মঙ্গলবার | জানুয়ারি ২৬, ২০২১ | ১৩ মাঘ ১৪২৭

খবর

মুষ্টিমেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ না দেয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক

মুষ্টিমেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কাজ না দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একক বা মুষ্টিমেয় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান যখন একাধিক প্রকল্পের কাজ পায়, তখন প্রকল্পের বাস্তবায়ন বিলম্বিত হয়। কতগুলো প্রতিষ্ঠান কাজ করছে, কোন কোন প্রকল্পে কাজ করছে, কোন প্রতিষ্ঠান কতটা প্রকল্পে কাজ করছে এবং সময়মতো কাজ শেষ করেছে কিনা সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে তালিকা তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

গতকাল শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে ডিজিটাল মাধ্যমে সাংবাদিকদের কাছে তথ্য উপস্থাপন করেন পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম।

জানা গেছে, ২০৩০ সালের মধ্যে সব নাগরিককে বৈধ জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়া এবং স্বচ্ছ নির্ভুল ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়ন করা হবে। নাগরিকদের জন্য স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরিসহ সাত প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে একনেক। এগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১০ হাজার ৭০২ কোটি ২৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে হাজার ৪৫৯ কোটি ২৭ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে হাজার ২৪২ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে। আইডেন্টিফিকেশন সিস্টেম ফর এনহ্যান্সিং অ্যাকসেস টু সার্ভিসেস (্আইডিইএ) দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে হাজার ৮০৫ কোটি টাকা। দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রকল্প গ্রহণের উদ্দেশ্য হচ্ছে, এনআইডি ডাটাবেজকে সম্প্রসারিত করা। এছাড়া একটি আধুনিক, যুগোপযোগী, সুরক্ষিত আদর্শ ডেটাবেজে রূপান্তরের মাধ্যমে দেশের সব নাগরিককে ইউনিক আইডির আওতায় নিয়ে আসা হবে।

প্রধানমন্ত্রী একনেক চেয়ারপাসনের নির্দেশনা উপস্থাপন করে মো. আসাদুল ইসলাম বলেন, কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যদি কাজ পায় সেই কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত যাতে নতুন কাজ না পায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে। দুটি উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী এমন নির্দেশনা দিয়েছেন। প্রথমত, নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যাতে গড়ে উঠতে পারে। দুই, কাজগুলো সময়মতো বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।

করোনা ভ্যাকসিনের বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু ভ্যাকসিন সংগ্রহই নয়, এর যথাযথ সংরক্ষণেও গুরুত্ব দিতে হবে এবং বেশি পরিমাণ মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। ভ্যাকসিনের কারণে যেসব বর্জ্য উৎপাদন হবে, সেগুলো যথাযথভাবে অপসারণ ব্যবস্থাপনা করতে হবে। অনুমোদন পাওয়া খুরুসকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পে জলবায়ু উদ্বাস্তু এবং বিমানবন্দর সম্প্রসারণে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদেরই অগ্রাধিকার দিতে হবে।

স্মার্ট কার্ড প্রকল্প বিষয়ে সমন্বিত কার্যক্রমের নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতীয় পচিয়পত্র, ভোটার তালিকা এবং জন্মনিবন্ধনসহ একাধিক কাজ একাধিক প্রতিষ্ঠান করছে। সবার মধ্যে সমন্বয় থাকতে হবে।

অনুমোদিত প্রকল্প: মৎস্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রাণিপুষ্টির উন্নয়নে উন্নত জাতের ঘাস চাষ সম্প্রসারণ লাগসই প্রযুক্তি হস্তান্তর প্রকল্প, খুরুশকুল বিশেষ আশ্রয়ণ প্রকল্প, ওয়েস্টার্ন ইকোনমিক করিডোর অ্যান্ড রিজিওনাল এনহ্যান্সমেন্ট প্রোগ্রাম (উই কেয়ার) ফেজ-: রুরাল কানেক্টিভিটি, মার্কেট অ্যান্ড লজিস্টিক ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইম্প্রুভমেন্ট (আরসিএমএলআইআইপি) প্রকল্প, উইকেয়ার ফেজ-: ঝিনাইদহ-যশোর মহাসড়ক (এন-) উন্নয়ন প্রকল্প, পায়রা বন্দরের কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো/সুবিধাদির উন্নয়ন (২য় সংশোধিত) প্রকল্প, শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী স্থাপন-১ম পর্যায় (১ম সংশোধিত) প্রকল্প।

এই বিভাগের আরও খবর

আরও পড়ুন