রবিবার | নভেম্বর ২৮, ২০২১ | ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

নতুন কয়লা প্রকল্পে বিনিয়োগ বন্ধ করবে ওইসিডি দেশগুলো

বণিক বার্তা ডেস্ক

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য আর ঋণ দেবে না অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টভুক্ত (ওইসিডি) দেশগুলো। এর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো। সম্প্রতি এক ঘোষণায় ওইসিডি জানায়, কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ খাতে রফতানি-সহায়ক ঋণ বন্ধ করতে সর্বসম্মতভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কপ২৬ জলবায়ু সম্মেলনের ঠিক এক সপ্তাহ আগে ঘোষণা দেয়া হলো। খবর দ্য ন্যাশনাল।

প্যারিসভিত্তিক সংগঠনটি জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞার ফলে সেইসব নতুন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোতে আর্থিক সহায়তা দেয়া বন্ধ হবে যেগুলোতে কার্বন নিঃসরণ ঠেকানোর প্রযুক্তি সংযুক্ত নেই। তবে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হতে আরো কিছু সময় লাগবে। ওইসিডি বলছে, সদস্য দেশগুলো নিজেদের মধ্যে আলোচনা শেষে অভ্যন্তরীণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া শেষ করার পর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে।

আর যেসব দেশ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে সেগুলো হলো অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড তুরস্ক। এখন চলমান যেসব বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে সেগুলোকে ঋণ দেয়া হবে তবে তা কেবল দূষণ কমানোর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য। পাশাপাশি কার্বন নিঃসরণ ঠেকানোর যন্ত্রপাতি কেনার জন্যও ঋণ পাবে প্রকল্পগুলো।

রফতানি-সহায়ক ঋণের সঙ্গে সরকারি আর্থিক সহায়তা, যেমন সরাসরি সহায়তা, জিম্মাদার হওয়া, বীমা, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের নানা ধরনের সহায়তা দেয়াও জড়িত। নিষেধাজ্ঞার ফলে এর সবই বন্ধ হয়ে যাবে।

কয়লাকে সবচেয়ে নোংরা জীবাশ্ম জ্বালানি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বিশ্বের কার্বন নিঃসরণ বেড়ে যাওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ হলো কয়লা। যদিও অনেক উন্নত দেশ তাদের বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য কয়লানির্ভরতা কমাতে শুরু করেছে। তবে দেশের বাইরে আবার কয়লাভিত্তিক বিভিন্ন প্রকল্পে অর্থায়নও করে যাচ্ছে দেশগুলো, যা পরিবেশবাদী গোষ্ঠীগুলোর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে।

গত মে মাসে জি৭ দেশগুলোর পরিবেশমন্ত্রীরা সম্মত হয়েছিলেন, যেসব দরিদ্র দেশে কয়লা পুড়িয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে এমন খাতে সরাসরি অনুদান দেয়া বন্ধ করা হবে। সেজন্য চলতি বছরের শেষ পর্যন্ত সময়ও বেঁধে দেয়া হয়। এরপর জুলাইয়ে কপ২৬-এর প্রেসিডেন্ট অলোক শর্মা জলবায়ু পরিবর্তনের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছতে উন্নত দেশগুলোকে কয়লা ব্যবহার বন্ধ করার আহ্বান জানান। যদিও এখন পর্যন্ত বিশ্বের একটা বড় অংশ বিদ্যুৎ উৎপাদনে কয়লা ব্যবহার করা হচ্ছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন

×