সোমবার | এপ্রিল ১৯, ২০২১ | ৫ বৈশাখ ১৪২৮

শেয়ারবাজার

সহযোগী প্রতিষ্ঠানের কাছে জমি বিক্রি

সিদ্ধান্ত থেকে সরে এল দেশবন্ধু পলিমার

নিজস্ব প্রতিবেদক

সহযোগী প্রতিষ্ঠান দেশবন্ধু প্যাকেজিং লিমিটেডের কাছে ১০৩ ডেসিমেলের বেশি পরিমাণ জমি বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছিল দেশবন্ধু পলিমার লিমিটেড। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সঙ্গে বন্ধকী সম্পত্তি খালাসের বিষয়ে কোনো সমঝোতা না হওয়ায় সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে তথ্য জানা গেছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর দেশবন্ধু পলিমারের বিশেষ সাধারণ সভায় (ইজিএম) জমি বিক্রির এজেন্ডা নিয়ে পর্যালোচনা হয়। এছাড়া পরিকল্পনাটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সঙ্গে লোন সেটলমেন্ট বন্ধকী সম্পত্তি খালাসের বিষয়েও আলোচনা করেছে কোম্পানিটি। কিন্তু বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছে তারা। আর বন্ধকী সম্পত্তি খালাসের বিষয়ে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না এলে জমি বিক্রিও সম্ভব নয়। কারণে দেশবন্ধু প্যাকেজিংয়ের কাছে জমি বিক্রির সিদ্ধান্ত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশবন্ধু পলিমারের পরিচালনা পর্ষদ।

সর্বশেষ এনটিটি সার্ভিল্যান্স রেটিংয়ে দেশবন্ধু পলিমারের অবস্থান দীর্ঘমেয়াদে মাইনাস স্বল্পমেয়াদে এসটি-থ্রি ৩০ জুন সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রত্যয়ন করেছে ন্যাশনাল ক্রেডিট রেটিংস লিমিটেড (এনসিআর)

সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য উদ্যোক্তা পরিচালক বাদে অন্য শেয়ারহোল্ডারদের শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে দেশবন্ধু পলিমার। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১০ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৪৭ পয়সা। ৩০ জুন কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১০ টাকা ৪৮ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১০ টাকা ৭২ পয়সা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) দেশবন্ধু পলিমারের শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৩৪ পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে পয়সা, যেখানে আগের হিসাব বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ১৪ পয়সা।

২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল দেশবন্ধু পলিমার। তার আগের হিসাব বছরেও একই হারে নগদ লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা। এছাড়া ২০১৭ হিসাব বছরে ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন