রবিবার | ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১ | ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭

খেলা

আইপিএল নিলাম

কেকেআরে সাকিব রাজস্থানে মুস্তাফিজ, সবচেয়ে দামি ক্রিস মরিস

ক্রীড়া ডেস্ক

চলতি বছর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে সাবেক দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলবেন বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তাকে ৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে কিনেছে দলটি। বাংলাদেশের আরেক তারকা পেস বোলার মুস্তাফিজুর রহমানকে ১ কোটি রুপিতে দলে টেনেছে রাজস্থান রয়্যালস। 

আজ বৃহস্পতিবারের নিলামে আইপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি দামে বিকিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার ক্রিস মরিস। তাকে রেকর্ড ১৬ কোটি ২৫ লাখ রুপিতে কিনেছে মুস্তাফিজের দল রাজস্থান। 

দুইবারের শিরোপাজয়ী সাকিব আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের নিষেধাজ্ঞার কারণে আইপিএলের ২০২০ আসরে খেলতে পারেননি। মাঝে এক বছর ছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে। গত বছর শেষের দিকে নিষেধাজ্ঞা শেষ হয়। এ ক্রিকেটার সদ্যই ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেট দিয়ে ফেরেন ২২ গজে। এবার ভালো দামে দল পেলেন আইপিএলেও।

সাকিবের ভিত্তিমূল্য ছিল ২ কোটি রুপি। তাকে পেতে লড়াই হয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ও কেকেআরের মধ্যে। পাঞ্জাব ২ কোটি ৬০ লাখ রুপি পর্যন্ত খরচ করতে রাজি ছিল। যদিও ৩ কোটি ২০ লাখ রুপি দর হাঁকিয়ে তাকে লুফে নেয় শাহরুখ খানের কেকেআর। 

২০১২ ও ২০১৪ সালে কেকেআরের হয়ে দুবার আইপিএল শিরোপা জয় করেন সাকিব। দলটিতে ২০১১ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত টানা খেলার পর ২০১৮ সালে যোগ দেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদে। সেখানে দুই মৌসুম কাটানোর পর আইসিসির নিষেধাজ্ঞার কারণে গত মৌসুমটি খেলা হয়নি তার। আবার পুরনো দলের জার্সিতে আইপিএলে ফিরছেন তিনি। 

মুস্তাফিজের এটা আইপিএলে তৃতীয় দল। ২০১৬ সানরাইজার্স দিয়ে ধূমকেতুর মতো বিশ্ব ক্রিকেটে আবির্ভাব তার। প্রথম মৌসুমেই সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার জয় করেন। সানরাইজার্সে দুই মৌসুম কাটানোর পর তাকে দলে টেনে নেয় মুম্বাই। এবার তিনি খেলবেন রাজস্থানে। ২০২০ আইপিএল নিলামে ছিলেন অবিক্রীত। 

আইপিএলে মোট ২৪ ম্যাচ খেলেছেন মুস্তাফিজ। এর মধ্যে সানরাইজার্সের হয়ে প্রথম মৌসুমে ১৬ ম্যাচ ও পরের মৌসুমে মাত্র এক ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ২০১৮ সালে মুম্বাইয়ের হয়ে তিনি খেলেন সাকল্যে ৭ ম্যাচ। 

এদিকে আইপিএল ইতিহাসে দেশী ও বিদেশী মিলিয়ে সবচেয়ে ব্যয়বহুল খেলোয়াড় হওয়ার রেকর্ড গড়লেন মরিস। তাকে পেতে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয় রাজস্থান, বেঙ্গালুরু, মুম্বাই ও পাঞ্জাবের মধ্যে। যদিও শেষ পর্যন্ত তাকে দলভুক্ত করতে সমর্থ হয় রাজস্থান। দলটির হয়ে ২০১৫ সালে যুগ্মভাবে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করেন তিনি। 

দামের দিক থেকে মরিস টপকে গেলেন যুবরাজ সিং (১৬ কোটি রুপি, ২০১৫), প্যাট কামিন্স (১৫.৫ কোটি, ২০২০) ও বেন স্টোকসকে (১৪.৫ কোটি, ২০১৭)। 

মরিস ছাড়াও এবার ভালো ডাকে বিকিয়েছেন নিউজিল্যান্ড ফাস্ট বোলার কাইল জেমিসন (রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, ১৫ কোটি রুপি), অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু, ১৪.২৫ কোটি রুপি), অস্ট্রেলিয়ান ফাস্ট বোলার ঝাই রিচার্ডসন (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, ১৪ কোটি রুপি), ভারতের কৃষ্ণাপ্পা গৌতম (চেন্নাই সুপার কিংস, ৯.২৫ কোটি রুপি), অস্ট্রেলিয়ান ফাস্ট বোলার রিলি মেরেডিথ (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, ৮ কোটি রুপি), ভারতের শাহরুখ খান (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, ৮ কোটি রুপি), ইংলিশ অলরাউন্ডার টম কারান (দিল্লি ক্যাপিটালস, ৫.২৫ কোটি রুপি), অস্ট্রেলিয়ার পেসার নাথান কোল্টার-নাইল (মুম্বাই ইন্ডিয়ানস, ৫ কোটি রুপি), ভারতীয় অলরাউন্ডার শিভাম দুবে (রাজস্থান, ৪.৪০ কোটি রুপি), অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার ময়েজেস হেনরিক (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, ৪.২০ কোটি রুপি) ও অ্যাডাম মিলনে (মুম্বাই ইন্ডিয়ানস, ৩.২০ কোটি রুপি)। 

সূত্র: ক্রিকইনফো, বিবিসি ও এনডিটিভি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন