রবিবার | ডিসেম্বর ০৫, ২০২১ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

দেশের খবর

বিদ্যালয় ভবন মেঘনায় বিলীন

হিজলায় বসতঘরের বারান্দায় শিক্ষার্থীদের পাঠদান

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, বরিশাল

বরিশালের হিজলায় বিদ্যালয় কমিটির সভাপতির ঘরের বারান্দায় পাঠদান ছবি: নিজস্ব আলোকচিত্রী

বরিশালের হিজলায় বিদ্যালয় ভবন না থাকায় একটি বসতবাড়ির বারান্দায় পাঠদান চলছে শিক্ষার্থীদের। মেঘনার ভাঙনে ভবন বিলীন হওয়ার পর থেকে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে ওই বসতবাড়ির বারান্দায়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোহেল কামাল জানান, হিজলা উপজেলার ধুলখোলা ইউনিয়নের বাতুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৪৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টি ১৯৭৩ সালে জাতীয়করণ হয়। ১৯৯৯ সালে বিদ্যালয়ের পাকা ভবন নির্মাণ করে এলজিইডি। চলতি বছরের ১১ আগস্ট বিদ্যালয়ের ভবনটি মেঘনার গ্রাসে বিলীন হয়ে যায়। এরপর গত ১২ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয় খোলার পর কোনো উপায় না পেয়ে সভাপতি বেল্লাল হোসেন শরমার বাড়ির তিনটি বসতঘরের বারান্দায় ক্লাস নেয়ার সিদ্ধান্ত নেই। সেই থেকে এখানেই শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে।

বাতুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বর্তমানে ১০৯ জন শিক্ষার্থী চারজন শিক্ষক রয়েছেন। বাতুয়া বাড়ির বারান্দায় এখন একসঙ্গে তিন শ্রেণীর ক্লাস নেন শিক্ষকরা। এতে ক্লাসে মনোযোগী হতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। তারা জানায়, খোলা স্থানে পাশাপাশি ক্লাস নেয়ার ফলে অন্য ক্লাসের শব্দ আসে। এমনকি শিক্ষকরা কী বলছেন তাও বুঝতে তাদের সমস্যা হয়।

নদীভাঙনে বিদ্যালয় ভবনটি বিলীনের পর ১০৯ জন শিক্ষার্থীর ভাগ্য অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। অন্যের বাড়িতে কতদিন এভাবে ক্লাস করতে হবে তাও জানা নেই কারো।

সহকারী শিক্ষক রাবেয়া খানম বলেন, নদীভাঙনে বিদ্যালয় ভবন বিলীন পরিবার স্থানান্তরিত হওয়ায় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার দিন দিন কমে যাচ্ছে। যে কারণে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে।

বিদ্যালয়ের সভাপতি বেল্লাল হোসেন শরমা বলেন, বিদ্যালয় ভবন বিলীন হওয়ায় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে এখন আমার বাড়ির বারান্দায় পাঠদান চালু রাখা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে ভবনের ব্যবস্থা হলে সেখানে স্কুলের কার্যক্রম শুরু করা হবে।

বিষয়ে বরিশাল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আব্দুল লতিফ মজুমদার বলেন, বিদ্যালয় ভবন নদীতে বিলীনের পরই উপপরিচালকসহ পরিদর্শন করেছি। বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা বলে তাকে অবগত করা হয়েছে। এখন অন্যত্র জমির ব্যবস্থা হলেই নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে। নতুন ভবন না হওয়া পর্যন্ত অন্যের বারান্দায় পাঠদানের নির্দেশনা দিয়ে আসা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন