বৃহস্পতিবার | জুন ১৭, ২০২১ | ৩ আষাঢ় ১৪২৮

খবর

২১ আগস্ট মঞ্চ লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছুড়েছিলেন ইকবাল

বণিক বার্তা অনলাইন

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত পলাতক আসামি ইকবাল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। পরে এ বিষয়ে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানিয়েছে, ২০০৪ সালে ২১ আগস্ট শেখ হাসিনার সভামঞ্চ লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছুড়েছিলেন এই ইকবালও।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম মো. ইকবাল হোসেন ওরফে ইকবাল ওরফে জাহাঙ্গীর ওরফে সেলিম। তাকে ভোর ৩টার দিকে রাজধানীর দিয়াবাড়ি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

তাকে এখনো দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের সুযোগ এখনো পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে র‌্যাব মহাপরিচালক জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইকবাল বলেছেন, মুফতি হান্নানের নির্দেশে ইকবাল মঞ্চের দিকে গ্রেনেড ছুড়েছিলেন।

র‌্যাব প্রধান জানান, ঝিনাইদহের ইকবাল এক সময় ছাত্রদলে যুক্ত থাকলেও পরে জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদে (হুজি) জড়িয়ে পড়েন। ২০০৮ সালে তিনি  মালয়েশিয়া পালিয়ে গিয়েছিলেন। ২০২০ সালের শেষ দিকে অবৈধ অভিবাসী হিসেবে শনাক্ত হলে মালয়েশিয়া সরকার তাকে ঢাকায় ফেরত পাঠায়।

জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) দেওয়া তথ্যে র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ আভিযানিক দল তাকে গ্রেফতার করে।

২০০৪ সালে ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনার সমাবেশে গ্রেনেড হামলা হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে এই মামলার অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর সেই মামলার রায়। ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল রায়ে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দেয়।

তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ যে ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে ইকবালও রয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয় আরও ১১ আসামির।

দণ্ডিত ৩৩ আসামি কারাগারে থাকলেও পলাতক ছিলেন ১৬ জন। ইকবাল গ্রেপ্তার হওয়ায় এখন পলাতক রইলেন ১৫ জন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন