রবিবার | মে ০৯, ২০২১ | ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

পণ্যবাজার

পর্যাপ্ত শ্রমিক সংকট

মালয়েশিয়ায় পাম অয়েল উৎপাদন হ্রাসের আশঙ্কা

বণিক বার্তা ডেস্ক

শ্রমিক সংকটের কারণে উৎপাদনস্বল্পতার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে মালয়েশিয়ার পাম অয়েল শিল্প। ফলে চলতি বছর ফলন হ্রাসের আশঙ্কা করছে দেশটির পাম অয়েল এস্টেটগুলো। দেশটির এস্টেট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের বরাত দিয়ে মালয়েশিয়ান পাম অয়েল কাউন্সিল সম্প্রতি কথা জানিয়েছে।

গত বছর প্রতি হেক্টর জমিতে ১৬ দশমিক ৭৩ টন পাম অয়েল উৎপাদন করেছিল মালয়েশিয়া, যা ২০১৮ সালে হেক্টরপ্রতি ১৭ দশমিক ১৯ টন ২০১৭ সালে হেক্টরপ্রতি ১৭ দশমিক ৮৯ টন ছিল। তবে ২০১৭ সালের পর ক্রমাগত কমতে শুরু করে উৎপাদন প্রবৃদ্ধির হার।

মালয়েশিয়ান এস্টেস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক প্রেসিডেন্ট জেফরি ওং বলেন, আমাদের প্রতি হেক্টর জমিতে অন্তত ২৫-২৬ টন পাম অয়েল উৎপাদন করা উচিত। আর আমাদের কাছে যেসব কৃষি উপকরণ আছে তা দিয়েই এই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পর্যাপ্ত পাম অয়েলের আবাদ করা হচ্ছে না। এছাড়া পাম অয়েল এস্টেটগুলো বিদেশী শ্রমিকদের ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল। কিন্তু কভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে সরকার অন্য দেশ থেকে শ্রমিক নিয়ে আসার অনুমতি দিচ্ছে না। ফলে এস্টেটগুলোতে পাম অয়েল আবাদের ওপর প্রভাব পড়ছে।

মালয়েশিয়ান পাম অয়েল অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট দাতো নাগিব ওয়াহাব বলেন, শ্রমিক সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। ফলে ছোট বড় সব পাম অয়েল এস্টেটের ওপর এর প্রভাব পড়ছে। এস্টেটগুলো অপরিশোধিত পাম অয়েলের সঠিক দামও পাচ্ছে না বলে জানান নাগিব ওয়াহাব।

দেশটির এস্টেট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন জানায়, চলতি বছর কোটি ৯৫ লাখ থেকে কোটি ৯৬ লাখ টন অপরিশোধিত পাম অয়েল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছর অপরিশোধিত পাম অয়েল উৎপাদন হয়েছিল কোটি ৯১ লাখ টন। ২০১৯ সালে উৎপাদনের পরিমাণ ছিল কোটি ৯৮ লাখ টন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন