মঙ্গলবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২১ | ১৩ মাঘ ১৪২৭

শিল্প বাণিজ্য

কাঁচামাল ঘোষণায় বন্দরে এলো ৪০ টন পর্দা ও সোফার কাপড়

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ব্যুরো

ইপিজেডের রফতানিমুখী একটি প্রতিষ্ঠানের নামে ব্লিচড ফেব্রিক ঘোষণায় চীন থেকে আমদানি হওয়া দুই কনটেইনারে পাওয়া গেছে দেড় কোটি টাকা মূল্যে পর্দা সোফার কাপড়।  দীর্ঘ দিনেও পণ্য খালাস না হওয়ায় পরে সেগুলো যাচাই করার পর জব্দ করেছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানায়, একটি কনটেইনার আসার প্রায় দেড় মাস এবং অপর কনটেইনার ২০ দিন অতিবাহিত হলেও পণ্য খালাসের জন্য আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থা নেয়নি।  কনটেইনারে ঘোষণা বহির্ভুত পণ্য আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে কাস্টম হাউসের অডিট, ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ (এআইআর) টিম পণ্য পরীক্ষার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে  আমদানিকারকের প্রতিনিধিকে মৌখিকভাবে অনুরোধ করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমদানিকারক এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, কনটেইনার দুটি তাদের প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আমদানিকৃত নয় এবং কেউ তাদের প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করে চালান দুটি এনেছে। 

পরে কমিশনারের নির্দেশে কনটেইনার দুটি কায়িক পরীক্ষার উদ্যোগ নেয় এআইআর শাখা।  আজ বুধবার কায়িক পরীক্ষায় ঘোষিত পণ্য শিল্পের কাঁচামালের পরিবর্তে পাওয়া যায় প্রায় ৪০ টন পর্দা ও সোফার কাপড়।  এক্ষেত্রে দেড়কোটি টাকা মূল্যের এই চালানে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকির অপচেষ্টা করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, দেশীয় পোশাক শিল্পের প্রসারের লক্ষ্যে ইপিজেডের প্রতিষ্ঠানগুলোকে এলসি ছাড়াই আইপির মাধ্যমে কাঁচামাল আমদানির সুযোগ দিয়েছে সরকার।  এছাড়া, শিল্পের কাঁচামালের ক্ষেত্রে ত্বরিৎ খালাসের আওতায় পণ্যচালান ছাড় দেয়া হয়। এই সুযোগের অপব্যবহার করা হচ্ছে বলে মনে করেন অনেকে। 

মিথ্যা ঘোষণায় কাপড় আনার চালানটি জব্দের বিষয়ে চট্টগ্রাম কাস্টমসের সহকারী কমিশনার (এআইআর) রেজাউল করিম বণিক বার্তাকে বলেন, এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন