শনিবার | জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | ২ মাঘ ১৪২৭

দেশের খবর

তারাব পৌরসভা নির্বাচন

সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তারাব পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলা করা হয়েছে। গতকাল সকালে রূপগঞ্জ থানায় ১৪১ জনকে আসামি করে মামলা দুটি করা হয়। মামলার পর দুই কাউন্সিলর প্রার্থীসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এর আগে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ২৫ জন আহত হন।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান জানান, ১৬ জানুয়ারি তারাব পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন ( ডালিম প্রতীক) আরেক প্রার্থী রুহুল আমিন (উটপাখি প্রতীক) মিছিল শোডাউনের আয়োজন করেন। সন্ধ্যায় উভয় পক্ষের মিছিল নোয়াপাড়া মহিলা মাদ্রাসার সামনে মুখোমুখি হলে সমর্থরা উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে সন্ধ্যা থেকে রাত ৭টা পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২৫ জন আহত হন। সময় হামলাকারীরা চারটি মোটরসাইকেল, একটি প্রাইভেটকারসহ দুটি টেক্সটাইল মিলে ব্যাপক ভাংচুর করে। খবর পেয়ে রাত ৭টার দিকে নারায়ণগঞ্জ জেলার নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ার রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফিফা খাঁন, নারায়ণগঞ্জ জেলা সহকারী পুলিশ সুপার (-সার্কেল) মাহীন ফরাজী, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহাবুবুর রহমান রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদুল হাসান ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ঘটনায় গতকাল সকালে কাউন্সিলর প্রার্থী রুহুল আমিনের চাচাতো ভাই নাজমুল হাসান কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ অজ্ঞাতনামা আরো ৮০ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। এছাড়া কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের ছোট ভাই শাহজালাল বাদী হয়ে অন্য কাউন্সিলর প্রার্থী রুহুল আমিনসহ ১৫ জনের নাম উল্লেখ অজ্ঞাতনামা ৩০ জনকে আসামি করে রূপগঞ্জ থানায় আরেকটি মামলা করেন। মামলার ভিত্তিতে পুলিশ কাউন্সিলর প্রার্থী রুহুল আমিন এবং আনোয়ার হোসেন, রাজিব, সোহেল, হাবিবুর রহমান সাইদুর রহমান নামে ছয়জনকে গ্রেফতার করে।

ব্যাপারে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ার রহমান বলেন, দুই কাউন্সিলর প্রার্থী সমর্থকের মধ্যে সংঘাতের ঘটনায় রূপগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।  বর্তমানে ওই এলাকায় চারজন ম্যাজিস্ট্রেট টহলরত আছেন।

এদিকে গতকাল দুপুরে গ্রেফতার দুই কাউন্সিলর প্রার্থীকে আদালতে পাঠায় পুলিশ। আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মুচলেকা নিয়ে জামিন দেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন