মঙ্গলবার | জানুয়ারি ১৯, ২০২১ | ৬ মাঘ ১৪২৭

শেষ পাতা

সাগরে মাছের আকাল

উৎপাদন কমার শঙ্কায় কক্সবাজারের শুঁটকি মহালগুলো

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, কক্সবাজার

পর্যটন এলাকা হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই সামুদ্রিক মাছের চাহিদা বেশি থাকে কক্সবাজারে। সেই সঙ্গে পর্যটন মৌসুমে বাড়ে শুঁটকির চাহিদা। কিন্তু বছর সাগরে চলছে মাছের আকাল। এতে চলতি মৌসুমে শুঁটকির উৎপাদন কমার শঙ্কায় রয়েছে জেলার শুঁটকি মহালগুলো।

দেশের সর্ববৃহৎ শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র কক্সবাজার শহরের নাজিরারটেক শুঁটকি মহালে গিয়ে দেখা যায়, এরই মধ্যে সেখানে শুরু হয়েছে চলতি মৌসুমের শুঁটকি উৎপাদনের কাজ। মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টির কারণে কাজ কিছুটা ব্যাহত হলেও এখন পুরোদমে চলছে রোদে মাছ শুকানো।

নাজিরারটেক শুঁটকি ব্যবসায়ী বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আতিক উল্লাহ জানান, নাজিরারটেক শুঁটকি মহালে ছোট-বড় অর্ধশতাধিক আড়ত রয়েছে। এটিই দেশের সবচেয়ে বড় শুঁটকি মহাল। মহাল থেকে প্রতিদিন প্রায় ২০০ টন বিভিন্ন জাতের শুঁটকি উৎপাদন করা হয়। প্রতি মৌসুমে উৎপাদন হয় ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন শুঁটকি। যার বাজারমূল্য প্রায় ২০০ কোটি টাকা। তবে করোনা মহামারী এবং সাগর থেকে মাছ কম ধরা পড়ার কারণে বছর উৎপাদন কম হতে পারে।

বঙ্গোপসাগর থেকে সংগ্রহ করা ছুরি, লইট্যা, রূপচাঁদা, কোরাল, সুরমা, পোয়াসহ ২০ থেকে ২৫ প্রজাতির মাছ শুকিয়ে শুঁটকি করা হয়। সবচেয়ে বেশি উৎপাদন হয় ছুরি লইট্যা।

কক্সবাজার শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে পৌরসভার নম্বর ওয়ার্ডের বঙ্গোপসাগরের পাশ ঘেঁষে প্রায় ১০০ একর বালুচরজুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে নাজিরারটেক শুঁটকি মহাল। শুধু সূর্যের তাপে বিভিন্ন ধরনের মাছ শুকানো হয় এখানে। শুধু নাজিরারটেক নয়, প্রতি বছরের মতো শীত মৌসুমের শুরু থেকে মহেশখালীর সোনাদিয়া দ্বীপ, টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ, সেন্টমার্টিন, কুতুবদিয়াসহ জেলার উপকূলীয় বিভিন্ন শুঁটকি মহালে শুঁটকি উৎপাদন শুরু হয়েছে। সাগরের বেড়িবাঁধ এবং বিশেষ উপায়ে তৈরি বাঁশের মাচার ওপর পাতলা করে বিছিয়ে সূর্যের তাপে কাঁচা মাছ শুকিয়ে শুঁটকিতে পরিণত করা হয়।

সোনাদিয়া শুঁটকি ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন জানান, দ্বীপে শুঁটকি উৎপাদনের প্রায় ১৫০টি আড়ত রয়েছে। এসব আড়তে উৎপাদিত শুঁটকি চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সরবরাহ করা হয়। সেখান থেকে ওই শুঁটকি তিন পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবানসহ সারা দেশে যায়। কিন্তু চলতি মৌসুমে সাগরে মাছ কম পাওয়ায় ব্যবসায়ীদের চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত শুঁটকি সরবরাহ করা যাচ্ছে না।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন