বৃহস্পতিবার | সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১ | ১ আশ্বিন ১৪২৮

টকিজ

ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলা ছবি

ফিচার ডেস্ক

ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবের হরাইজনস বিভাগের জন্য মনোনীত হয়েছে পশ্চিম বাংলার নির্মাতা আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্তর ওয়ানস আপন টাইম ইন ক্যালকাটা। ছবিতে পর্দার সামনে পেছনে কাজ করেছেন বাংলাদেশের একাধিক শিল্পী। অভিনয় করেছেন রিকিতা নন্দিনী শিমু। সহকারী শিল্প নির্দেশক হিসেবে কাজ করেছেন সাদ্দাম খন্দকার।

৭৮তম ভেনিস আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের হরাইজনস বিভাগের জন্য মনোনীত হয়েছে পশ্চিম বাংলার নির্মাতা আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্তর ওয়ানস আপন টাইম ইন ক্যালকাটা। আগামী সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসব।

ওয়ানস আপন টাইম ইন ক্যালকাটা আদিত্যর তৃতীয় ছবি। তার প্রথম ছবি আসা যাওয়ার মাঝের ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে প্রিমিয়ার হয়েছিল এবং সেরা প্রথম ছবির (ডেব্যু ফিল্ম) পুরস্কার পেয়েছিল।  

ওয়ানস আপন টাইম ইন ক্যালকাটা ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে আছেন শ্রীলেখা মিত্র। তিনি সোমবার রাতে তার ফেসবুক পেজে সুখবর শেয়ার করেছেন। ছবিটির পোস্টার দিয়ে ফেসবুকে শ্রীলেখা লিখেছেন, ভেনিস ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে আমাদের ছবি, আমার ছবিটি দেখানো হবে। মনে হচ্ছে আজ রাতে ঘুমাতে পারব না। চিয়ার্স টিম!

শ্রীলেখা ছাড়া ছবিতে আরো অভিনয় করেছেন ব্রাত্য বসু, কলকাতার মঞ্চের কয়েকজন অভিনয়শিল্পীসহ একদল নবীন শিল্পী। একটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন পরিচালকের বাবা ত্রিদিব সেনগুপ্ত।

প্রথম ছবির মতো তৃতীয় ছবির সাফল্যে খুশি পরিচালক আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্ত। দেশটির গণমাধ্যমকে তিনি জানান, দুই বছর ধরে তার ছবির কাস্টিং হয়। শুধু তাই নয়, অনেক দফা অডিশনের পর কাস্টিং চূড়ান্ত করেছেন। তিনি আরো জানান, ছবিটি বাস্তব ঘটনা অবলম্বনে তৈরি, যেখানে কলকাতা শহরের বিভিন্ন ঘটনা নিজের মতো করে পর্দায় তুলে ধরেছেন তিনি।

একটি টিভি চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাত্কারে আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্ত বলেন, ছবির ধারণা আমার মাথায় প্রথম আসে যখন দেখি বছর পাঁচেক আগে আইকনিক সায়েন্স সিটির ডাইনোসরটির ওপর ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হচ্ছিল।

শহরের আনাচে-কানাচের বিভিন্ন ঘটনা পরিচালক পর্দায় তুলে ধরবেন। কলকাতা শহরের প্রতি পরিচালকের ভালোবাসার গল্প ফুটে উঠবে ছবিতে। সন্তান হারানো এক মায়ের কাহিনী, যে নিজেকে খুঁজে পাওয়ার তাগিদই পর্দায় ওয়ান্স আপন টাইম ইন ক্যালকাটা।

পরিচালক আদিত্য জানান, থেকে ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসব। করোনা পরিস্থিতিতে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে উৎসবে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে পরিচালকের। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ভারতেও ছবিটি মুক্তি দিতে চান পরিচালক।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন