বৃহস্পতিবার | ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

প্রথম পাতা

ভারতের উপহার ২০ লাখ ডোজ টিকা আসছে কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

কভিড-১৯ মহামারীর মধ্যে বাংলাদেশকে উপহারস্বরূপ ২০ লাখ ডোজ কভিড ভ্যাকসিন দিচ্ছে ভারত সরকার। আগামীকাল টিকা দেশে আসার কথা রয়েছে। এরই মধ্যে ভ্যাকসিন আনার অনুমতিও দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

বিষয়টি নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বণিক বার্তাকে বলেন, ভারত সরকার উপহার হিসেবে এই ২০ লাখ ডোজ টিকা আমাদের সরবরাহ করছে। এরই মধ্যে টিকা আনার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আশা করছি বুধবার (আগামীকাল) নাগাদ ভ্যাকসিন দেশে পৌঁছবে।

এর আগে গতকাল সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক জানান, সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই দেশে আসছে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা প্রথম ৫০ লাখের চালান। এর আগেই আসতে পারে ভারত সরকারের উপহার হিসেবে দেয়া কিছু টিকা। যদিও সেই টিকা কোন ব্র্যান্ডের বা সংখ্যা কত তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।

করোনা টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মোকাবেলায় বিশেষ নজরদারি থাকছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, টিকা দেয়ার পর কী হবে, আমরা তা জানি না। আমরা অন্যান্য দেশে দেখেছি কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। টিকার বুথগুলো হাসপাতালের কাছে থাকলে ভালো হয়।

জাহিদ মালেক আরো বলেন, চার লাখ মানুষের জন্য ফাইজারের আট লাখ ডোজ আসবে। ভ্যাকসিন সংরক্ষণে কোল্ড চেইন রয়েছে সীমিত। এজন্য মাইনাস ৭০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় ভ্যাকসিন রাখার উপযোগী রেফ্রিজারেটর আনা হচ্ছে জাতিসংঘের সহায়তায়। নীতিমালা মেনে প্রাইভেট সেক্টরে যেকোনো প্রতিষ্ঠান চাইলেই ভ্যাকসিন আনতে পারবে। তবে দাম সরকারের নিয়ন্ত্রণ থাকবে।

সম্প্রতি ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশন থেকে এক জরুরি চিঠিতে জানানো হয়, বিশেষ বিমানে করে ২০ লাখ টিকা দেশে আসবে। তবে বাংলাদেশের সঙ্গে যে ক্রয় চুক্তি হয়েছে এটি তার অন্তর্ভুক্ত নয়। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে এগুলো বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতার নিদর্শন হিসেবে দেয়া হবে।

হাইকমিশনের চিঠিতে বলা হয়েছে, ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতার নিদর্শন হিসেবে ২০ লাখ করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা দেয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করা হয়েছে। যা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি। একটি বিশেষ বিমানে ২০ জানুয়ারি ভারত থেকে ঢাকায় পাঠানো হবে এসব টিকা। চালানে মোট ২৯ হাজার ৪০০ ভায়ল থাকবে। যার ওজন ৭৮০ কেজি। প্রতিটি বাক্সে ১২০০ ভায়ল প্যাকেট করা থাকবে। যার প্রতি প্যাকেটের ওজন ৩২ কেজি।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন