শুক্রবার | সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১ | ৯ আশ্বিন ১৪২৮

শেয়ারবাজার

দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার

বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগের দারুণ ক্ষেত্র: বিএসইসি চেয়ারম্যান

বণিক বার্তা ডেস্ক

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশের প্রতি আকৃষ্ট করতে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার শীর্ষক রোড শো। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেতৃত্বে আয়োজন করা হয়েছে এ প্রচারণামূলক আয়োজন। এজন্য প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল এখন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছে। দলে রয়েছেন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সিকিউরিটিজ এজেন্সিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ ব্যক্তিরা।

আয়োজন প্রসঙ্গে বিএসইসির চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতির দ্রুত উন্নয়নের জন্য আরো বেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। আর সেজন্যই আন্তর্জাতিক বন্ধু ও অংশীদারদের কাছে আমরা বিনিয়োগের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে এসেছি। তাদের সামনে তুলে ধরছি বাংলাদেশে বিনিয়োগের নানা সুযোগ-সুবিধা ও মুনাফার কথা।তাদের বলছি যে, বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগের দারুণ ক্ষেত্র। সেখানে বিনিয়োগ করলে কেউ লোকসানে পড়বেন না।

যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম বলেন, যখন অন্য একটি দেশে কেউ বিনিয়োগ করে তখন তারা ব্যবসার জন্য কিছু ইনডিকেটর বা সূচক আছে কি না সেটি নিশ্চিত হয়। যেমন অর্থনৈতিক অবস্থা, সামাজিক অবস্থা, দেশের রেটিং ইত্যাদি। বাংলাদেশে এখন অর্থনৈতিক যে সূচকগুলি রয়েছে সবগুলো দারুণ অবস্থায় আছে। দেশে এখন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার ৬ শতাংশের বেশি। গত এক দশক ধরেই ভালো অবস্থায় রয়েছে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা। এমনকি করোনাকালীন সময়েও আমাদের প্রবৃদ্ধির হার ৫ শতাংশের বেশি ছিল। যা বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় ভালো। আমাদের জিডিপির হার ভালো, রফতানি প্রবৃদ্ধি, রেমিটেন্স আসার হার এগুলো খুব ভালো অবস্থায় আছে। এসবই হলো সূচক যা দেখে আপনি বুঝতে পারবেন যে একটি দেশ বিনিয়োগের জন্য খুব ভালো অবস্থায় আছে।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। এমন পরিস্থিতিতে দেশের পরিবেশ বিনিয়োগকারীদের জন্য ভালো হবে কিনা তা জানতে চান এক সাংবাদিক। জবাবে বিএসইসির চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশে ১৬ কোটি মানুষ। সে হিসেবে যদি দেখা যায় তাহলে সংক্রমণের পরিমাণ সে পরিমাণ বেশি নয়। সরকার পরিস্থিতি খুব ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে। মহামারীর সময়েও সব ধরনের রফতানিমুখী বাণিজ্য খোলা ছিল।ফলে এর খুব বেশি প্রভাব বাংলাদেশের ব্যবসা ক্ষেত্রে পড়েনি।

আরেক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশ থেকে উন্নত দেশে পরিণত করতে সব ধরনের চেষ্টা করছেন ব্যবসায়ীরা।দ্রুত উন্নয়নের জন্য আমাদের প্রচুর বিনিয়োগ প্রয়োজন। সে কারণেই আমরা বিদেশি বন্ধু ও অংশীদারদের আমন্ত্রণ জানাতে এসেছি। তারা যেন বাংলাদেশে যান এবং সেখানকার অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ সব ধরনের উন্নয়ন নিজের চোখেই দেখে আসেন। আমরা রাস্তাঘাটের উন্নয়ন করেছি, গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ করেছি, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করেছি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কক্সবাজারে একটি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে চান। যেটি শুধু পর্যটন কেন্দ্রীক হবে না, যেখানে ব্যবসার ক্ষেত্রও গড়ে উঠবে। মোটকথা গোটা বাংলাদেশেই এখন দারুণ উন্নয়ন হচ্ছে। সে কারণেই আমরা চাই আন্তর্জাতিক অংশীদাররা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুক। এতে আমরা যেমন লাভবান হবো তেমনি বিনিয়োগকারীরাও নিজেদের মুনাফাটুকু উঠিয়ে নিতে পারবেন। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে আসলে দুই পক্ষই লাভবান হবেন। 

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন