রবিবার | মে ০৯, ২০২১ | ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

খেলা

ক্যান্ডি টেস্ট

শান্তর সেঞ্চুরিতে ৩০০ পার বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক

অনবদ্য খেলেও মাত্র ১০ রানের জন্য সেঞ্চুরি করার সুযোগ হারান তামিম ইকবাল। তবে সেই ভুলটি করেননি নাজমুল হোসেন শান্ত। ক্যান্ডিতে গতকাল ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করে বাংলাদেশকে সংহত অবস্থান গড়ে দিয়েছেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটের পরীক্ষিত ব্যাটসম্যানের ১২৬ রানের নিখাদ ইনিংসে ভর দিয়ে বাংলাদেশ পেরিয়ে গেছে ৩০০ রান। প্রথম দিন শেষে দলের সংগ্রহ দুই উইকেটে ৩০২। শান্ত ১২৬ মুমিনুল হক ৬৪ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন।

আগ্রাসন আর সাবধানতার অপূর্ব মিশেলে দিনটি নিজেদের করে নিল বাংলাদেশ। ক্যান্ডির পাল্লেকেলে ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে গতকাল প্রথম দিন সকালে ঘাসে মোড়ানো উইকেটে ঝড় তোলেন তামিম। একের পর এক বাউন্ডারিতে বেসামাল করে তোলেন লংকান বোলারদের। যদিও দ্বিতীয় সেশনের মাঝামাঝি ব্যক্তিগত ৯০ রানে বিদায় নেন তিনি। এর পরের অংশটুকু সম্পূর্ণ ভিন্ন। একেবারেই টেস্ট মেজাজে খেলেছেন শান্ত মুমিনুল। অধিনায়ককে নিয়ে অবিচ্ছিন্ন থেকে দিন পার করেন শান্ত।

অথচ দিনটি অন্য রকম হওয়ার আভাসই ছিল। সকালে খেলতে নেমেই রানের মাথায় ওপেনার সাইফ হাসানকে হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। যদিও এরপর স্বভাবসুলভ মারমুখী ব্যাটিংয়ে বিশ্ব ফার্নান্দো সুরাঙ্গা লাকমলদের চোখ রাঙানিকে এক হলকায় উড়িয়ে দেন তামিম। তার রাজসিক ব্যাটিংয়ে প্রথম সেশনে কর্তৃত্ব করে বাংলাদেশই। ২৭ ওভারে উইকেটে ১০৬ রান নিয়ে মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে যান তামিমরা। দ্বিতীয় সেশনে ২৬ ওভারে এক উইকেট হারিয়ে আরো ৯৪ রান তোলে বাংলাদেশ। আর তৃতীয় সেশনে আসে বিনা উইকেটে ১০২ রান।

দিন শেষে সব আলো নিজের দিকে টেনে নিতে সমর্থ হন শান্ত। যদিও বাংলাদেশের ভালো সংগ্রহের ভিতটা গড়ে দিয়ে যান তামিম। তিনি ১০১ বলে ১৫ বাউন্ডারির সাহায্যে করেন ৯০ রান। এটা তার ২৮তম হাফ সেঞ্চুরি। পথে ২২৫ বলে ১৪৪ রানের দারুণ এক পার্টনারশিপ গড়েন শান্তকে নিয়ে। তামিমের বিদায়ের পর মুমিনুলকে নিয়ে ১৫০ রানের পার্টনারশিপ গড়েন শান্ত। তারা রান তুলেছেন ৩১১ বলের মোকাবেলায়।

খুবই ধৈর্যশীল আর নিয়ন্ত্রিত একটি ইনিংস খেলেন শান্ত। ২৩৫ বলে তিন অংক ছুঁয়েছেন ২২ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান। ১২৬ রান করতে তিনি খেলেছেন ২৮৮ বল, বাউন্ডারি ১৪টি আর ছক্কা মেরেছেন একটি। মুমিনুল ১৫০ বল খেলে বাউন্ডারির সাহায্যে ৬৪ রান করেন।

আজ নিজের দলের ইনিংসটা আরো বড় করার লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নামবেন শান্ত, আর মুমিনুল দেশের বাইরে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি পেতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।

দিনের খেলা শেষে সেঞ্চুরি নিয়ে অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন শান্ত। গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, গত কয়েক মাস কঠোর পরিশ্রমের পর অবশেষে টেস্টে বড় ইনিংস খেলতে পারায় স্বস্তি পাচ্ছি। মাঝে আমি রান না পেলেও নিজের ওপর বিশ্বাস হারাইনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন