ধীর করে দেয়।

সম্প্রতি চীনের শিল্প তথ্য মন্ত্রণালয় (এমআইআইটি) কাঁচামাল সংকট নিয়ে আলোচনায় বসেছিল। বৈঠকে অ্যালুমিনিয়াম করপোরেশন চায়না মিনমেটার করপোরেশনসহ শিল্প সমিতি সংস্থাগুলো অংশ নিয়েছিল। গতকাল এমআইআইটির কর্মকর্তারা অফিশিয়াল আইচ্যাট অ্যাকাউন্টে তথ্য জানিয়েছেন।

বৈঠকে এমআইআইটির ভাইস মিনিস্টার ওয়াং জিয়াংপিং বলেছেন, সরবরাহ চেইনে স্থিতিশীলতা নিশ্চিতের জন্য আপস্ট্রিম ডাউনস্ট্রিম শিল্পের উন্নতিতে ভারসাম্য আসা উচিত। অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতিতে ঝুঁকি মোকাবেলায় শিল্প খাতের সক্ষমতা আরো জোরদার করারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন