শুক্রবার | মে ০৭, ২০২১ | ২৩ বৈশাখ ১৪২৮

পণ্যবাজার

চালের রফতানিমূল্য বৃদ্ধি

ভারত ও থাইল্যান্ডকে ছাড়িয়ে শীর্ষে ভিয়েতনাম

বণিক বার্তা ডেস্ক

চাল রফতানিতে বিশ্বের শীর্ষ দেশ ভারত। ভরতের পরই থাইল্যান্ডের অবস্থান থাকলেও গত বছর দেশটিকে টপকে গেছে ভিয়েতনাম। তবে রফতানিযোগ্য চালের মূল্যবৃদ্ধিতে শুধু থাইল্যান্ড নয়, ভারতকেও ছাড়িয়ে শীর্ষস্থান দখল করে নিয়েছে ভিয়েতনাম। দেশটির রফতানি চালের গড় মূল্য ঊর্ধ্বমুখী। বছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশটির চালের গড় রফতানিমূল্য বেড়ে ৫৪৭ ডলারে উন্নীত হয়েছিল, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৮ দশমিক শতাংশ বেশি। খবর দ্য থাইগার ভিয়েতনাম নেট।

ভিয়েতনামের কৃষি পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের কৃষি প্রক্রিয়াকরণ বাজার উন্নয়ন বিভাগ কর্তৃক প্রকাশিত এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ভিয়েতনাম ১১ লাখ টন চাল রফতানি করেছে। এর মাধ্যমে দেশটির আয় হয়েছে ৬০ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

প্রতিবেদন বলছে, গত বছরের তুলনায় রফতানিযোগ্য চালের গড় মূল্য বাড়লেও বছরের প্রথম প্রান্তিকে কমে গেছে রফতানির পরিমাণ। গত বছরের তুলনায় চাল রফতানির পরিমাণ কমেছে ৩০ দশমিক শতাংশ। এর আগের বছরও দেশটির চাল রফতানির পরিমাণ কমে যায়। গত বছরের প্রথম ১১ মাসে (জানুয়ারি-নভেম্বর) ভিয়েতনাম থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে সব মিলিয়ে ৫৭ লাখ টন চাল রফতানি করা হয়েছে, ২০১৯ সালের তুলনায় যা দশমিক শতাংশ কম। করোনা মহামারীর ধাক্কায় গত বছর রফতানির পরিমাণ কমতে শুরু করে।

চলতি বছরের মার্চে ভিয়েতনামে উৎপাদিত চালের গড় রফতানিমূল্য বেড়ে টনপ্রতি ৫৪৭ ডলারে পৌঁছেছে। এটি গত বছরের একই মাসের তুলনায় ১৯ দশমিক শতাংশ বেশি এবং চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির তুলনায় দশমিক শতাংশ বেশি। বছরের প্রথম প্রান্তিকে চালের গড় রফতানিমূল্য গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় ১৮ দশমিক শতাংশ বেড়েছে। ফলে ভিয়েতনামি চালের রফতানি মূল্য থাইল্যান্ড ভারতকে ছাড়িয়ে গেছে।

কৃষি প্রক্রিয়াকরণ বাজার উন্নয়ন বিভাগের মতে, চলতি মৌসুমে ভিয়েতনামে উৎপাদিত চালের রফতানি বাজারদরে ঊর্ধ্বগতি লক্ষ করা গেছে। বৈদেশিক অংশীদারদের কাছে শীত বসন্তকালীন চালের চাহিদা বাড়ায় মূল্যবৃদ্ধি ঘটছে।

এদিকে ভারত বিশ্বের শীর্ষ চাল রফতানিকারক হলেও দেশটির রফতানিযোগ্য চালের মূল্য খুবই কম। বছরের মার্চের শেষ দিক ভারতে খুদ চালের দাম শতাংশ বেড়ে যায়। চালের দাম দাঁড়ায় টনপ্রতি ৪০১ ডলারে। মার্চে থাইল্যান্ডে একই রকম চালের দাম ছিল ৫৩৮ ডলার প্রতি টন। মার্চের শেষ দিকে দাম কমে ৫০৯ ডলারে নেমে যায়।

গত বছর ভিয়েতনামের চাল রফতানির পরিমাণ ছিল ৬১ লাখ ৫০ হাজার টন। চাল রফতানি করে দেশটির আয় হয়েছে ৩৭০ কোটি ডলার। চালের বিক্রয়মূল্য রফতানির দিক থেকে ওই বছরই দেশটি তার প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোকে পেছনে ফেলে দিতে শুরু করে। সময় ভিয়েতনাম থাইল্যান্ডকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় শীর্ষ চাল রফতানিকারক দেশের তকমা গায়ে মাখে। রফতানিতে শীর্ষে রয়েছে ভারত।

ভিয়েতনাম ফুড অ্যাসোসিয়েশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, মার্চের শেষ পর্যায় থেকে খাদ্যপণ্য চালের সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় বেড়েছে চাল রফতানির পরিমাণ।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন