রবিবার | ডিসেম্বর ০৫, ২০২১ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

টেলিকম ও প্রযুক্তি

অ্যামাজন ও মাইক্রোসফটের সঙ্গে টেক্কা

ক্লাউড কম্পিউটিংয়ে নতুন সার্ভার চিপ এনেছে আলিবাবা

বণিক বার্তা ডেস্ক

চীনের হানজুতে আলিবাবা গ্রুপের প্রধান কার্যালয় ছবি: সিএনবিসি

নিজেদের ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবসা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে নতুন সার্ভার চিপ এনেছে আলিবাবা। মার্কিন প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যামাজন মাইক্রোসফটের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে গতকাল ক্লাউড সার্ভার চিপ আনার ঘোষণা দিয়েছে চীনা -কমার্স জায়ান্টটি। খবর সিএনবিসি।

ইটিয়ান ৭১০ নামের প্রসেসরটি প্যানজিয়ু নামে নতুন সার্ভারে ব্যবহূত হবে। গ্রাহকদের কাছে সরাসরি চিপ বা সার্ভার বিক্রি করবে না আলিবাবা। বরং আলিবাবার ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের গ্রাহকরা সর্বাধুনিক প্রযুক্তির সেবা পাবেন। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা পরিচালিত অ্যাপ্লিকেশন স্টোরেজের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে সার্ভার চিপ। লেটেস্ট চিপ সার্ভারগুলো কবে থেকে গ্রাহকদের জন্য উন্মুক্ত করা হবে তা এখনো স্পষ্ট করেনি আলিবাবা।

চীনা -কমার্স জায়ান্টটি সেমিকন্ডাক্টর নির্মাণে যাবে না, শুধু তার নকশা করবে। সাম্প্রতিক দিনগুলোতে চীনা প্রযুক্তি জায়ান্টগুলোর মধ্যে প্রবণতা লক্ষণীয়। হুয়াওয়ে তাদের স্মার্টফোনের জন্য নিজস্ব চিপের নকশা করেছে। এককভাবে সেমিকন্ডাক্টর ব্যবসা চালুতে তহবিল গঠন করেছে চীনা সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট বাইদু। মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগল, অ্যামাজনও ক্লাউড কম্পিউটিংয়ে একই ফর্মুলা অনুসরণ করছে।

ভবিষ্যৎ প্রবৃদ্ধি পরিকল্পনার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে ক্লাউড কম্পিউটিংকে বিবেচনা করছে আলিবাবা। অবশ্য বর্তমানে কোম্পানিটির মোট আয়ের মাত্র শতাংশ আসছে ক্লাউড কম্পিউটিং সেগমেন্ট থেকে। প্রধান একটি গ্রাহক হারানোর পর জুন প্রান্তিকে ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবসায় বড় ধাক্কা খেয়েছে আলিবাবা। তবে বাজার বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান ক্যানালিস বলছে, চীনের ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবসায় সবচেয়ে বড় খেলুড়ে আলিবাবা। প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানিগুলো আলিবাবার সঙ্গে টেক্কা দিতে চীনে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় স্মার্টফোন ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ক্লাউড কম্পিউটিংয়ে জোর দিচ্ছে হুয়াওয়ে।

এদিকে আন্তর্জাতিকভাবে ক্লাউড ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে চাচ্ছে আলিবাবা। কিন্তু বৈশ্বিক বাজার শেয়ারের দিক থেকে অ্যামাজন মাইক্রোসফটের চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছে জ্যাক মা প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিটি।

অধিকাংশ প্রযুক্তি জায়ান্ট নিজস্ব চিপের নকশা করছে যাতে নিজেদের বিভিন্ন অ্যাপ পরিচালনা সহজতর হয় এবং তা প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানিগুলোর চেয়ে ভিন্নতা দেয়।

এক সংবাদ বিবৃতিতে আলিবাবা ক্লাউড ইন্টেলিজেন্সের প্রেসিডেন্ট জেফ ঝ্যাং বলেন, ভালো পারফরম্যান্স উন্নততর জ্বালানি সক্ষমতায় কম্পিউটিং সক্ষমতা বৃদ্ধিতে আমাদের সার্ভার চিপ কাস্টমাইজ করছি।

ব্রিটিশ সেমিকন্ডাক্টর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আর্মের সহায়তায় তৈরি হচ্ছে আলিবাবার ইটিয়ান ৭১০ চিপ। এর মাধ্যমে কাস্টম-বেজড চিপ নির্মাণে ঝুঁকল আলিবাবা। ২০১৯ সালে হানগুয়াং ৮০০ নামে প্রথম এআই চিপ বাজারে এনেছিল চীনা কোম্পানিটি।

চীনা নীতিনির্ধারকদের কড়া নজরদারিতে প্রযুক্তি জায়ান্টগুলো যখন হিমশিম খাচ্ছে, তখন নতুন সার্ভার চিপ আনার ঘোষণা দিল আলিবাবা। অ্যান্টিট্রাস্ট তদন্ত শেষে গত এপ্রিলে ২৮০ কোটি ডলার জরিমানার মুখোমুখি হয়েছিল আলিবাবা। প্রতিযোগিতা নীতি লঙ্ঘন গ্রাহক ডাটা সুরক্ষায় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর ওপর চাপ দিলেও সেমিকন্ডাক্টর খাত শক্তিশালী করতে আন্তরিক চীন সরকার। বিদেশী প্রযুক্তির ওপর বড় আকারে নির্ভরশীল চীনা শিল্প খাতের ঘুরে দাঁড়াতে সেমিকন্ডাক্টর খাতে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। করোনা মহামারীর ফলে সৃষ্ট সরবরাহ শৃঙ্খলে সংকট উপকরণ স্বল্পতায় ধুঁকছে সেমিকন্ডাক্টর খাত। যার প্রভাব পড়েছে গাড়ি শিল্প থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত কম্পিউটার (পিসি), স্মার্টফোন, ভিডিও গেমস থেকে শুরু করে ইলেকট্রনিকস খাতে। সংকট থেকে ঘুরে দাঁড়াতে প্রযুক্তি জায়ান্টগুলো সেমিকন্ডাক্টর নির্মাণে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে চাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) এবং চীন জাপানের মতো দেশগুলোর সরকার এতে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন