শনিবার | জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | ২ মাঘ ১৪২৭

আন্তর্জাতিক ব্যবসা

ধারণার ৫ বছর আগেই যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে বৃহত্তম অর্থনীতি হবে চীন

বণিক বার্তা অনলাইন

কঠোর হস্তে ও দক্ষতার সঙ্গে মহামারী মোকাবেলার সুফল পেতে শুরু করেছে চীন।  বিপরীতে মহামারী সামলাতে লেজেগোবরে অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রের। ফলে আগামী বছরগুলোতে প্রবৃদ্ধির দৌড়ে চীনের পেছনে পড়ে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র।

নতুন এক গবেষণায় উঠে এসেছে, এ দশক শেষ হওয়ার আগেই অর্থাৎ ২০২৮ সাল নাগাদ যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যাবে চীনা অর্থনীতি।  তখন বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হয়ে উঠবে চীন।  আগের পূর্বাভাসের পাঁচ বছর আগেই এই মাইলস্টোন ছোঁবে এশিয়ার এই জায়ান্ট।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইকনোমিক্স অ্যান্ড বিজনেস রিসার্চ (সিইবিআর) বলছে, করোনাভাইরাস মহামারী এবং তার অর্থনৈতিক প্রতিক্রিয়া চীনের অনুকূলে কাজ করেছে।  করোনাভাইরাস সংকট চীন যেভাবে সামাল দিয়েছে তাতে এবছর চীনা অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি হবে ২ শতাংশ।

অন্যদিকে ২০৩৫ সাল নাগাদ বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হবে ভারত। অন্য এশীয় দেশগুলোও বৃহৎ অর্থনীতিগুলোর তালিকায় উপরের দিকে উঠে আসবে বলে গবেষণা প্রতিবেদনটিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

সিবিআর বলছে, এবছর চরম সঙ্কটকাল কাটালেও যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি আগামী বছরই জোরালোভাবে ঘুরে দাঁড়াবে।  কিন্তু তা চীনকে ছুঁতে পারবে না। চীনের অর্থনীতিতে ২০২৫ সাল পর্যন্ত প্রবৃদ্ধি ঘটবে গড়ে ৫ দশমিক ৭ শতাংশ করে।

সিইবিআরের মতে, বৈশ্বিক কভিড-১৯ মহামারীর এই সময় চীনের অর্থনীতি যুক্তরাষ্ট্রের আগেই সংকট কাটিয়ে উঠেছে এবং ২০২০ সালে দেশটির প্রবৃদ্ধি হবে ২ শতাংশ। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি এ বছর ৫ শতাংশ সঙ্কুচিত হবে।  ফলে চীনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির আকারের সঙ্গে দেশটির ব্যবধান কমে আসবে।

আর এ কারণেই ডলারের হিসাবে চীনের অর্থনীতির মূল্যমান যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যাওয়ার ঘটনাটি ঘটবে পূর্বের পূর্বাভাসের পাঁচ বছর আগেই।  যেখানে এক বছর আগেও ধারণা করা হচ্ছিল, অর্থনীতির আকারের দিক থেকে চীন ২০৩০-এর দশকের প্রথম দিকে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যাবে।

প্রতিবেদনটিতে আরো বলা হয়েছে, বৈশ্বিক অর্থনীতিতে চীনের অংশ ২০০০ সালে ছিল ৩ দশমিক ৬ শতাংশ যা এখন বেড়ে ১৭ দশমিক ৮ শতাংশ হয়েছে। এটা আরো বাড়বে এবং ২০২৩ সাল নাগাদ চীন উচ্চআয়ের দেশে পরিণত হবে। আর এসময় দেশটির মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে ১২ হাজার ৫৩৬ ডলারের বেশি।

অবশ্য তখনও যুক্তরাষ্ট্র বা পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর চাইতে চীনের নাগরিকদের জীবনযাত্রার মান অনেক নিচুতে থাকবে। যেখানে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের মাথাপিছু আয় ৬৩ হাজার ডলারেরও বেশি।

এদিকে সিইবিআরের তথ্য অনুযায়ী, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ সত্ত্বেও ব্রিটেনের অর্থনীতি ভালো করতে থাকবে এবং আগামী ১৫ বছরে গড়ে ১ দশমিক ৮ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি হবে।

ব্রেক্সিট পরবর্তী ব্রিটেনের অর্থনীতি ২০২১-২৫ সাল পর্যন্ত বছরে ৪ শতাংশ হারে বাড়বে এবং ২০২৬-৩০ সাল পর্যন্ত ১ দশমিক ৮ শতাংশ হারে বাড়বে।  যদিও চলতি বছর অর্থনীতি কিছুটা সঙ্কুচিত হবে।

২০১৯ সালে ভারত বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে ব্রিটেনকে টপকে গিয়েছিল। তবে মহামারীর কারণে আবার নিচের ধাপে চলে গেছে। ২০২৪ সালের আগে ভারত পূর্বের অবস্থান ফিরে পাবে না।  তবে সিইবিআরের হিসাবে, ভারতের অর্থনীতির আকার দ্রুত বাড়বে।  ২০২৭ সাল নাগাদ জার্মানি এবং ২০৩০ সাল নাগাদ জাপানকে ছাড়িয়ে যাবে ভারত।

সূত্র: বিবিসি

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন