শুক্রবার | এপ্রিল ২৩, ২০২১ | ১০ বৈশাখ ১৪২৮

টেলিকম ও প্রযুক্তি

গুগল বনাম ওরাকল

কপিরাইট মামলায় গুগলের পক্ষে রায় মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের

বণিক বার্তা ডেস্ক

গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে ওরাকলের প্রযুক্তি কপি করা হয়েছে, এক দশক ধরে চলা মামলার নিষ্পত্তি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালত। নিম্ন আদালত ওরাকলের পক্ষে রায় দিলেও উচ্চ আদালতে গুগলকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। খবর বিবিসি।

২০১০ সালে কপিরাইট লঙ্ঘন মামলায় ওরাকলের অভিযোগ ছিল, গুগল তাদের কম্পিউটার কোড নকল করেছে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের রায়ে বলা হচ্ছে বিশ্বের বেশির ভাগ স্মার্টফোনে যে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহূত হচ্ছে, তা যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কপিরাইট আইন লঙ্ঘন করছে না। গুগল তাদের অ্যান্ড্রয়েডে ওরাকলের যে সফটওয়্যার ব্যবহার করেছে, তা যুক্তরাষ্ট্রের কপিরাইট আইনের ফেয়ার ইউজ নীতিমালা লঙ্ঘন করেনি। গুগলের বিপক্ষে নিম্ন আদালতের দেয়া রায় - বাতিল করেন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকরা।

বিশ্বের ৭০ শতাংশ স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করা হয়। গুগলের বিরুদ্ধে গেলে তা শতকোটি ডলার জরিমানায় ঠেকত। রায়ে বিচারপতি স্টিফেন বেয়ার লেখেন, ওরাকল তাদের কোডে কপিরাইট আরোপ করে ভবিষ্যতে জনসাধারণের সৃজনশীলতা নতুন প্রোগ্রাম তৈরির সম্ভাবনা সীমিত করবে। প্রোগ্রামিংয়ের ক্ষেত্রে চালকের আসনে বসবে ওরাকল।

ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক দুই প্রযুক্তি জায়ান্ট ওরাকল গুগলের বার্ষিক আয় ১৭ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের বেশি। ২০১০ সালে সানফ্রান্সিসকোর ফেডারেল আদালতে গুগলের বিরুদ্ধে কপিরাইট লঙ্ঘনের মামলা করেছিল ওরাকল। মামলা সম্পর্কে অবহিত দুটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানায়, শুরুতে ওরাকল ৮০০ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দাবি করেছিল। পরবর্তী সময়ে ওই দাবি হাজার কোটি ডলার থেকে হাজার কোটি ডলারে দাঁড়ায়।

গুগলের বিরুদ্ধে ওরাকলের অভিযোগ, জাভা সফটওয়্যারের ১১ হাজার ৩৩০ লাইনের কম্পিউটার কোড কপি করেছে গুগল। একই সঙ্গে জাভার অনুকরণে অ্যান্ড্রয়েড তৈরি করেছে, যার মাধ্যমে শতকোটি ডলার কামিয়েছে অ্যালফাবেট নিয়ন্ত্রণাধীন প্রযুক্তি জায়ান্টটি।

সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে এবার ওরাকল বলছে, এতে গুগলের ক্ষমতা আরো বাড়ল এবং অন্যান্য কোম্পানির প্রতিযোগিতার সুযোগ ক্ষতিগ্রস্ত হলো। এক বিবৃতিতে কোম্পানির কৌঁসুলি ডরিয়ান ড্যালি বলেন, তারা জাভা থেকে চুরি করেছে এবং তার পক্ষে সাফাইয়ের জন্য এক বছর ধরে লড়েছে, যা কেবল রকম মনোপলিস্ট জায়ান্টের পক্ষেই সম্ভব।

এদিকে গুগল এটাকে পুরো সফটওয়্যার শিল্পেরই বিজয় হিসেবে দেখছে। প্রযুক্তি খাতসংশ্লিষ্টরাও রায়ে আনন্দ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, ওরাকলের বিজয় প্রোগ্রামিংয়ে সুস্থ প্রতিযোগিতায় প্রতিবন্ধক হিসেবে হাজির হতো।

উল্লেখ্য, ফেডারেল সার্কিট আদালতে ২০১৪ ২০১৮ সালে পরাজিত হয়েছিল গুগল। আবার ২০১৬ সালে গুগলকে রেহাই দেয় একদল জুরি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন