শনিবার | সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১ | ১০ আশ্বিন ১৪২৮

প্রথম পাতা

ছয় বছরে বৈদেশিক ঋণের স্থিতি বেড়েছে ৯৪ শতাংশ

সাইদ শাহীন

দেশে উন্নয়ন প্রকল্পের চাহিদা বাড়ছে। অন্যদিকে রাজস্ব আহরণসহ অভ্যন্তরীণ সম্পদের সংগ্রহ হচ্ছে প্রয়োজনের তুলনায় কম। ঘাটতি পূরণ করতে বৈদেশিক ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়ছে। এর ধারাবাহিকতায় গত ছয় বছরে দেশে বৈদেশিক ঋণের স্থিতি বেড়ে দ্বিগুণের কাছাকাছিতে দাঁড়িয়েছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে।

বৈদেশিক ঋণের স্থিতি বাড়ায় দেশে এখন ঋণ-রফতানি ঋণ-চলতি হিসাব অনুপাতেও ব্যাপক উল্লম্ফন দেখা যাচ্ছে। অবস্থায় বৈদেশিক ঋণের দক্ষ ব্যবহার নিশ্চিতের পাশাপাশি ঝুঁকিপূর্ণ ঋণ পরিহার করে চলা প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অন্যথায় তা দেশের জন্য বড় ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়াবে বলে আশঙ্কা করছেন তারা।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৫ সালের জুন শেষে দেশে বৈদেশিক ঋণের স্থিতির পরিমাণ ছিল ৩৭ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার ( বিলিয়ন=১০০ কোটি) সেখান থেকে বাড়তে বাড়তে চলতি বছরের মার্চে এসে তা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭২ দশমিক ১৪ বিলিয়ন ডলারে। সে হিসাবে গত ছয় বছরে দেশের বৈদেশিক ঋণের স্থিতি বেড়েছে প্রায় ৯৩ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

একই সঙ্গে বাড়ছে বৈদেশিক ঋণ-রফতানি অনুপাতও। ২০১৫ সালে রফতানির বিপরীতে বৈদেশিক ঋণ ছিল ১১৭ দশমিক শতাংশ। গত বছর তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯১ দশমিক শতাংশে। অর্থাৎ রফতানির তুলনায় বৈদেশিক ঋণ এখন অনেক বেশি। অন্যদিকে বৈদেশিক ঋণ চলতি হিসাবের অনুপাতও বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১৫ সালে চলতি হিসাবের তুলনায় বৈদেশিক ঋণ ছিল মাত্র ৭৪ দশমিক শতাংশ, যা গত বছর উন্নীত হয়েছে ১১১ শতাংশে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অতিমাত্রায় বিদেশী ঋণ বৃদ্ধি অর্থনীতির জন্য ঝুঁকি বয়ে আনবে। ঋণ মাত্রা ছাড়ালে চাপ পড়ে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বিনিময় হারের ওপর। বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগ চাহিদা বাড়ছে। আর এর সঙ্গে বাড়ছে বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদাও। বিপুল পরিমাণ বিদেশী ঋণের সুদসহ আসল পরিশোধ করতে গিয়ে ভবিষ্যতে চাহিদা মারাত্মক চাপে রূপ নেয়ার ব্যাপক আশঙ্কা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাড়তি চাহিদার কারণে ডলারের বিনিময় হারও বেড়ে যাবে। একই সঙ্গে বৃদ্ধি পাবে বৈদেশিক ঋণের প্রকৃত সুদও। বিদেশী ঋণের সঠিক ব্যবহার না হলে দায় আরো দীর্ঘ হবে, যা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে আরো দায়গ্রস্ত করে তুলবে। অন্যদিকে ভবিষ্যতে যেকোনো বৈশ্বিক মন্দার ক্ষেত্রে বিদেশীরা দ্রুত ঋণ তুলে নিতে চাইবে। এছাড়া বর্তমানে কম সুদে ঋণ পাওয়া গেলেও এলডিসি থেকে উত্তরণের পর সে সুযোগ কমে আসবে। এলডিসিভুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ এখন সর্বোচ্চ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে বিশ্বব্যাংকের আইডিএ ঋণ পাচ্ছে। কিন্তু সামনের দিনগুলোয় সাধারণ হারে ঋণ নিতে হতে পারে। অবস্থায় অভ্যন্তরীণ সম্পদ; বিশেষ করে রাজস্ব আহরণ বাড়ানো রফতানি বহুমুখীকরণের পাশাপাশি সাপ্লায়ার্স ক্রেডিট নেয়ার প্রবণতাও কমাতে হবে।

বিষয়ে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মাননীয় ফেলো . মুস্তাফিজুর রহমান বণিক বার্তাকে বলেন, অবকাঠামো উন্নয়নে বৈদেশিক ঋণের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তবে দেশীয় সম্পদ সংগ্রহ করতে না পারলে বিশেষ করে রাজস্ব আহরণে পিছিয়ে পড়লে কর-জিডিপি অনুপাত কম থাকলে বৈদেশিক ঋণনির্ভরতা আরো বাড়বে। দেশে এখন কর-জিডিপি অনুপাত ১০ শতাংশের কাছাকাছি। আবার দেশে অভ্যন্তরীণ সঞ্চয় কম হলে বৈদেশিক ঋণনির্ভরতাও দ্রুত হারে বাড়বে। বাংলাদেশে এখন সেটিই হচ্ছে। বৈদেশিক ঋণনির্ভরতা বাড়ছে। সঠিকভাবে এটির ব্যবহার করতে না পারলে তা দেশের জন্য ঝুঁকি তৈরি করবে।

তিনি আরো বলেন, বৈদেশিক ঋণ নিয়ে উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রাধিকার খাত ঠিক করতে না পারলে বা প্রকল্পের ব্যয় যৌক্তিকভাবে নির্ধারণ করতে না পারলে এসব অবকাঠামো থেকে ভবিষ্যতে আয় (আইআরআর) কমে যাবে।

আর্থিক অর্থনৈতিক আয় কম হলে সাধারণত সেবা প্রদানের চার্জ বেশি হারে ধার্য করা হয়। যেমন বিদ্যুতের দাম বাড়ানো, টোল হার বেশি নির্ধারণ করা। বাংলাদেশে ঋণের সঠিক ব্যবহার না হওয়ার কারণে এগুলো করতে হচ্ছে। ফলে বৈদেশিক ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে আরো কৌশলী হতে হবে।

বর্তমানে বেশকিছু বৈদেশিক ঋণনির্ভর বড় উন্নয়ন প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর মধ্যে চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণে ১৩ হাজার ১১৫ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক। যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু নির্মাণে জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি (জাইকা) দিয়েছে ১২ হাজার ১৪৯ কোটি টাকা। পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পে জি-টু-জির মাধ্যমে ২১ হাজার ৩৬ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে চীন। এছাড়া ঢাকার প্রথম মেট্রোরেল (উত্তরা-মতিঝিল, এআরটি লাইন-) প্রকল্পে ১৬ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে জাইকা। এলেঙ্গা-হাটিকুমরুল-রংপুর মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পে ১১ হাজার ৬২৫ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে এডিবি। কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ প্রকল্পে হাজার ৯১৩ কোটি টাকা দিচ্ছে চীন।

বিশেষ করে দ্বিপক্ষীয় ঋণের পরিমাণ সাম্প্রতিক সময়ে বেশ বাড়তে দেখা যাচ্ছে। চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত তথ্য অনুযায়ী, দেশে দ্বিপক্ষীয় দীর্ঘমেয়াদি বৈদেশিক ঋণের স্থিতি হাজার ৭৭১ কোটি ৭১ লাখ ডলারের বেশি। এর মধ্যে সরকারের ঋণ হাজার ৭৫১ কোটি ৪৩ লাখ ডলার বেসরকারি খাতে ২০ কোটি ২৮ লাখ ডলার।

বর্তমানে দেশে রাশিয়া, চীন ভারতের বড় ধরনের ঋণ প্রস্তাব রয়েছে। এগুলো গৃহীত হলে সামনের দিনগুলোয় দ্বিপক্ষীয় মোট বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ আরো বাড়বে। এর মধ্যে চীনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় ঋণের প্রস্তাব প্রতি বছরই বাড়ছে। বিশ্বব্যাংকের আইডিএ ঋণসহায়তাও আরো বাড়তে পারে। পাশাপাশি বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তারাও এখন ঋণ নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

২০১৫ সালের ডিসেম্বর শেষে দেশে বেসরকারি খাতের বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ছিল দশমিক শূন্য বিলিয়ন ডলার। গত বছরের ডিসেম্বর শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ৭৬ ডলারে। ঋণ গ্রহণে জটিলতা বিভিন্ন সারচার্জ এবং অবকাঠামো সমস্যার কারণে বেসরকারি উদ্যোক্তারা এখন বৈদেশিক ঋণ গ্রহণে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। অবস্থায় কার্যকর ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সার্বিকভাবে ঋণের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর . সালেহউদ্দিন আহমেদ বণিক বার্তাকে বলেন, বড় প্রকল্পের জন্য স্বল্প সুদে কঠিন শর্ত ছাড়াই বৈদেশিক ঋণের প্রয়োজন আছে। তবে সে ঋণের অর্থ অহেতুক ব্যয় না করে কিংবা অন্যান্য খাতকে সুবিধা না দিলে ঝুঁকি তৈরি করবে। ঋণ দক্ষতার সঙ্গে ব্যবহার করতে না পারলে তা দেশের অর্থনীতির জন্য মারাত্মক বোঝা হয়ে দাঁড়াবে। বিশেষ করে বাজেট বাস্তবায়ন, রিজার্ভ বিনিময় হারের ওপর চাপ বাড়াবে। তাই ঋণ গ্রহণে এখনই সতর্ক অবস্থান নিতে হবে। স্বল্প সুদের কনসেশন ঋণ ছাড়া অন্য যেকোনো ধরনের ঋণ বিশেষ করে সাপ্লায়ার্স ক্রেডিট, শর্ট টার্ম হার্ড টার্ম ঋণ নেয়ার বিষয়টি যতটুকু সম্ভব পরিহার করতে হবে। আর বেসরকারি খাতের বিদেশী ঋণ গ্রহণের বিষয়টি নতুন করে ভাবতে হবে। ফেরত দেয়ার সক্ষমতা বাড়াতে হলে অর্থ ব্যয়ে আরো বেশি স্বচ্ছতা কৃচ্ছ তার প্রয়োজন রয়েছে। অন্যথায় ঋণ দেশের জন্য বোঝা হয়ে যাবে।

যদিও বিদেশী ঋণ নিয়ে মুহূর্তে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান। বণিক বার্তাকে তিনি বলেন, বিদেশী ঋণে ঝুঁকির কোনো কারণ এখন পর্যন্ত নেই। বিদেশী ঋণে সুদহার অনেক কম। যত কম সুদে ঋণ পাওয়া যায়, উন্নয়নের পথ ততই সুগম হয়। অর্থাৎ শিল্পায়ন বিনিয়োগের পথ আরো মসৃণ হয়। আর বিদেশী ঋণে সুদহার কম হওয়ায় খেলাপি হওয়ার সুযোগও কম। বেশি সুদে ঋণ নিলে তা শোধ হওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। বর্তমানে কম সুদে নেয়া দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দেশের বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে খুবই প্রয়োজন, এক্ষেত্রে বিদেশী ঋণ অবশ্যই ভালো উৎস। তবে অবশ্যই ট্র্যাক রেকর্ড ভালো এমন ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের ঋণপ্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজন হলে ঋণ পরিশোধে ব্যক্তি খাতের সমন্বয়ে নজরদারি কমিটিও থাকতে পারে। বাংলাদেশে সরকারিভাবেও যেসব প্রকল্প বিদেশী ঋণ নিয়ে করা হয়েছে, সেগুলোতেও এখন পর্যন্ত কোনো ঝুঁকির ক্ষেত্র সৃষ্টি হয়নি। দেশের জিডিপিতেও বিদেশী ঋণের অংশ খুবই সামান্য। এক সময় দেশের বাজেট হতো বিদেশী ঋণের ওপর নির্ভর করে। এখন বাজেটে বিদেশী ঋণ - শতাংশের বেশি না। অর্থাৎ বিদেশী ঋণ আমাদের বোঝা না।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন