রবিবার | জুলাই ২৫, ২০২১ | ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

খেলা

প্রথম ওয়ানডে

লিটনের সেঞ্চুরিতে জিম্বাবুয়েকে ২৭৭ রানের টার্গেট দিল বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ওপেনিং ব্যাটসম্যান ও অধিনায়ক তামিম ইকবাল ফিরলেন শূন্য রানে। এরপর দলের বিপর্যয়ে হাল ধরলেন লিটন কুমার দাস। খেললেন ১১৪ বলে ১০২ রানের রাজসিক এক ইনিংস। ৮ বাউন্ডারিতে সাজানো তার এ ইনিংসে ভর করে আজ হারারে স্পোর্টস ক্লাবে প্রথম ওয়ানতে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে ২৭৭ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ।

ম্যাচের তৃতীয় ওভারেই পেসার ব্লেসিং মুজারাবানির শিকার হয়ে ফেরেন তামিম। নবম ওভারে দলের আরেক তারকা ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসানকেও ফেরান মুজারাবানি। আউট হওয়ার আগে ২৫ বলে ১৯ রান করেন সাকিব। তার বিদায়ের পর মোহাম্মদ মিঠুনকে দিয়ে জুটি গড়েন লিটন। মিঠুন ৫.২ ওভার টিকে থেকে ১৯ বলে ১৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন। এরপর মোসাদ্দেক হোসেন করেছেন ১৫ বলে ৫ রান। এভাবেই একের পর এক সতীর্থের আসা-যাওয়া করতে দেখলেন লিটন। অবশ্য তিনি ধৈর্য্য হারাননি। এরপর মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে ১০৩ বলে ৯৩ রানের কার্যকর এক জুটি গড়ে দলকে চাপমুক্ত করেন লিটন। এ জুটিতেই সবচেয়ে সাবলীল খেলেছেন তিনি। ৯৩ রানের মধ্যে তার একারই ৫৬, মাহমুদউল্লাহর ৩৩। সম্প্রতি টেস্ট থেকে অবসর নেয়া মাহমুদউল্লাহ ৫২ বলে ৩৩ রান করেন। 

এরপর আফিফ হোসেনের সঙ্গে ৩৪ বলে ৪০ রানের জুটি গড়ে দলের সংগ্রহ দুশ পার করে রিচার্ড এনগারাভার শিকার হন লিটন। 

তার বিদায়ের পর আফিফ হোসেনের ৩৫ বলে ৪৫ ও মেহেদী হাসান মিরাজের ২৫ বলে ২৬ রানে ভর করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৭৬ রান তুলতে সমর্থ হয় বাংলাদেশ। 

৪৫ ওয়ানডে ম্যাচে লিটনের এটা চতুর্থ সেঞ্চুরি। হাফ সেঞ্চুরি তিনটি। ২০২০ সালের ৬ মার্চ সিলেটে এই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই খেলেছিলেন ১৭৬ রানের ইনিংস। সিলেটে ওই সিরিজেই ১ মার্চ করেছিলেন ১২৬ রান। দুবাইয়ে ২০১৮ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর এশিয়া কাপ ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ১২১ রানের ইনিংসটি তার ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি।  

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন