রবিবার | মে ০৯, ২০২১ | ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

শেয়ারবাজার

মূল্যসংবেদনশীল তথ্য নেই হাইডেলবার্গ সিমেন্টের

নিজস্ব প্রতিবেদক

সাম্প্রতিক সময়ে অস্বাভাবিক শেয়ারদর লেনদেন বৃদ্ধির পেছনে অপ্রকাশিত কোনো মূল্যসংবেদনশীল তথ্য নেই হাইডেলবার্গ সিমেন্ট বাংলাদেশ লিমিটেডের। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) এক চিঠির জবাবে তথ্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত এপ্রিল সমাপনী দরের ভিত্তিতে হাইডেলবার্গ সিমেন্টের শেয়ারদর ছিল ১৬২ টাকা ৬০ পয়সা। এর পর থেকেই শেয়ারটির দর অস্বাভাবিক হারে বাড়তে থাকে। সর্বশেষ গতকাল শেয়ারটি ২১৪ টাকা ৮০ পয়সায় হাতবদল হয়েছে। শেয়ারদর বৃদ্ধির পাশাপাশি কোম্পানিটির লেনদেনও অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে। ১১ এপ্রিল কোম্পানিটির হাজার ৮১টি শেয়ার লেনদেন হয়। এর পর থেকেই টানা লেনদেন বাড়তে শুরু করে। সর্বশেষ গতকাল লাখ হাজার ৪৭২টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে।  

সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) হাইডেলবার্গ সিমেন্টের সমন্বিত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে টাকা পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১৭ পয়সা। তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৪৮ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল টাকা ৫৩ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৬৮ টাকা ৮৮ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময় শেষে যা ছিল ৭৫ টাকা ৩৫ পয়সা।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি হাইডেলবার্গ সিমেন্ট। প্রথমবারের মতো কোনো হিসাব বছরে কোম্পানিটি লভ্যাংশ ঘোষণা করতে ব্যর্থ হয়। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে টাকা ৩০ পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরে ইপিএস ছিল ১৪ টাকা ৩৩ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠানটির এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৭১ টাকা ৮৮ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ৮২ টাকা ৬৮ পয়সা।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন