মঙ্গলবার | এপ্রিল ২০, ২০২১ | ৬ বৈশাখ ১৪২৮

টেলিকম ও প্রযুক্তি

এনভিডিয়া-এআরএম চুক্তি এফটিসির তদন্তের মুখে

বণিক বার্তা ডেস্ক

ব্রিটিশ চিপ ডিজাইনার এআরএম হোল্ডিংস অধিগ্রহণ করছে এনভিডিয়া করপোরেশন। অধিগ্রহণ চুক্তিটির বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে মার্কিন ফেডারেল ট্রেড কমিশন (এফটিসি) এর আগে যুক্তরাজ্যের কম্পিটিশন রেগুলেটরও দ্য কম্পিটিশন অ্যান্ড মার্কেটস অথরিটি (সিএমএ) অধিগ্রহণ চুক্তিটির বিষয়ে তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেয়। খবর ফাইন্যান্সিয়াল টাইমস।

গত বছর সেপ্টেম্বরে জাপানভিত্তিক সফটব্যাংকের কাছ থেকে এআরএম অধিগ্রহণে হাজার কোটি ডলারে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে এনভিডিয়া করপোরেশন। শুরু থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে, চুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ চিপ প্রযুক্তি খাতে প্রতিযোগিতা নষ্ট করবে। যে কারণে অধিগ্রহণ ঠেকাতে গুগল, মাইক্রোসফট কোয়ালকমসহ বিশ্বের বৃহৎ কয়েকটি প্রযুক্তি জায়ান্ট জোটবদ্ধ হয়েছে। গত সপ্তাহে জোটের পক্ষ থেকে মার্কিন অ্যান্টিট্রাস্ট নিয়ন্ত্রকের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে।

বৈশ্বিক চিপ ইন্ডাস্ট্রিতে অধিগ্রহণ একটি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি করবে বলে সতর্ক করা হয়। এনভিডিয়া এআরএম অধিগ্রহণের মূল্য নগদ অর্থ শেয়ারের মাধ্যমে পরিশোধ করতে আগ্রহ প্রকাশ করে। এনভিডিয়া নিজেদের গ্রাফিকস চিপের জন্য বিশ্বজুড়ে ব্যাপকভাবে পরিচিত। বিভিন্ন ডিভাইসের মাধ্যমে ভিডিও গেম খেলার সুযোগ দিয়ে থাকে প্রতিষ্ঠানটির গ্রাফিকস চিপ। শুধু গ্রাফিকস চিপ নয়; আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, স্বয়ংক্রিয় গাড়ি এবং ডাটা সেন্টারের জন্য চিপ তৈরি করে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। এআরএম হোল্ডিংসকে অধিগ্রহণের উদ্যোগ প্রতিষ্ঠানটির চিপ ডিজাইন খাতে ব্যবসা সম্প্রসারণের পরিকল্পনার বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে এআরএম হোল্ডিংস ফোন এবং ট্যাবলেট ডিভাইসের জন্য চিপ প্রযুক্তি সরবরাহ করে আসছে। পাশাপাশি অত্যাধুনিক সব গাড়ি, ডাটা সেন্টার এবং অন্যান্য ডিভাইসের জন্য প্রসেসর সরবরাহের কার্যক্রম জোরদার করেছে। এআরএম নিজে কোনো চিপ তৈরি করে না। বরং সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি ডিজাইন সরবরাহ করে অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে চিপ তৈরিতে সহায়তা দিয়ে আসছে। এজন্য অবশ্য প্রতিষ্ঠানটিকে লাইসেন্স ফি পরিশোধ করতে হয়। বেশ আগে থেকেই এনভিডিয়ার সঙ্গেও ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে এআরএম। ২০১৯ সালে এক ঘোষণায় এনভিডিয়া জানিয়েছিল, তারা সুপার কম্পিউটার তৈরির জন্য চিপ উন্নয়ন করছে, যা এআরএমের প্রসেসরের সঙ্গে কাজ করবে। সুপার কম্পিউটার জলবায়ু পরিবর্তন এবং পারমাণবিক অস্ত্র মডেলিংয়ে কাজ করবে বলে জানানো হয়।

গত সপ্তাহে গুগল, মাইক্রোসফট কোয়ালকমের জোট দাবি জানায়, অধিগ্রহণ চুক্তিটি এনভিডিয়াকে ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি সরবরাহকারীতে পরিণত করবে। লাইসেন্সিং চুক্তির আওতায় অ্যাপল ইনকরপোরেশন, ইন্টেল করপোরেশন, স্যামসাং ইলেকট্রনিকস কোম্পানি, অ্যামাজন ডটকম ইনকরপোরেশন এবং চীনের হুয়াওয়ে টেকনোলজিস কোম্পানি লিমিটেডকে চিপ প্রযুক্তি সরবরাহের সঙ্গে জড়িত প্রতিষ্ঠানটি।

২০১৬ সালে এআরএম হোল্ডিংসকে অধিগ্রহণ করেছিল সফটব্যাংক গ্রুপ করপোরেশন। অধিগ্রহণের জন্য প্রতিষ্ঠানটি তখন হাজার ২০০ কোটি ডলার পরিশোধ করেছিল, যা ওই সময় সফটব্যাংক গ্রুপ করপোরেশনের সবচেয়ে বড় অংকের বিনিয়োগ ছিল। চিপ ডিজাইন প্রতিষ্ঠান হিসেবে এআরএমের সুনাম রয়েছে। বর্তমানে সনি, অ্যাপল, স্যামসাং হুয়াওয়েসহ বিশ্বের প্রায় ৯৫ শতাংশ স্মার্টফোনে ব্যবহার হচ্ছে এআরএমের ডিজাইন করা চিপ।

এআরএম হোল্ডিংসের নিয়ন্ত্রণ সফটব্যাংকের কাছে গেলেও চুক্তি অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয় ক্যামব্রিজ থেকেই পরিচালিত হয়ে আসছে। শুরুতে ধারণা করা হয়েছিল সফটব্যাংকের বিনিয়োগ এবং নিয়ন্ত্রণে নতুন গতি পাবে এআরএম। প্রতিষ্ঠানের কর্মীর সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হবে। কিন্তু বাস্তবে প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হয় প্রতিষ্ঠানটি। এখন বলা হচ্ছে, ব্যবসায় সুবিধা করতে না পেরেই এআরএমের মালিকানা থেকে সরে দাঁড়াচ্ছে সফটব্যাংক।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন