বৃহস্পতিবার | অক্টোবর ২৮, ২০২১ | ১২ কার্তিক ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

লস অ্যাঞ্জেলেস ও লং বিচ বন্দর

ইতিহাসের দীর্ঘ কার্গো জটের মুখোমুখি ক্যালিফোর্নিয়া

বণিক বার্তা ডেস্ক

লং বিচ বন্দরের বাইরে সমুদ্রে অপেক্ষমাণ পণ্যবাহী জাহাজ ছবি: রয়টার্স

ইতিহাসের যেকোনো সময়ের সর্বোচ্চ কার্গো জটের সম্মুখীন হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির বৃহৎ দুই সমুদ্রবন্দরে আটকে আছে প্রায় ৬৫টি পণ্যবাহী জাহাজ। ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের লস অ্যাঞ্জেলেস এবং লং বিচ বন্দরে জট সৃষ্টি হয়েছে।

বিবিসির একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বন্দর দুটির মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের মোট কার্গো কনটেইনারের ৪০ শতাংশ পরিচালনা করা হয়ে থাকে। এমন পরিস্থিতিকে দেশটিতে চলমান সরবরাহ সংকটের অন্যতম উদাহরণ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

কভিড-পূর্ববর্তী সময়ে একটির বেশি জাহাজ বার্থে নোঙর করার জন্য অপেক্ষা করার দৃশ্য অনেকটাই অপরিচিত ছিল এসব বন্দরে। বর্তমানে মার্কিন অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের ফলে দেশটিতে চাহিদার সঙ্গে সংগতি রেখে বেড়েছে আমদানির পরিমাণ। ফলে আগের চেয়ে বেশি পরিমাণ জাহাজ বন্দরগুলোতে পণ্য খালাসের অপেক্ষায় থাকায় এমন জট সৃষ্টি হয়েছে।

বর্তমানে খুচরা বিক্রেতা এবং উৎপাদনকারীরা ক্রয়াদেশ গ্রহণ তাদের তালিকায় থাকা পণ্যের পুনর্মজুদ করতে হিমশিম খাচ্ছেন। তবে চাহিদা সরবরাহের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে বেগ পেতে হচ্ছে বৈশ্বিক জাহাজীকরণ ব্যবস্থাকে। ফলে শিশুদের খেলনা, কাঠ, নতুন পোশাক গৃহপালিত প্রাণীর খাদ্য সংকট আরো স্পষ্টভাবে ফুটে উঠছে। এর প্রভাবে ভোক্তাপর্যায়ে এসবের মূল্যও বেড়েছে।

গত সপ্তাহে সম্ভাব্য কার্গো জটের ব্যাপারে সতর্ক করে লস অ্যাঞ্জেলেস বন্দরের প্রধান জিন সেরোকা বলেন, চলতি বছর আগামী বছরজুড়ে আমাদের বন্দরের উদ্দেশে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ পণ্যবাহী কার্গো আসতে চলেছে। বর্তমানে সরবরাহ চেইনের প্রতিটি ক্ষেত্রে বিপত্তি তৈরি হচ্ছে। ফলে সৃষ্ট কার্গো জট পণ্য খালাসসংক্রান্ত প্রতিবন্ধকতা নিরসনে কাজ করছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে বন্দরের মনিটরিং টিম পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রেখেছে।

সমুদ্রপথে যুক্তরাষ্ট্রে পণ্য প্রবেশের ক্ষেত্রে লস অ্যাঞ্জেলেস লং বিচ অন্যতম দুটি বন্দর। বিশেষ করে চীন থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে বন্দর দুটি আমদানীকারকদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে বিবেচিত।

গত শনিবার বন্দর দুটিতে যেকোনো সময়ের সর্বোচ্চ ৭৩টি জাহাজ বার্থিং অঞ্চলের বাইরে আটকে ছিল, যা আগস্টের সময়ে আটকে থাকা জাহাজ সংখ্যার প্রায় দ্বিগুণ। পরিস্থিতির ফলে কিছু কার্গো জাহাজ অন্য বন্দরের উদ্দেশে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ফলে কয়েক লাখ টন পণ্য খালাসে জটিলতার মুখে পড়েছেন আমদানিকারকরা। কিন্তু পার্শ্ববর্তী অকল্যান্ড বন্দরেরও পরিমাণ পণ্য কার্গো জাহাজগুলো থেকে খালাস করার সক্ষমতা নেই। এমন পরিস্থিতিতেও গত বছরের পুরো সময়ের তুলনায় চলতি বছরের এখন পর্যন্ত লস অ্যাঞ্জেলেস বন্দর এককভাবে ৩০ শতাংশ বেশি পরিমাণ কার্গো খালাস করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ৯৫০টি খেলনাসংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন ইউএস টয় অ্যাসোসিয়েশন সতর্কবার্তা দেয়, ক্যালিফোর্নিয়ার বন্দরগুলোতে কার্গো জট পরিস্থিতি গুরুত্বপূর্ণ ছুটির মৌসুমগুলোতে তাদের সদস্যদের ব্যবসায়িক কার্যক্রমে নেতিবাচক প্রভাব রাখবে। সংগঠনটির সদস্যরা বছরে ৩০০ কোটি ডলারের খেলনা বিক্রি করে থাকে, যার ৮৫ শতাংশই চীন থেকে আমদানি করা হয়।

উদ্ভূত পরিস্থিতি সামাল দিতে তাদের কর্মঘণ্টা বৃদ্ধির ব্যাপারে সম্মত হয়েছে ক্যালিফোর্নিয়ার বন্দরগুলো। একই সঙ্গে বন্দরসংশ্লিষ্টরা হোয়াইট হাউজের গঠিত সরবরাহ চেইনে বিশৃঙ্খলা নিয়ে কাজ করা টাস্কফোর্সের সঙ্গে কাজ করছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন