মঙ্গলবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২১ | ১৩ মাঘ ১৪২৭

দেশের খবর

ঝালকাঠি পৌরসভা

২২ কর্মচারীর বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলনের অভিযোগ

বণিক বার্তা প্রতিনিধি, ঝালকাঠি

ঝালকাঠি পৌরসভার ২২ কর্মচারীর বিরুদ্ধে মেয়র মো. লিয়াকত আলী তালুকদারের স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংকের ভবিষ্যৎ তহবিল হিসাব থেকে ১৮ লাখ ২১ হাজার টাকা উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনায় গতকাল জরুরি সভায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর আগে ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর পৌর মেয়রের নির্দেশে ১১ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। কমিটি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ২৩ নভেম্বর মেয়রের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করে।

ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার জানান, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভবিষ্যৎ তহবিল (প্রভিডেন্ট ফান্ড) নামে রূপালী ব্যাংকে একটি হিসাব রয়েছে। এতে কর্মচারীদের বেতনের ১০ শতাংশসহ মোট ২০ শতাংশ অর্থ হিসাবে জমা রাখা হয়, যা কর্মচারীরা চাকরি থেকে অবসর নেয়ার সময় পেয়ে থাকেন। তবে কর্মচারীরা তহবিল থেকে অবসরের আগেও লোন নিতে পারেন। ব্যাংকের হিসাব থেকে টাকা ওঠাতে চেকে মেয়র এবং সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর যৌথ স্বাক্ষর প্রয়োজন। পৌরসভার ২২ জন কর্মচারী আমার স্বাক্ষর জাল করে একাধিক চেকে ১৮ লাখ ২১ টাকা উত্তোলন করেন।

মেয়র আরো জানান, সম্প্রতি অফিস সহায়ক জাহাঙ্গীর আলম জাল স্বাক্ষর দিয়ে ব্যাংকে টাকা উঠাতে গেলে জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়ে। আমি দায়িত্ব নেয়ার পর ১৭ এপ্রিল ২০১৬ থেকে পর্যন্ত ব্যাংকের হিসাব বিবরণী রূপালী ব্যাংক থেকে উঠালে বিবরণীতে মোট ১০৪টি চেকে মেয়রের স্বাক্ষর জাল করে উল্লিখিত টাকা ওঠানোর ঘটনা ধরা পড়ে।

পৌর সচিব শাহীন সুলতানা বলেন, বিষয়ে প্যানেল মেয়র মাহবুবুজ্জামানকে আহ্বায়ক করে গঠন করা তদন্ত কমিটি অনিয়মের সত্যতা পেয়েছে। তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদে কর্মচারীরা ট্রাক হেলপার মিলন হাওলাদার মর্তুজ আলী তাদের চেকে মেয়রের স্বাক্ষর করিয়ে এনে দিয়েছে বলে জানান।

বিষয়ে হেলপার মিলন মর্তুজ আলী জানান, আমরা আমাদের চেকে মেয়রের স্বাক্ষর এনেছি। বাকিরা নিজেদের বাঁচাতে আমাদের নাম বলছে। স্যানিটারি ইন্সপেক্টর সালাম সিকদার বলেন, এসব চেকে মেয়র স্বাক্ষর করলেও পৌরসভার নথিতে তা উল্লেখ না থাকায় তিনি আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন