রবিবার | জুন ২০, ২০২১ | ৬ আষাঢ় ১৪২৮

শেয়ারবাজার

জমি বিক্রি করবে গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স

নিজস্ব প্রতিবেদক

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের পরিচালনা পর্ষদ জমি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আফতাব নগরের ১০ কাঠা জমি বিক্রি করবে কোম্পানিটির পর্ষদ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে তথ্য জানা যায়।

কোম্পানিটি ঢাকার আফতাব নগরে জহুরুল ইসলাম এভিনিউয়ে সেক্টর--এর প্লট এম১৭ এম১৯ ১০ কাঠা জমি বিক্রি করবে, যার মূল্য হতে পারে সাড়ে কোটি টাকা। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন সাপেক্ষে জমি বেচতে পারবে গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স।

কোম্পানিটির আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি ২০২১ হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে টাকা ৭৬ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে হয়েছিল ৯৮ পয়সা। সে হিসেবে কোম্পানিটির আয় বেড়েছে ৭৮ পয়সা বা ৮০ শতাংশ। ৩১ মার্চ ২০২১ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৭০ টাকা ৭২ পয়সায়।

৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের মোট ৩২ শতাংশ লভ্যাংশ প্রদানের সুপারিশ করেছে গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ। এর মধ্যে ২৪ দশমিক শতাংশ নগদ দশমিক শতাংশ স্টক লভ্যাংশ। সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, লভ্যাংশসহ অন্যান্য এজেন্ডা পর্যালোচনার জন্য ৩০ মার্চ বেলা ১১টায় ডিজিটাল প্লাটফর্মে কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আহ্বান করা হয়। -সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট ছিল মার্চ।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির সম্মিলিত ইপিএস হয়েছে টাকা ১৬ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল টাকা ২৩ পয়সা (পুনর্মূল্যায়িত) হিসাবে সমাপ্ত হিসাব বছরে গ্রীন ডেল্টার ইপিএস বেড়েছে ১২১ দশমিক ৬৭ শতাংশ। ৩১ ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠানটির সম্মিলিত এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ৬৮ টাকা ৯৫ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ৬৮ টাকা ৩৩ পয়সা (পুনর্মূল্যায়িত)

২০১৯ হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের মোট ২০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছিল গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স। এর মধ্যে ১৫ শতাংশ নগদ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ। সে হিসাব বছরে কোম্পানিটির কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছিল ৩০ কোটি লাখ টাকা, যা আগের হিসাব বছরে ছিল ২৯ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। ২০১৮ হিসাব বছরে ১০ শতাংশ নগদ ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছিল তারা।

ডিএসইতে গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বশেষ দর ছিল ৬৩ টাকা ২০ পয়সা। গত এক বছরে শেয়ারটির দর ৪৭ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ৭৩ টাকা ৪০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করেছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন